সারাদেশ | The Daily Ittefaq

সিলেটে টিলা কেটে ভরাট করা হচ্ছে আবাসিক এলাকার জমি

সিলেটে টিলা কেটে ভরাট করা হচ্ছে আবাসিক এলাকার জমি
এই পাহাড় কাটার সঙ্গে প্রভাবশালীরা জড়িত। এরা থাকে ধরা ছোঁয়ার বাইরে
হুমায়ুন রশিদ চৌধুরী, সিলেট অফিস২২ নভেম্বর, ২০১৭ ইং ০০:৪৬ মিঃ
সিলেটে টিলা কেটে ভরাট করা হচ্ছে আবাসিক এলাকার জমি

পাহাড়-টিলা কাটা ও পাথর উত্তোলনে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও সিলেটের অনেক এলাকায় এক শ্রেণীর লোক আইনকানুনের  তোয়াক্কা না করেই পাহাড় টিলা উজার করেই যাচ্ছে। মাঝে মধ্যে প্রশাসন থেকে অভিযান পারিচালনা করা হয়। কিন্তু তারা বেপরোয়া। কারণ এই লোকেরা থাকে পর্দার আড়ালে। আর তাদের পৃষ্ঠপোষকতা দেয় প্রভাবশালী মহল। এরা ধরা-ছোঁয়ার বাহিরে। এসব বেআইনি কাজে যদিওবা কেউ ধরা পড়ে তারা শ্রমিক শ্রেণীর। তারা নেহায়েত পেটের তাগিদে ৩-৪ শত টাকার মজুরির ভিত্তিতে কাজ করে থাকে। পাহাড় টিলা কাটায় ধরা পড়ার ঘটনা কম।

অবশ্য পরিবেশ অধিদপ্তর বলেছে, এসব অপরাধে সিলেটে প্রচুর মামলা-মোকদ্দমা হয়েছে। কিন্তু ফলাফল অনেকটা শূন্য। কারণ এ বিষয়ের মামলার আসামিদের খুঁজে পাওয়া যায় না। আবার যারা এসব কাজের সাথে জড়িত তারা ছদ্ম নাম ব্যবহার করে। এ ছাড়া মামলা হলেই তারা চলে যায় নিজ জন্মভূমি ময়মনসিংহ, নেত্রকোনা বা অন্য কোনো জেলায়। এ ভাবে বেআইনি ও বেপরোয়া পাহাড় টিলা কাটা বন্ধে সংশি­ষ্ট প্রশাসন নোটিশ টানিয়ে দায়িত্ব শেষ করে থাকেন। কিন্তু এর তদারকির কেউ নেই। সূত্র জানায়, সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার নিজপাট ইউনিয়নের গুয়াবাড়ীর সরকারি পাহাড় হতে রাতের আঁধারে মাটি কাটা চক্রের সদস্যরা পাথর উত্তোলন করে নিয়ে যাচ্ছে। আবার অনেকে পাহাড় টিলার মাটি বিক্রয় করছে। কেউবা টিলা কেটে আবাসিক প্লট তৈরি করছে।

এদিকে ইদানিং ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার একটি কারখানার আবাসিক এলাকার বিশাল টিলার অর্ধেক  কাটা প্রায় শেষ। এস্কেভেটারের (খনন মেশিন) সাহয্যে   টিলার বুক কেটে সাবাড় করা হয়েছে। টিলাটির নাম ‘মুক্তিযোদ্ধা টিলা’। এর মাটি দিয়েই ভরাট চলছে কলাবাগান আবাসিক এলাকা। গত ১৫ দিনে ১২শ থেকে ১৩শ ট্রাক মাটি কেটে নেয়া হয়েছে বলে স্থানীয় সূত্র জানায়।

সূত্র জানায়, উত্তরভাগ ইউনিয়নের ইন্দেশ্বর ভূমি অফিসের অধীনে এ ইউনিয়নের খাসমহল যাদুরগুল এলাকার জমি। যাদুরগুল খাস মহলে ২ হাজার একরেরও বেশি জমি সরকারের খতিয়ানভুক্ত। কারখানাটির বেশিরভাগ জমি রাজনগর উপজেলার আওতাধীন। এই সার কারখানার আবাসিক এলাকার নিচু জমি ভরাটের জন্য কাটা হচ্ছে এই টিলার মাটি। টিলা কাটার সাথে প্রভাবশালীরা জড়িত থাকায় ভয়ে কেউ কিছু বলছেন না। টিলার উপরে বসবাসকারী ব্যক্তিরাও রয়েছেন ঝুঁকির মুখে। যে কোনো সময় টিলা ধসে বাড়িঘর নিশ্চিহ্ন হতে পরে। এমনকি প্রাণহানিও ঘটতে পারে।

প্রতি ট্রাক মাটি দেড় হাজার টাকায় বিক্রি করছেন সংশ্লিষ্টরা। ওই এলাকার বাসিন্দা ভূমিহীন সমবায় সমিতি লিমিটেডের সদস্য সচিব বিলাল হোসেন মিন্টু বলেন,  প্রভাবশালীরা জোর করে টিলা কেটে নিচ্ছে। বাধা দিলে বাড়িঘর থেকে তাড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেয়া হয়। টিলার উপরে বসবাসকারীরা হুমকির মুখে রয়েছেন।

এ বিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তরের সিলেটস্থ পরিচালক সালাউদ্দিন চৌধুরী গতকাল ইত্তেফাককে বলেন, টিলা কাটার বিষয়ে কোনো ছাড় নয়। আমরা মুক্তিযোদ্ধা টিলা কাটার বিষয়টি অবহিত হয়েছি শিগ্রই আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ইত্তেফাক/নূহু

এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
১৪ নভেম্বর, ২০১৭ ইং
ফজর৫:১১
যোহর১১:৫৩
আসর৩:৩৮
মাগরিব৫:১৭
এশা৬:৩৪
সূর্যোদয় - ৬:৩২সূর্যাস্ত - ০৫:১২