সারাদেশ | The Daily Ittefaq

ভিডিপির প্রশিক্ষণের নামে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ

ভিডিপির প্রশিক্ষণের নামে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ
পীরগাছা (রংপুর) সংবাদদাতা০৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং ১৮:০১ মিঃ
ভিডিপির প্রশিক্ষণের নামে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ
রংপুরের পীরগাছায় আনসার ও ভিডিপির গ্রাম/আশ্রয়ণ প্রকল্প ভিত্তিক অস্ত্রবিহিন ভিডিপি মৌলিক প্রশিক্ষণের নামে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এলাকার শিক্ষিত বেকারদের থেকে এসব অর্থ হাতিয়ে নেয়া হয়।
 
চলতি অর্থ বছরে উপজেলার ইটাকুমারী ইউনিয়নের ঝিনিয়া মৌজায় ৬০ জন প্রশিক্ষণার্থীকে ভিডিপি মৌলিক প্রশিক্ষণ দেয়ার আয়োজন করা হয়। নিয়ম অনুযায়ী প্রশিক্ষণার্থীদের অবশ্যই নিজ মৌজার স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে। আর সংশ্লিষ্ট মৌজায় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। কিন্তু কোন নিয়ম নীতির তোয়াক্কা করা হয়নি। 
 
সরেজমিনে প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়, কাগজ-কলমে ইটাকুমারী ইউনিয়নের ঝিনিয়া গ্রামের বাসিন্দাদের জন্য প্রশিক্ষণ দেয়ার কথা উল্লেখ করা হলেও অন্য মৌজার প্রশিক্ষণার্থীদের প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। একই সঙ্গে ঝিনিয়া মৌজায় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা না করে পার্শ্ববর্তী কালীগঞ্জ মৌজায় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়।
 
একাধিক প্রশিক্ষণ বঞ্চিত ব্যক্তি জানান, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের যোগসাজশে আনসার ও ভিডিপির ইউনিয়ন দলনেতা প্রশিক্ষণার্থীদের নিকট থেকে তিন, পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত আদায় করেন। 
 
এলাকার শিক্ষিত বেকার তরুণ-তরুণীদের বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে এসব অর্থ হাতিয়ে নেয়। প্রলোভনের মধ্যে সরকারি চাকরিতে নিশ্চয়তা, সরকারি চাকরিতে আনসার ভিডিপির ১০ শতাংশ কোটা, প্রশিক্ষণ শেষে সামনে নির্বাচনের ও পুজার দায়িত্ব পালনের পরে মোটা অংকের ভাতা পাওয়ার কথা বলা হয়। এসব লোভনীয় সুযোগ ও অর্থ উপার্জনের আশায় মোটা অংকের অর্থ দিয়ে প্রশিক্ষণে অংশ গ্রহণ করেন তারা।
 
প্রতিটি মৌজায় ৬০ জন সদস্যকে প্রশিক্ষণ দেয়ার নিয়ম থাকলেও তা করা হচ্ছে না। যেসব মৌজায় অর্থের বিনিময়ে প্রশিক্ষণ গ্রহণের আগ্রহ দেখান শুধুমাত্র সেই সব মৌজায় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করার অভিযোগ উঠেছে।
 
একাধিক প্রশিক্ষণার্থী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, টাকা দিয়েছি এটা সত্য কিন্তু আমাদের নাম বলা যাবে না। তাহলে নাম বাদ দেয়া হবে।
এ ব্যাপারে উপজেলা আনসার ও ভিডিপি’র উপজেলা প্রশিক্ষক মোহাম্মদ আজম জানান, আমার শুধু প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকি। অর্থ আদায়ের বিষয়ে আমার জানা নেই।
 
এ বিষয়ে উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম বলেন, এ ধরনের অনিয়ম হয়ে থাকলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
 
ইত্তেফাক/জেডএইচ
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩২
যোহর১১:৫১
আসর৪:১২
মাগরিব৫:৫৬
এশা৭:০৯
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৫:৫১