সারাদেশ | The Daily Ittefaq

ভারত যাতয়াতকারী যাত্রীদের হয়রানী বেনাপোল বন্দরে

ভারত যাতয়াতকারী যাত্রীদের হয়রানী বেনাপোল বন্দরে
বেনাপোল (যশোর) সংবাদদাতা১৯ জুন, ২০১৮ ইং ১৫:১৮ মিঃ
ভারত যাতয়াতকারী যাত্রীদের হয়রানী বেনাপোল বন্দরে
ঈদের ছুটি শেষে হাজারো ভারত-বাংলাদেশী যাত্রী বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে যাতয়াত করছেন। কেউ যাচ্ছেন বেড়াতে, কেউ যাচ্ছেন চিকিৎসার জন্য, কেউ যাচ্ছেন আত্বীয় স্বজনের বাড়িতে, আবার কেউ আসছে নাড়ীর টানে বাংলাদেশের মাটিতে। বেশীরভাগ যাতয়াতকারীর সঙ্গে রয়েছে তাদের  পরিবার পরিজন। চেকপোস্টে ভারত যাতয়াতকারী যাত্রীদের ঢল নামার সুযোগে দালালরা সক্রীয় হয়ে উঠেছে। তাদের হাতে এসব যাত্রী হয়রানীর শিকার হচ্ছেন প্রতিদিন।
 
বেনাপোল আন্তর্জাতিক চেকপোস্ট দিয়ে প্রতিদিন ৭ থেকে ৮ হাজার যাত্রী ভারতে যাতয়াত করছে। গত ২ দিনে ১২ হাজার যাত্রী ভারতে যাতয়াত করেছেন। একজন পাসপোর্টধারী যাত্রীকে নো-ম্যান্স ল্যান্ডে পৌঁছুতে বাংলাদেশ সাইডে ৬ জায়গায় লাইনে দাঁড়াতে হয়। বাংলাদেশ কাস্টমস ইমিগ্রেশন থেকে সহজে পার হলেও ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন দুই দেশের নো-ম্যান্স ল্যান্ড এলাকায় যাওয়ার পর। ভারতীয় গেটে ধীরগতিতে পাসপোর্ট চেকিং করায় নো-ম্যান্স ল্যান্ড এলাকায় দীর্ঘ লাইনের সৃষ্টি হচ্ছে।
 
বেলা বাড়ার সঙ্গে এ লাইন দীর্ঘ হতে থাকে। ঘন্টার পর ঘন্টা খোলা আকাশের নিচে দাঁড়িয়ে থাকতে হচ্ছে এসব পাসপোর্টধারীদের। রোদ বৃষ্টি আর ব্যপসা গরমে অতিষ্ট হয়ে উঠছেন যাত্রীরা। বিশেষ করে ছোট বাচ্চা ও রোগীদের নিয়ে মহা বিপাকে পড়তে হচ্ছে তাদের। 
 
যাতায়াতকারীরা অভিযোগ করে বলছেন, তারা বেনাপেলে ইমিগ্রেশনে দালালদের দ্বারা হয়রানীর শিকার হচ্ছেন প্রতিনিয়ত। তাছাড়া ভারতীয় প্রবেশ গেটে পাসপোর্ট চেকিং ধীরগতিতে হচ্ছে। এর মধ্যে আবার ভারতীয় শ্রমিকরা অর্থের বিনিময়ে লাইন ছাড়া যাত্রীদের ভারতে প্রবেশের সুযোগ সৃষ্টি করে দেওয়ায় আরো বিপাকে পড়ছেন সাধারণ যাত্রীরা।  ইমিগ্রেশন পুলিশের সহযোগিতায় দীর্ঘদিন ধরে পাসপোর্ট দালালরা ইমিগ্রেশন অভ্যন্তরে পাসপোর্ট যাত্রীদের নানাভাবে হয়রানী করছে। ছিনিয়ে নিচ্ছে যাত্রীদের ব্যাগ ও অর্থ। দালালদের সঙ্গে মিলেছে ইমিগ্রেশনের পুলিশ সদস্যরা। তারা যাত্রীদের কাছ থেকে জোর পুর্বক টাকা নিচ্ছে হরহামেশায়।
 
ঈদের পর বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে ভারতে যাওয়ার যাত্রী ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। ভোগান্তির কথা স্বীকার করে একজন পুশিল কর্মকর্তা বলেন এখানে দুর্নীতির সঙ্গে সব সংস্থার সদস্যারা জড়িত। বিধায় স্ব-স্ব সংস্থার কর্তৃপক্ষের এ বিষয়ে কড়া নজরদারী করা একান্ত জরুরী।
 
ইত্তেফাক/নূহু
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩২
যোহর১১:৫২
আসর৪:১৪
মাগরিব৫:৫৮
এশা৭:১১
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৫:৫৩