বিশ্ব সংবাদ | The Daily Ittefaq

রসু খাঁর চেয়ে ভয়ঙ্কর সিরিয়াল কিলারের সন্ধান

রসু খাঁর চেয়ে ভয়ঙ্কর সিরিয়াল কিলারের সন্ধান
অনলাইন ডেস্ক১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং ১৮:০৫ মিঃ
রসু খাঁর চেয়ে ভয়ঙ্কর সিরিয়াল কিলারের সন্ধান
পুলিশের হাতে আটক হওয়া দর্জি আদেশ খামরা এবং তার চক্রের সদস্যরা
চাঁদপুর জেলার সিরিয়াল কিলার ছিল রসু খাঁ। প্রেমে প্রতারিত হয়ে শপথ নিয়েছিল খুন করবে ১০১ জন নারীকে। এরপর বাকি জীবন কাটিয়ে দেবে সুফি হিসেবে! কিন্তু এই খুনির সেই ইচ্ছে আর পূরণ হয়নি। মসজিদ থেকে ফ্যান চুরি করতে গিয়ে ধরা পরে যায় সে।  ২০০৯ সালের ৭ অক্টোবর ধরা পরার আগে তার সর্বশেষ শিকার ছিল এগারোতম।
 
এবার এই খুনির চেয়ে আরো দুর্ধর্ষ এক সিরিয়াল কিলার ধরা পরল পুলিশের জালে। যে কিনা ৩৩টি খুনের কথা স্বীকার করে। তবে এই সিরিয়াল কিলারকে দেখলে বুঝা যাবে না সে এত বড় দুর্ধর্ষ। কারণ দিনে এলাকায় দর্জির কাজ করে সে। আর রাত এলে হয়ে উঠে ভয়ঙ্কর খুনি। 
 
এই ব্যক্তির নাম আদেশ খামরা। বয়স ৪৮ বছর। থাকে ভারতের মধ্যপ্রদেশের রাজধানী ভোপাল লাগোয়া শিল্পাঞ্চল মান্ডিদীপ এলাকায়। এখানে তার একটা পোশাক তৈরির দোকান আছে। সকলেই তাকে চেনে ভাল দর্জি হিসাবে। তবে রাত হলেই দর্জির পোশাক ছেড়ে বেরিয়ে আসে তার অন্য এক চেহারা।
 
বিবিসির খবরে বলা হয়, আদেশ খামরার টার্গেট ছিল ট্রাক চালকরা। তাদের খুন করে ট্রাক চুরি করত। আর সেই খুনের পদ্ধতি ছিল অদ্ভুত। আদেশ খামরা তার সঙ্গীদের নিয়ে হাইওয়ের ধারে বিশ্রাম নেওয়ার জন্য দাঁড় করানো ট্রাকগুলির চালকদের সঙ্গে আলাপ জুড়ে দিত। তারপর চলত মদ্যপানের আসর। আর এসময় সবার চোখের আড়ালে মদে মিশিয়ে দেওয়া হতো অচেতন করার ওষুধ। ট্রাকচালক আর তার খালাসীরা অচেতন হয়ে পড়লে তাদের হত্যা করে কোনও নির্জন জায়গায় লাশ ফেলে দিত আদেশ আর তার বন্ধুরা। তবে এই খুন নিজ হাতে করত আদেশ। গলায় রশি পেঁচিয়ে হত্যা করা হতো। মাঝে মধ্যে বিষপ্রয়োগ করেও হত্যা করতো।  
 
আগস্টের ১৫ তারিখ পুলিশ একটি মৃতদেহ উদ্ধার করে। আবদুল্লাগঞ্জ এলাকার বাসিন্দা মাখন সিংয়ের মরদেহ ছিল সেটি। এই হত্যার তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে যে, ওই ট্রাক চালক মান্ডিদীপ থেকে লোহা নিয়ে যাত্রা শুরু করেছিলেন। দেহ উদ্ধারের পরে ট্রাকটিকেও খুঁজে পাওয়া যায় হাইওয়ের ধারে। এরপর এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাকে জেরা করতেই সে কয়েকজনের নাম বলে। তারপরেই একে একে নয়জন ধরা পড়ে। আর এভাবেই বেড়িয়ে আসে সিরিয়াল কিলার আদেশ খামরার তথ্য। 
 
ভোপালের পুলিশ ডেপুটি ইন্সপেক্টর জেনারেল ধর্মেন্দ্র চৌধুরী বলেন, ৪৮ বছর বয়সী খামরা খুব সহজেই মানুষের সঙ্গে বন্ধুত্ব স্থাপন করতে পারে। সে এটাকে ব্যবহার করে ট্রাক চালকদের বন্ধু বানাতো এবং ফাঁদে ফেলতো।
 
তিনি আরো বলেন, এখনও পর্যন্ত ৩৩টি খুনের কথা স্বীকার করেছে আদেশ খামরা। প্রায় সব হত্যাকাণ্ড কনফার্ম করা গেছে। তবে শুধু মধ্যপ্রদেশ নয় - আশপাশের ৫-৬টি রাজ্যেও আদেশ আর তার সঙ্গীরা খুন করেছে। 
 
ভোপালের পুলিশ ডেপুটি ইন্সপেক্টর জানান, তাদের জেরা করতে গিয়ে কখনই মনে হয়নি অন্য সিরিয়াল কিলারদের মতো মানসিকভাবে অসুস্থ এরা। নিজেরাই এক এক করে তাদের হত্যাকাণ্ডগুলোর কথা স্বীকার করছে। খবর: বিবিসি
 
ইত্তেফাক/জেডএইচ
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩৩
যোহর১১:৫২
আসর৪:১৩
মাগরিব৫:৫৭
এশা৭:১০
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৫:৫২