সারাদেশ | The Daily Ittefaq

মাত্র ৬ বছরের চাকরিতে ৩ কোটি ২৫ লাখ টাকা আত্মসাৎ

মাত্র ৬ বছরের চাকরিতে ৩ কোটি ২৫ লাখ টাকা আত্মসাৎ
মেহেরপুর প্রতিনিধি২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং ১৬:৩৮ মিঃ
মাত্র ৬ বছরের চাকরিতে ৩ কোটি ২৫ লাখ টাকা আত্মসাৎ
৩ কোটি ২৫ লাখ টাকা আত্মসাৎ করায় মেহেরপুর অগ্রণী ব্যাংকের ক্যাশিয়ার মাহমুদুল করিম শিমুলকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সেমাবার রাতে মাহমুদুল করিমসহ ৫ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন ব্যাংকের ব্যবস্থাপক মেহেদী মাসুদ। মামলার পরই পুলিশ প্রধান আসামি মাহমুদুল করিমকে ব্যাংক থেকে গ্রেপ্তার করে। তবে মামলার বাকি চার আসামি পলাতক রয়েছে।
 
মাহমুদল করিম মেহেরপুর সদর উপজেলার চাঁদববিল গ্রামের মৃত আবুল কাশেমের ছেলে। বাকি চার আসামিরা হলেন, মাহমুদুল করিমের স্ত্রী জেসমিন করিম, ভাই সামিউল করিম, বোন নুরুন নাহার, আত্মীয় বাসার আলী। 
 
আত্মসাতের টাকায় মাহমুদুল করিম কুষ্টিয়া, মেহেরপুরসহ বিভিন্ন স্থানে ভবন ও জমি কিনেছেন এবং পাথরের ব্যবসায় বিনিয়োগ করে অংশীদার হয়েছেন বলে স্বীকার করেছেন। 
এ ঘটনার পর ব্যাংকের বিভাগীয় কার্যালয় থেকে আইটি এক্সপার্টরা মেহেরপুর শাখায় পৌছেছেন। তারা বিভিন্ন টেকনিক্যাল বিষয়গুলো পর্যালোচনা করে দেখছেন। 
 
ব্যাংকের আইটি এক্সপার্টরা বলছেন, অত্যন্ত টেকনিক্যালি এই টাকা আত্মসাত করেছে মাহমুদুল করিম। যা কোন সাধারণ ব্যাংকারের পক্ষে সম্ভব নয়। তারা ধারণা করছেন, আরো বড় অংকের টাকা আত্মসাতের ঘটনা বেরিয়ে আসতে পারে।
 
অগ্রণী ব্যাংক মেহেরপুর শাখার ব্যবস্থাপক মেহেদী মাসুদ বলেন, ২০১২ সালের ২২ এপ্রিল মাহমুদুল করীম মেহেরপুর শাখার ক্যাশিয়ার হিসেবে যোগদান করেন। তিনি ২০১৭ সালের ১৫ মে বদলি হয়ে বামন্দি শাখায় যোগদান করেন। মেহেরপুর শাখায় কর্মরত অবস্থায় ২০১৫, ২০১৬ ও ২০১৭ সালে ব্যাংকের ইন্টারনাল একাউন্ট থেকে অভিনব কায়দায় ডেবিট করে তার স্ত্রী জেসমিন করিম, ভাই সামিউল করিম, বোন নুরুন নাহার, আত্মিয় বাসার আলীর হিসেবে (অ্যাকাউন্টে) ওই টাকা স্থানান্তর করেছেন। 
 
মেহেদী মাসুদ বলেন, গত সপ্তাহে প্রধান কার্যালয় থেকে আড়াই কোটি টাকার একটি ট্রান্সজেকশনের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না বলে তাকে বিষয়টি জানানো হয়। বিষয়টি তিনি জানার পর থেকে ব্যাংকের লেনদেন তদন্ত করে ক্যাশিয়ার মাহমুদুল করিম বামন্দি থেকে নিয়ে এসে জিজ্ঞাসাবাদ করলে বিষয়টি বের হয়ে আসে। বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর মেহেদী মাসুদ বাদী হয়ে সোমবার রাতে মেহেরপুর সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার তরে।  
 
ব্যাংকের ব্যবস্থাপক মেহেদী মাসুদ আরো বলেন, ক্যাশিয়ার মাহমুদুল করিম আত্মসাতের টাকায় কুষ্টিয়া শহরে এক কোটি ২০ লাখ টাকা ব্যায় করে ৫তলা বিশিষ্ট একটি ভবন নির্মান করেছেন। যার বিপরীতে ব্যাংক থেকে তিনি স্টাফ লোন নিয়েছেন ৬৬ লাখ টাকা। মেহেরপুর বড়বাজারে ৬০ লাখ টাকা দিয়ে ২ তলা বিশিষ্ট একটি ভবন কিনেছেন। চাঁদবিল নিজ গ্রামে ১ কোটি টাকা খরচ করে ৫বিঘা জমি কিনেছেন। স্ত্রী বড় ভাইয়ের সাথে ১ কোটি টাকা বিনিয়োগ করে পাথরের ব্যবসায় অংশিদার হয়েছেন বলে স্বীকার করেছেন।  
 
ঘটনার সুষ্ট তদন্তে ইতিমধ্যে মঙ্গলবার সকালে খুলনা বিভাগীয় কার্যালয় থেকে জিএম সিরাজুল ইসলাম ও শেখ আব্দুল হালিম নামের দুই জন আইটি এক্সপার্ট মেহেরপুর শাখায় পৌছেছেন। আজ বুধবার প্রধান কার্যালয় থেকে আরো তিনজন আইটি এক্সপার্ট মেহেরপুর শাখায় তদন্ত করতে আসছেন বলে জানিয়েছেন ব্যবস্থাপক মেহেদী মাসুদ।
 
মেহেরপুর সদর থানার প্রধান কর্মকর্তা (ওসি) রবিউল ইসলাম জানান, সোমবার রাতে অগ্রণী ব্যাংক মেহেরপুর শাখার ব্যবস্থাপক মেহেদী মাসুদ তিন কোটি ২৫ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে ৪০৯/৪১৮/৩৪ ধারায় মেহেরপুর সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। যার নম্বর ৩১, তারিখ-২৪-০৯-১৮ ইং। মামলার প্রধান আসামি ক্যাশিয়ার মাহমুদুল করিমকে গ্রেপ্তার করে জিজ্ঞাসাবাদে অনেক তথ্য বের হয়ে এসেছে। মামলার বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।
 
ইত্তেফাক/নূহু
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২৩ অক্টোবর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৪৩
যোহর১১:৪৩
আসর৩:৪৯
মাগরিব৫:২৯
এশা৬:৪২
সূর্যোদয় - ৫:৫৯সূর্যাস্ত - ০৫:২৪