বিশ্ব সংবাদ | The Daily Ittefaq

পর্নোতারকার মুখ বন্ধে এক লাখ ডলার দিয়েছিলেন ট্রাম্প!

পর্নোতারকার মুখ বন্ধে এক লাখ ডলার দিয়েছিলেন ট্রাম্প!
ইত্তেফাক ডেস্ক১৪ জানুয়ারী, ২০১৮ ইং ০১:০৮ মিঃ
পর্নোতারকার মুখ বন্ধে এক লাখ ডলার দিয়েছিলেন ট্রাম্প!

এক পর্ণতারকার সঙ্গে লুকানো যৌন সম্পর্ক প্রকাশ্যে আনতে চাননি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তাইতো তিনি তা গোপন রাখতে ওই পর্ণতারকাকে লক্ষাধিক ডলার দিয়ে চুক্তি করেছিলেন। তবে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এবং ওই পর্ণতারকা সেই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। খবর সিএনএনের

২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে পর্ণতারকা স্টেফানি ক্লিফোর্ডের সঙ্গে এক লাখ ত্রিশ হাজার ডলারে চুক্তি হয় ওই সময়ের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী ট্রাম্পের। শুক্রবার মার্কিন সংবাদ মাধ্যম ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে। তবে এর সত্যতা যাচাই করা যায়নি।

ওয়াল স্ট্রিটের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, ২০০৬ সালে একটি গল্?ফ টুর্নামেন্টে আলাপ হয়েছিল ট্রাম্প ও স্টেফানির। তখন ট্রাম্পের বয়স ৭১ বছর এবং স্টেফানির ৩৮। সেখানেই নাকি ঘনিষ্ঠ মুহূর্ত কাটিয়েছিলেন তারা। স্টেফানি নীল ছবির জগতে ‘স্টর্মি ড্যানিয়েলস’ নামে বিখ্যাত। সবকিছু ঠিকঠাকই চলছিল। ট্রাম্প-স্টেফানির সম্পর্ক নিয়ে কারো কোনো মাথাব্যথা ছিল না। কেউ কিছু জানতেনও না। কিন্তু প্রেসিডেন্ট প্রার্থীর দৌঁড়ে ট্রাম্পের নাম ঘোষণার পর থেকেই তার ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে আলোচনা শুরু হয় দুনিয়াজুড়ে। স্টেফানি ছাড়াও বহু নারীর সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠ এবং যৌন সম্পর্কের কথাও প্রকাশ্যে আসতে শুরু করে। সেই সময়ে সংবাদমাধ্যমে এ নিয়ে কথা বলতে শোনা যায় ওই পর্নতারকাকে। তারপর ২০১৬ সালের অক্টোবরে স্টেফানিকে মুখ বন্ধ রাখার জন্য এক লাখ ত্রিশ হাজার ডলার দেন ট্রাম্প। ট্রাম্প অবশ্য সরাসরি এ বিষয়ে স্টেফানির সঙ্গে কথা বলেননি। ট্রাম্পের ব্যক্তিগত আইনজীবী মাইকেল কোহেনের সঙ্গে কথা হয় স্টেফানির আইনজীবী কেইথ ডেভিডসনের। লস অ্যাঞ্জেলেসের সিটি ন্যাশনাল ব্যাংকের অ্যাকাউন্টে ওই টাকা জমা হয়। এমনটাই দাবি করা হয়েছে ওয়াল স্ট্রিটের প্রতিবেদনে।

গোটা ঘটনার কথা অস্বীকার করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। স্টেফানির মুখ বন্ধ রাখার অভিযোগ যে সম্পূর্ণ মিথ্যা তা প্রমাণ করতে ওই পর্ণতারকার সই করা একটি নথিও ওয়াল স্ট্রিটের দপ্তরে পাঠিয়েছেন ট্রাম্পের আইনজীবী কোহেন। কোহেনের দাবি, স্টেফানির সই করা ওই নথি থেকেই স্পষ্ট ‘মুখ বন্ধ’ রাখার জন্য তিনি ট্রাম্পের কাছে থেকে কোনো টাকা নেননি।

ওয়াল স্ট্রিট জার্নালে এই খবর প্রকাশিত হওয়ার পর শুক্রবার হোয়াইট হাউস থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়, এই কথাগুলো পুরানো। এর আগেও এভাবে সংবাদমাধ্যমে তা প্রকাশিত হয়েছে। বছর দুয়েক আগে নির্বাচনের সময়েই ট্রাম্প এ কথাগুলো অস্বীকার করেছেন বলেও জানানো হয় ওই বিবৃতিতে। পাশাপাশি কোহেন অভিযোগ করেন, ওই জার্নালটি (ওয়াল স্ট্রিট) গত এক বছর ধরে ভুয়া খবর ছাপছে। স্টেফানিও এক বিবৃতিতে বলেছেন, ট্রাম্পের সঙ্গে আলাপ হয়েছিল ঠিকই, কিন্তু তার সঙ্গে আমার শারীরিক সম্পর্ক হইনি। আমি কোনো টাকাও নিইনি। ট্রাম্প অত্যন্ত সজ্জন ব্যক্তি।

ইত্তেফাক/নূহু

এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
১৯ এপ্রিল, ২০১৮ ইং
ফজর৪:১৫
যোহর১১:৫৮
আসর৪:৩১
মাগরিব৬:২৪
এশা৭:৪০
সূর্যোদয় - ৫:৩৩সূর্যাস্ত - ০৬:১৯