সারাদেশ | The Daily Ittefaq

কিল্লারপুল হতে খানপুর সড়কের বেহাল দশা

কিল্লারপুল হতে খানপুর সড়কের বেহাল দশা
ইত্তেফাক রিপোর্ট১৯ জুন, ২০১৮ ইং ১৫:৩৯ মিঃ
কিল্লারপুল হতে খানপুর সড়কের বেহাল দশা
নারায়ণগঞ্জ শহরের খানপুর থেকে সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল মোড় (চিটাগাং রোড) পর্যন্ত সড়কটি প্রায় ৮ কিলোমিটার। এই সড়কের শহরের খানপুর মেট্রো হল থেকে কিল্লারপুল মোড় পর্যন্ত হাসপাতালসহ বেশ কিছু সরকারী সেবামূলক দফতর রয়েছে। এছাড়া এই সড়কটি দিয়ে প্রতিদিন মহানগরীর সিদ্ধিরগঞ্জ ও বন্দরে যাতায়াত করে থাকেন হাজারো মানুষ। তবে সড়কের বেহাল দশার কারণে প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা। সড়কের বিভিন্ন স্থানে ছোট বড় গর্তে খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে। প্রায় উল্টে যাচ্ছে যানবাহন।
 
দীর্ঘদিন ধরেই সড়কটির এহেন বেহাল দশা বিরাজ করলেও সমস্যা সমাধানে উদ্যোগ নেই সংশ্লিষ্ট কারো। সড়কটির পাশে নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল। যেখানে প্রতিদিন দূর-দূরান্ত থেকে কয়েক হাজার রোগীর আগমন ঘটে। হাসপাতালের ঠিক পরেই রয়েছে জেলা প্রশাসকের বাসভবন। এরপর রয়েছে বিআইডব্লিউটিএ ও বিআইডব্লিউটিসি’র স্টাফদের কোয়ার্টার। বরফকল মাঠ সংলগ্ন স্থানে রয়েছে চৌরঙ্গী ফ্যান্টাসী পার্ক। বরফকল মাঠ থেকে কিল্লারপুল পর্যন্ত সড়কের দুইপাশে রয়েছে অসংখ্য শিল্পপ্রতিষ্ঠান। কিল্লারপুল মোড়ে রয়েছে ডিপিডিসি ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের কার্যালয়। এছাড়া বরফকল খেয়াঘাট ও নবীগঞ্জ খেয়াঘাট দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার যাত্রী পারাপার হয়ে থাকে। রয়েছে আদমজী ইপিজেড। যেখানে অর্ধশতাধিক রপ্তানীমুখী শিল্পপ্রতিষ্ঠান রয়েছে।
 
এই সড়কটিতে চলাচল করে শীতলক্ষ্যা পরিবহন, দুরন্ত পরিবহন, লেগুনা, টেম্পু ও বেবীট্যাক্সি। এছাড়া ব্যাটারীচালিত অটোরিক্সাও চলাচল করে থাকে। এদিকে হাসপাতালসহ সরকারী সেবামূলক বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান থাকার পরেও জনগুরুত্বপূর্ণ সড়কটির সংস্কারে কোন ধরনের উদ্যোগ নিতে দেখা যায়নি সড়ক ও জনপথ কিংবা সিটি করপোরেশনকে। ফলে পবিত্র রমজান মাসেও দুর্ভোগ নিয়েই চলাচল করতে হয়েছে যাত্রীদের। আর ঈদের পূর্বে সংস্কার না হওয়ায় পবিত্র ঈদুল ফিতরেও নারায়ণগঞ্জবাসীকে দুর্ভোগকে সঙ্গে নিয়েই ওই সড়কে চলাচল করতে হবে বলেই মনে করছেন নারায়ণগঞ্জবাসী।
 
এদিকে বেশ কিছুদিন পূর্বে এই সড়কটি প্রসস্থতার বিষয়ে উদ্যোগ নেওয়ার কথা জানিয়েছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য শামীম ওসমান। দীর্ঘদিনেও সেই প্রতিশ্রুতির কোন বাস্তবায়ন ঘটেনি। ফলে এই সড়কটি দ্রুত প্রসস্থতার উদ্যোগ না নেওয়া হলে যাত্রীদের দুর্ভোগ আরো বাড়বে বলে মনে করছেন সাধারণ মানুষ।
 
ইত্তেফাক/নূহু
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২০ জুলাই, ২০১৮ ইং
ফজর৩:৫৭
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪৪
মাগরিব৬:৫০
এশা৮:১২
সূর্যোদয় - ৫:২২সূর্যাস্ত - ০৬:৪৫