সারাদেশ | The Daily Ittefaq

খুলনায় শ্বশুরবাড়িতে জামাইয়ের রহস্যজনক মৃত্যু

খুলনায় শ্বশুরবাড়িতে জামাইয়ের রহস্যজনক মৃত্যু
খুলনা অফিস ও ডুমুরিয়া সংবাদদাতা১২ অক্টোবর, ২০১৮ ইং ১৬:৫২ মিঃ
খুলনায় শ্বশুরবাড়িতে জামাইয়ের রহস্যজনক মৃত্যু
ছবিঃ গুগল ম্যাপ থেকে।
খুলনায় শ্বশুরবাড়িতে মো. রসুল বরকন্দাজ (২২) নামে এক যুবকের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার সকালে পুলিশ শ্বশুরবাড়ি থেকে তার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে নিহতের স্ত্রী ও শাশুড়িকে আটক করা হয়েছে।
 
এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ডুমুরিয়া উপজেলার নোয়াকাঠি গ্রামের হালিম বরকন্দাজের ছেলে রসুল বরকন্দাজের সঙ্গে এক বছর আগে একই উপজেলার গোনালী গ্রামের আমজাদ শেখের মেয়ে ইয়াসমিন বেগমের (১৯) বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে তাদের মধ্যে সাংসারিক অশান্তি দেখা দেয়। এরপর থেকে স্ত্রী ইয়াসমিন তার বাপের বাড়িতে থাকে। গত ৫ অক্টোবর রসুল তার স্ত্রীকে আনার জন্য শ্বশুরবাড়িতে যায়। গত বৃহস্পতিবার গভীর রাতে শ্বশুরবাড়ির লোকজন বাড়ির পাশে তার ঝুলন্ত লাশ দেখতে পায়। খবর পেয়ে শুক্রবার সকালে পুলিশ তার  ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে। 
 
নিহতের বাবা হালিম জানান, গত ৫ অক্টোবর আমার বেয়াই ফোন করে তার মেয়েকে নিয়ে আসার জন্য ছেলেকে যেতে বলে। কথা অনুযায়ী রসুল তার শ্বশুরবাড়ি যায়। হঠাৎ বৃহস্পতিবার গভীর রাতে ফোন করে আমাদের জানানো হয় সে গলায় ফাঁস দিয়ে মারা গেছে। আমরা গিয়ে দেখি রসুলের গলায় ওড়না ও গামছা পেঁচানো অবস্থায় ঝুলানো এবং তার পা মাটির সঙ্গে লাগানো আর সারা শরীরে ধূলাবালি মাখা। আমি নিশ্চিত ওরা আমার ছেলেকে পিটিয়ে হত্যার পর গলায় ফাঁস দিয়ে ঝুলিয়ে রেখেছে। 
 
নিহত রসুলের শ্বাশুড়ি সুফিয়া বেগম বলেন, বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে রাতের খাবার খেয়ে রসুলবাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। গভীর রাত পর্যন্ত জামাই বাড়িতে ফিরে না আসায় তারা খোঁজাখুঁজি করতে থাকে। রাত প্রায় ৩টার দিকে বাড়ির একটি পরিত্যক্ত টিনশেডের ঘরের আড়ার সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে হাঁটু ভাঙ্গা অবস্থায় তাকে দেখতে পাই।
 
ডুমুরিয়া থানার এস আই অনিষ মণ্ডল জানান, লাশটি যেভাবে ঝুলে ছিল তাতে মনে হয় না সে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। এছাড়া ব্লেড দিয়ে তার হাতের কব্জি ও পায়ের গোড়ালির ওপরে কাটা চিহ্ন দেখা গেছে। সুরতহাল রিপোর্ট শেষে ময়না তদন্তের জন্য লাশ খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। 
 
এ ঘটনায় নিহত গোলম রসুলের মা আকলিমা বেগম বাদী হয়ে পুত্রবধূ ইয়াসমিন বেগম, বেয়াই আমজাদ শেখ, ও বিয়াইন সুফিয়া বেগমের নাম উল্লেখ করে ডুমুরিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ নিহতের স্ত্রী ইয়াসমিন ও শাশুড়ি সুফিয়া বেগমকে আটক করেছে।
 
ইত্তেফাক/নূহু
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২৩ অক্টোবর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৪৩
যোহর১১:৪৩
আসর৩:৪৯
মাগরিব৫:২৯
এশা৬:৪২
সূর্যোদয় - ৫:৫৯সূর্যাস্ত - ০৫:২৪