সারাদেশ | The Daily Ittefaq

শোলাকিয়া জঙ্গি হামলার চার্জশিট দাখিল

শোলাকিয়া জঙ্গি হামলার চার্জশিট দাখিল
কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং ২১:৪২ মিঃ
শোলাকিয়া জঙ্গি হামলার চার্জশিট দাখিল
ফাইল ছবি
দুই বছর দুই মাস পাঁচ দিন পর শোলাকিয়া জঙ্গি হামলা মামলার ঘটনায় দায়ের করা মামলার চার্জশিট (অভিযোগ-পত্র) চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে দাখিল করা হয়েছে। বুধবার মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. আরিফুর রহমান জীবিত পাঁচ জঙ্গির বিরুদ্ধে এই চার্জশিট দাখিল করেন। এই মামলার চার্জশিটে আরো ১৯ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হলেও তাদেরকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। এরা বিভিন্ন অভিযানে বন্দুকযুদ্ধে নিহত অথবা আত্মঘাতী হন।
 
স্বারষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন পাওয়ার পর এই চার্জশিট দাখিল করা হয়েছে বলে পুলিশ সুপার মো. মুশরিকুর রহমান খালেদ বুধবার (১২ সেপ্টেম্বর) বিকালে এক সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানান।
 
সন্ত্রাসবিরোধী আইন ২০০৯ (সংশোধনী/২০১৩ এর ৬(২)/৮/৯/১০/১২/১৩ ধারায় আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করা হয়। এরা বর্তমানে কারাগারে আটক রয়েছে। মামলার চার্জশিট প্রদান করতে মোট ৭৩ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়েছে।
 
যাদের বিরুদ্ধে চার্জশিট দেয়া হয়েছে তারা হল- কিশোরগঞ্জ শহরের পশ্চিম তারাপাশা এলাকার জাহিদুল হক ওরফে তানিম, গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার রাঘবপুর গ্রামের জাহাঙ্গীর আলম ওরফে রাজিব গান্ধী ওরফে সুভাষ ওরফে জাহিদ, চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার হাজারদিঘা (চাঁদপুর) গ্রামের মিজানুর রহমান ওরফে বড় মিজান, গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার পান্তাপাড়া গ্রামের আনোয়ার হোসেন ও কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার সাদিপুর কাবিলাপাড়া গ্রামের আব্দুর সবুর খান হাসান ওরফে সোহেল মাহফুজ, ওরফে মুসাফির ওরফে জয় ওরফে নূরুল্লাহ।
 
এই মামলার চার্জশিটে আরো ১৯ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হলেও তাদেরকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। এরা বিভিন্ন অভিযানে বন্দুকযুদ্ধে নিহত অথবা আত্মঘাতী হন। এরা হল- মো. শরীফুল ইসলাম ওরফে শফিউল ইসলাম ওরফে সাইফুল ইসলাম, আবির রহমান, তানিম আহমদ চৌধুরী ওরফে তালহা ওরফে আবদুল্লাহ ওরফে মানিক, নূরুল ইসলাম ওরফে মরজান, সারোয়ার জাহান ওরফে আব্দুর রহমান, মো. বাশারুজ্জামন ওরফে চকলেট, মেজর (অব:) জাহিদুল ইসলাম ওরফে মেজর (অব:) মুরাদ, রোহান ইবনে ইমতিয়াজ, নিব্রাস ইসলাম, মীর সামেহ মোবাশ্বের, খায়রুল ইসলাম ওরফে পায়েল ওরফে বাঁধন, মো. শফিকুল ইসলাম উজ্জ্বল ওরফে বিমল ওরফে নাহিদ, রায়হানুল কবীর রায়হান ওরফে তারেক ওরফে ফারুক, সাদ্দাম হোসেন ওরফে রাহুল, তানভীর কাদেরী ওরফে জমসেদ, মাহফুজুর রহমান ওরফে সোহেল, নজরুল ইসলাম ওরফে বাইক হাসান ওরফে বাইক নজরুল, মো. ফরিদুল ইসলাম ওরফে আকাশ ও বদর ওরফে হালিম।
 
অভিযুক্তরা সবাই শোলাকিয়া জঙ্গি হামলার মূল পরিকল্পনাকারী, হামলায় অংশগ্রহণকারী, অর্থ ও অস্ত্র সরবরাহকারী বলে পুলিশ সুপার জানান।
 
প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের ৭ জুলাই ঈদুল ফিতরের দিনে সকালে পৌনে ৯টার দিকে ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহের অদূরে মুফতি মোহাম্মদ আলী জামে মসজিদ মোড়ে চেকপোস্টে কর্তব্যরত পুলিশের ওপর অতর্কিতে জঙ্গিরা হামলা চালায়। তারা কয়েকটি হ্যান্ড গ্রেনেড বিস্ফোরণ ঘটায়, পুলিশের রাইফেল কেড়ে নেয় এবং কনস্টেবল জহিরুল ইসলাম ও কনস্টেবল আনসারুল হককে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে। পরে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ এসে পৌঁছলে দুই পক্ষের মধ্যে গোলাগুলি শুরু হয়। এতে ঘটনাস্থলেই আবির রহমান নামে এক জঙ্গি এবং ঘটনাস্থলের পাশের বাড়ির ঝরনা রাণী ভৌমিক নামে এক গৃহবধূ নিহত হন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি পিস্তলসহ জঙ্গি শরীফুল ইসলাম ও জাহিদুল হক তামিমকে আটক করে। ঘটনার তিনদিন পর পাকুন্দিয়ার থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ সামসুদ্দিন বাদী হয়ে উল্লেখিত আটককৃত ২ জন ও কিছু অজ্ঞাত সন্ত্রাসীর বিরুদ্ধে কিশোরগঞ্জ মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।
 
ইত্তেফাক/বিএএফ
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩২
যোহর১১:৫২
আসর৪:১৪
মাগরিব৫:৫৮
এশা৭:১১
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৫:৫৩