সারাদেশ | The Daily Ittefaq

নাব্য সঙ্কট : বাঘাবাড়ি বন্দরে পণ্যবাহী জাহাজ চলাচল বন্ধ

নাব্য সঙ্কট : বাঘাবাড়ি বন্দরে পণ্যবাহী জাহাজ চলাচল বন্ধ
রুমী খোন্দকার, পাবনা প্রতিনিধি১০ জানুয়ারী, ২০১৮ ইং ১৭:৩১ মিঃ
নাব্য সঙ্কট : বাঘাবাড়ি বন্দরে পণ্যবাহী জাহাজ চলাচল বন্ধ
যমুনা নদীতে নাব্য সঙ্কটে বাঘাবাড়ি বন্দরের সঙ্গে নৌযোগাযোগ বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। নাব্য সঙ্কটে গত শনিবার থেকে নগবাড়ির উজানে ৩৫ হাজার বস্তা টিএসপি, এমওপি, ডিওপি ও ইউরিয়া সার এবং ৪৯ লাখ লিটার জ্বালানি তেল বোঝাই এমভি সাদিয়া, এমভি অনিক, এমভি সিলিং বিজয়, এমভি আছরসহ ৭টি জাহাজ বাঘাবাড়ি বন্দরে যেতে পারছে না। তবে ছোট নৌকার ধারণ ক্ষমতানুযায়ী মাল খালাস করে আনা হচ্ছে।এতে পরিবহন খরচ বাড়ছে। 
 
সরেজমিন  জানা যায়, জ্বালানি তেল, রাসায়নিক সার ও পণ্যবাহী কার্গো চলাচলের জন্য ১০ থেকে ১১ ফুট পানির গভীরতা প্রয়োজন। বাঘাবাড়ি বন্দরের ৩০ কিলোমিটার ভাটিতে নগরবাড়ির উজানে আধা কিলোমিটার এলাকায় পানির গভীরতা কমে দাঁড়িয়েছে মাত্র ৬ থেকে ৭ ফুট। তাই জাহাজ যমুনা নদীতে আটকা পড়ছে। আটকা পড়া জাহাজের সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে।
 
এমভি জুগর্ডেন এর মাস্টার হেলাল উদ্দিন জানান, দৌলতদিয়া থেকে বাঘাবাড়ি নৌবন্দর পর্যন্ত ৪৫ কিলোমিটার নৌপথের ১০টি পয়েন্টে পানির গভীরতা কমে দাঁড়িয়েছে ৬ থেকে ৭ ফুট। সরু হয়ে গেছে নৌচ্যানেল। ফলে জাহাজ চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। 
 
বাঘাবাড়ি রিভারাইন অয়েল ডিপোর যমুনা কোম্পানির ডেপুটি ম্যানেজার এ, কে, এম জাহিদ সরোয়ার, মেঘনার ম্যানেজার মোঃ জালাল উদ্দিন এবং পদ্মার ম্যানেজার মোঃ আনোয়ার হোসেন জানান, প্রতিবছরই এ সময় দৌলতদিয়া থেকে বাঘাবাড়ি নৌপথে নাব্য সঙ্কট দেখা দেয়। এখন বাঘাবাড়িতে পদ্মা, মেঘনা ও যমুনা তিনটি তেল কোম্পানির ডিপোতে ৫ কোটি ৮০ লাখ লিটার ডিজেল মজুদ আছে। আরো প্রায় ৭৪ লাখ লিটার ডিজেল ভর্তি ১২টি জাহাজ চিটাগাং থেকে বাঘাবাড়ি বন্দরের বন্দরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে এসেছে। নগরবাড়ির উজানে ৪৯ লাখ লিটার জ্বালানি তেলবাহী ৭টি জাহাজ যমুনা নদীতে আটকা পড়েছে। নাব্যতা সঙ্কটে জাহাজগুলো বন্দরে আসতে পারছে না।
 
ইত্তেফাক/ইউবি
 
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩৩
যোহর১১:৫১
আসর৪:১২
মাগরিব৫:৫৫
এশা৭:০৮
সূর্যোদয় - ৫:৪৮সূর্যাস্ত - ০৫:৫০