সারাদেশ | The Daily Ittefaq

যেভাবে জঙ্গি ফয়জুর

যেভাবে জঙ্গি ফয়জুর
বিশেষ প্রতিনিধি০৫ মার্চ, ২০১৮ ইং ০৯:৩৩ মিঃ
যেভাবে জঙ্গি ফয়জুর
‘সেলফ মোটিভেটেড’ উগ্রপন্থি। উগ্র মৌলবাদী গোষ্ঠীর অনলাইন প্রচার-প্রচারণা দেখে প্রথমে জঙ্গিবাদের আদর্শের দিকে ঝুঁকে পড়েন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও বিশিষ্ট লেখক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের ওপর হামলাকারী ফয়জুর রহমান ফয়জুল। এরপর তিনি ধীরে ধীরে আনছার আল ইসলামের সঙ্গে সম্পৃক্ত হন। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তদন্ত করে প্রাথমিকভাবে এ তথ্য পেয়েছে বলে জানা গেছে। তবে ফয়জুর রহমান ফয়জুল এখনো সুস্থ নয়। গতকাল রবিবারও তাকে কয়েক দফা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।
 
সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার জগদল ইউনিয়নের কলিয়ারকাপন গ্রামের বাসিন্দা ফয়জুর রহমান ফয়জুল। তার নাম ফয়জুর রহমান ফয়জুল হলেও স্থানীয়রা তাকে ফয়জুল হাসান নামে চেনে। ফয়জুলকে তারা ধার্মিক হিসেবেই চিনতো। তিনি পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়তেন। তবে তার নামাজের ধরন ছিল শিয়া বা আহলে সুন্নত মতাদর্শদের মতো। ফয়জুলের বাবা  মাওলানা আতিকুর রহমান এলাকায় কুরুষ আলী নামে বেশি পরিচিত। তার তিন ছেলে ও দুই মেয়ের মধ্যে ফয়জুল তৃতীয়। প্রায় ১৫ বছর আগে তারা সিলেটে চলে যান। তবে বিভিন্ন সময় ঈদে তারা বাড়িতে আসেন। 
 
তারা জানান, সিলেটে আগে কাপড় ফেরি করে জীবিকা নির্বাহ করতেন ফয়জুল। পরে তিনি একটা মোবাইল ফোনের দোকান করেন। এরপর থেকে ফয়জুল অনলাইনে বেশি সময় কাটাতেন। অনলাইনে উগ্র মৌলবাদী গোষ্ঠীর অনলাইন প্রচার-প্রচারণা তাকে আকৃষ্ট করে জঙ্গি হতে। পরে জঙ্গি কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়েন।
 
শনিবার বিকালে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের মুক্তমঞ্চে একটি অনুষ্ঠান চলাকালে ফয়জুল ছুরি নিয়ে অধ্যাপক জাফর ইকবালের ওপর হামলা চালান। হামলার পরপরই ফয়জুল নামে ওই তরুণকে ধরে ফেলে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা। এ ঘটনায় ফয়জুলের মামা ও চাচাকে আটক করে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। এ ঘটনায় শনিবার রাতেই বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ইশফাকুল হোসেন জালালাবাদ থানায় হত্যাচেষ্টার অভিযোগ দায়ের করেন। রবিবার তা সন্ত্রাস দমন আইনের মামলা হিসেবে নথিভুক্ত করা হয়।
 
ইত্তেফাক/কেকে
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩১
যোহর১১:৫২
আসর৪:১৫
মাগরিব৫:৫৯
এশা৭:১২
সূর্যোদয় - ৫:৪৬সূর্যাস্ত - ০৫:৫৪