বিশ্ব সংবাদ | The Daily Ittefaq

বিরোধীদের কাছে নত হবেন না নিকারাগুয়ার প্রেসিডেন্ট

বিরোধীদের কাছে নত হবেন না নিকারাগুয়ার প্রেসিডেন্ট
বিবিসি২৫ জুলাই, ২০১৮ ইং ০৩:৩৬ মিঃ
বিরোধীদের কাছে নত হবেন না নিকারাগুয়ার প্রেসিডেন্ট
সরকার বিরোধীদের পদত্যাগের দাবি প্রত্যাখ্যান করেছেন নিকারাগুয়ার প্রেসিডেন্ট ড্যানিয়েল ওর্তেগা। তিনি বলেছেন, সরকার বিরোধীদের কাছে নত হবেন না।
 
যুক্তরাষ্ট্রের ফক্স নিউজকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে ওর্তেগা বলেছেন, গত তিন মাসে সহিংসতার ঘটনায় প্রায় তিন’শ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। আধাসামরিক বাহিনী এ সহিংসতা প্রতিহতের চেষ্টা করেছে। সরকার বিরোধীরা পুলিশের ওপর হামলা করেছে। তবে তিনি এসব পক্ষকে সরকারের পক্ষ থেকে অর্থায়নের কথা অস্বীকার করেছেন। বরং এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এ সহিংসতার পেছনে বিরোধী দলের সংসদ সদস্যরা এবং মাদক ব্যবসায়ীরা অর্থায়ন করছে। যদিও এ অভিযোগের বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। অবশ্য মানবাধিকার সংস্থাগুলো বলেছে, রাষ্ট্রের অনুগত সশস্ত্র বাহিনী এ সহিংসতার জন্য দায়ী।
 
ওই সাক্ষাত্কারে ওর্তেগা আরো বলেছেন, ২০২১ সালের নির্বাচনের আগ পর্যন্ত তিনি ক্ষমতায় থাকবেন। এ বিষয়ে তিনি বলেন, নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ ও অস্থিতিশীল করতে এ অবস্থার সৃষ্টি করা হয়েছে। এ সময় তিনি কোনো নির্বাচনের সময় ঘোষণা না দিয়ে সরকার বিরোধীদের সঙ্গে আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছেন। ওর্তেগা বলেন, এক সপ্তাহ ধরে সহিংসতা বন্ধ রয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে উঠেছে। তবে সরকারের পক্ষ ও বিপক্ষে কিছু বিক্ষোভ হয়েছে।
 
এদিকে সোমবার দেশটির রাজধানীতে মানাগুয়াতে সরকার সমর্থকের মিছিল ও বিরোধীদের বিক্ষোভ করতে দেখা গেছে। প্রায় এক হাজার শিক্ষার্থী দেশটির পতাকা হাতে সরকারি দল সানদিনিসটা পার্টির সমর্থনে স্লোগান দেয়। এ সময় তারা বলেন, সরকার বিরোধী গোষ্ঠীরা হলো ‘সন্ত্রাসী’। এর প্রতিবাদে সরকার বিরোধী প্রায় এক হাজার শিক্ষার্থী মানাগুয়া ছাড়াও অন্যান্য শহরে খাতা-কলম হাতে নিয়ে স্লোগান দেয়, ‘আমরা সন্ত্রাসী নই, আমরা ছাত্র’।
 
অপরদিকে বিভিন্ন সূত্র থেকে পাওয়া খবরে জানা যায়, গত কয়েকদিনে সহিংসতায় কোনো নিহতের ঘটনা ঘটেনি। এছাড়া কম সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। তবে সহিংসতা বন্ধের বিষয়টি স্পষ্ট হওয়া যায়নি। এদিকে স্থানীয় কয়েকটি গণমাধ্যমের প্রকাশিত খবর সূত্রে জানা যায়, সরকার বিরোধী কয়েকজন নেতাকে ‘অপহরণ’ করেছে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা। এছাড়া ১৮ এপ্রিল থেকে শুরু হওয়া এ আন্দোলনে আধা-সামরিক বাহিনীর হামলার নিন্দা জানিয়েছে সরকার বিরোধী সমর্থকরা।
 
নিকারাগুয়ায় চলমান এ ঘটনা প্রসঙ্গে গত ১৬ জুলাই জাতিসংঘের মানবাধিকার কার্যালয়ের মুখপাত্র রূপার্ট কলভিল বলেছেন, মানবাধিকার লঙ্ঘনের প্রবণতা হচ্ছে অতিরিক্ত বিচারিক হত্যাকাণ্ড, নির্যাতন এবং জনগণের মত প্রকাশের স্বাধীনতাকে অস্বীকার করা। তবে ওর্তেগা দেশের বর্তমান দুরবস্থার জন্য বিরোধী দলকে দোষারোপ করেছেন।
 
উল্লেখ্য, দুর্নীতি, সাধারণ মানুষকে ধরপাকড় এবং মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনায় সোচ্চার হয়ে দেশটির প্রেসিডেন্ট ড্যানিয়েল ওর্তেগার পদত্যাগের দাবিতে নিকারাগুয়া জুড়ে সরকার বিরোধীরা বিক্ষোভ করছে। মানবাধিকার সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, এ সহিংসতার ঘটনায় ৩০৫ জন মানুষের মৃত্যু এবং এক হাজার আট’শ মানুষ আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩৩
যোহর১১:৫২
আসর৪:১৩
মাগরিব৫:৫৭
এশা৭:১০
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৫:৫২