বিশ্বকাপ ফুটবল | The Daily Ittefaq

নেইমারের মতো এত ফাউলের শিকার হননি গত ৫ বিশ্বকাপে কেউ

নেইমারের মতো এত ফাউলের শিকার হননি গত ৫ বিশ্বকাপে কেউ
উদ্বেগই ছিল ব্রাজিলের মূল সমস্যা :কোচ
ইত্তেফাক ডেস্ক১৯ জুন, ২০১৮ ইং ০৮:৫৪ মিঃ
নেইমারের মতো এত ফাউলের শিকার হননি গত ৫ বিশ্বকাপে কেউ
 
বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ব্রাজিলের তারকা ফুটবলার নেইমার ১০ বার ফাউলের শিকার হয়েছেন। তবে ফাউলের বিষয়টি রেফারিদের হাতেই ছেড়ে দিচ্ছেন ২৬ বছর বয়সী এই ফরোয়ার্ড। নেইমারের কথায়, ফাউল করা নিয়ে আমার কিছুই বলার নেই। আমার কেবল ফুটবল খেলতে হয় বা খেলতে চেষ্টা করতে হয়। এটা দেখার জন্য রেফারি আছেন। হয়তো এটা স্বাভাবিক। আমাদের এতে মনোযোগ দিতেই হবে, কিন্তু এটা ফুটবলে স্বাভাবিক। আমি এ নিয়ে চিন্তিত নই। ম্যাচে তিন জন রেফারি থাকেন। তারাই তাদের কাজ করবেন। আর যদি তারা সেটা ঠিকমতো না করেন, সেটা তাদের সমস্যা।
 
১৯৯৮ সালে ফ্রান্স বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের অ্যালান শিয়েরারও একইভাবে দশবার ফাউলের শিকার হয়েছিলেন। ঐ ঘটনার পর এখন পর্যন্ত কোন খেলোয়াড় এতোবার ফাউলের শিকার হননি। কিন্তু এতোবার ফাউলের শিকার হওয়ার পরও এই নিয়ে কোন ক্ষোভ নেই নেইমারের। ২০১৪ সালে ব্রাজিল বিশ্বকাপেও ফাউলের শিকার হয়ে বিশ্বকাপ ছাড়তে হয়েছিল নেইমারকে। কোয়ার্টার ফাইনালে কলম্বিয়ার বিপক্ষে ২-১ ম্যাচে দল জিতলেও জুয়ান জুনিঙ্গা বাজেভাবে চ্যালেঞ্জ করলে ইনজুরি নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছিল নেইমারকে।
 
দীর্ঘ অপেক্ষার পর দলে ফিরেই সেরাটা দেয়ার চেষ্টা করেছেন নেইমার। পায়ের পাতার হাড় ভেঙে প্রায় তিন মাস মাঠের বাইরে থাকার পর প্রথম কোনো প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচ খেলতে নামা নেইমারকে বেশ কয়েক বার খোঁড়াতে দেখা গেছে। তবে নিজের ফিটনেস নিয়ে শঙ্কা নেই বলে জানান নেইমার। নেইমারের ভাষায়, আমাকে আঘাত করা হয়েছিল এবং এটা ছিল বেদনাদায়ক। কিন্তু এতে চিন্তার কিছু নেই। শরীর ঠাণ্ডা হয়ে গেলে ব্যথা একটু বেশি লাগে। কিন্তু আমি ঠিক আছি।
 
ব্রাজিল দলের চিকিৎসক রদ্রিগো লাসমার বলেন, শুক্রবার কোস্টারিকার বিপক্ষে খেলার জন্য যথেষ্ট ফিট থাকবেন নেইমার। আগামী ম্যাচের জন্য শতভাগ ফিট থাকবে নেইমার। তার কোনো নির্দিষ্ট চিকিত্সার প্রয়োজন হবে না। আমরা চিন্তিত নই।
 
উদ্বেগই ছিল
নিজেদের প্রথম ম্যাচে সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে ড্র’ করেছে ব্রাজিল। কোচ তিতের দাবি, উদ্বেগই ছিল ব্রাজিলের মূল সমস্যা। দলে উদ্বেগ হানা দেওয়ায় প্রত্যাশিত খেলাটা খেলতে পারেনি তার শিষ্যরা। ম্যাচ শেষের সংবাদ সম্মেলনে তিতে দলের খেলা নিখুঁত না হওয়ার কারণ জানালেন।
 
তিতের ভাষায়, ‘আমরা গোলটা না করা পর্যন্ত অনেক চাপ ছিল। অনেক উদ্বেগ ছিল এবং এটা আমাদের খেলার মধ্যেও চলে এসেছিল। আমরা যথেষ্ট নির্ভুল ছিলাম না। আমরা কিছু ভালো এবং পরিষ্কার সুযোগ পেয়েছিলাম কিন্তু আমরা আরও বেশি নির্ভুল হতে পারতাম। বিশ্বকাপে প্রথম ম্যাচ খেলার ভাবনা থেকেই এই উদ্বেগ এসেছে। এমন পরিস্থিতিতে কোচও উদ্বিগ্ন হয়।’
 
১৯৭৮ আসরের পর এই প্রথম বিশ্বকাপে শুভসূচনা পেলো না ব্রাজিল। ম্যাচের ফলে তাই সন্তুষ্ট হতে পারেননি কোচ। নেইমার-জেসুসরা পরিস্থিতি অনুযায়ী খেলতে পারেননি বলেও মনে করেন তিনি। তিতে বলেন, আমি জয় প্রত্যাশা করেছিলাম। তাই অবশ্যই এই ফলে খুশি নই।-দ্যা সান।
 
ইত্তেফাক/মোস্তাফিজ
এই পাতার আরো খবর -
সর্বশেষ
সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং
ফজর৪:৩২
যোহর১১:৫১
আসর৪:১২
মাগরিব৫:৫৬
এশা৭:০৯
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৫:৫১