সারাদেশ | The Daily Ittefaq

সাভারে আবাসিক ও শিল্প এলাকায় গ্যাস সংকট তীব্র

সাভারে আবাসিক ও শিল্প এলাকায় গ্যাস সংকট তীব্র
তুহিন খান১৪ জানুয়ারী, ২০১৮ ইং ০১:০২ মিঃ
সাভারে আবাসিক ও শিল্প এলাকায় গ্যাস সংকট তীব্র

সাভার পৌর এলাকাসহ উপজেলার বিভিন্ন বাসাবাড়িতে তীব্র গ্যাস সঙ্কট চলছেই। আর এতে চরম দুর্ভোগে দিন কাটছে এলাকাবাসী। পৌর এলাকার অনেক স্থানে দিনে গ্যাস থাকে না। গভীর রাতে কিছুটা পাওয়া গেলেও তার পরিমাণ খুবই নগণ্য। আবাসিক এলাকায় এমন গ্যাস সংকট দেখা দেওয়ার ফলে অনেকেই রান্না করতে পারছে না।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রভাবশালীদের দেওয়া অবৈধ সংযোগের কারণেই এ সঙ্কট সৃষ্টি হয়েছে। এ ব্যাপারে দৈনিক ইত্তেফাকসহ বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে একাধিক সংবাদ প্রকাশ এবং বিভিন্ন সময়ে পৌর এলাকার বাসিন্দাগণ সরকারি বিভিন্ন দপ্তরসহ তিতাস কর্তৃপক্ষকে অভিযোগ জানালেও তাদের টনক নড়ছে না ।

বিগত ২ বছর ধরে সাভার পৌর এলাকার গ্যাসের চাপ না থাকায় হাজার হাজার মানুষ সীমাহীন দুর্ভোগে পড়েছে। নিরূপায় হয়ে অনেকেই এলপি গ্যাস, বৈদ্যুতিক চুলা ও মাটির তৈরি চুলা দিয়ে রান্নার কাজ সেরে নিচ্ছে।

সাভার পৌরসভার গেন্ডা এলাকার বাসিন্দা কে.এম খালেদ মন্টু জানান, পৌর এলাকার বিভিন্ন  বাসাবাড়িতে মাসের পর মাস চুলা  জ্বলে না। সামান্য পানি গরম করার জন্যও গ্যাস পাওয়া যায় না। অথচ গ্রাহকদের নিয়মিত গ্যাসের বিল পরিশোধ করতে হচ্ছে। এরকম অভিযোগ আরো অনেকের। তারা বলেন, সাভারের বিভিন্ন শিল্প ও কলকারখানা ও বাসাবাড়িতে অবৈধভাবে গ্যাসের সংযোগ প্রদান করা হয়েছে। তাই আবাসিক এলাকাতে এমন তীব্র গ্যাসের সঙ্কট সৃষ্টি হয়েছে।

একাধিক কারখানা কর্তৃপক্ষের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, কোনো কোনো কারখানায় প্রয়োজনের অর্ধেক গ্যাসও পাচ্ছে না। গ্যাস সঙ্কটের কারণে একটি মাঝারি শিল্প প্রতিষ্ঠানে মাসে বিপুল অংকের টাকা বাড়তি খরচ করতে হচ্ছে উদ্যোক্তাদের। গ্যাস জেনারেটর থাকা শিল্প কারখানায় গ্যাসের চাপ কম থাকায় অনেক যন্ত্রপাতিও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। গ্যাস সঙ্কটের কারণে অনেক শিল্প প্রতিষ্ঠান শর্তাধীন সময়ে তাদের পণ্য বিদেশে সরবরাহ করতে পারছে না। ফলে অনেক ক্ষেত্রে রপ্তানি আদেশও বাতিল হচ্ছে। সেক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানের মালিকরা অর্থনৈতিকভাবে দারুণ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

এদিকে সাভারে প্রায় ৪০টি সিএনজি স্টেশন আছে। সিএনজি স্টেশনগুলোতেও চাহিদা মোতাবেক গ্যাস পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে এ অঞ্চলের অনেক সিএনজি স্টেশন দিনের বেশিরভাগ সময় বন্ধ থাকে। গ্যাস সংকট দিন দিন প্রকট আকার ধারণ করছে।

সাভারস্থ তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্টিবিউশন কোম্পানির আঞ্চলিক বিক্রয় কেন্দ্রের কর্মকর্তা জানান, গ্যাস সরবরাহ কম হওয়ায় কলকারখানা ও আবাসিক এলাকাগুলোতে চাহিদা অনুযায়ী গ্যাস বিতরণ করা যাচ্ছে না। আমরা চেষ্টা করছি পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে। গ্যাসের চাহিদা ও সরবরাহের মধ্যে যে পার্থক্য এর জন্যই সমস্যাটা বেশি হচ্ছে। আমরা যে পরিমাণ গ্যাস পাই তা মোটামুটি সমান ভাবে সরবরাহের চেষ্টা করি।

ইত্তেফাক/নূহু

এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
১৯ অক্টোবর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৪২
যোহর১১:৪৪
আসর৩:৫২
মাগরিব৫:৩৩
এশা৬:৪৪
সূর্যোদয় - ৫:৫৭সূর্যাস্ত - ০৫:২৮