শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

দক্ষিণাঞ্চলকে পিছিয়ে রাখতে বিএনপি পদ্মা সেতুর কাজ বন্ধ করে দেয়: চিফ হুইপ

আপডেট : ০২ জুলাই ২০২২, ২২:০৫

জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ ও মাদারীপুর-১ (শিবচর) আসনের ৬ বারের সফল সংসদ সদস্য নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটন বলেছেন, ‘দক্ষিণাঞ্চলকে পিছিয়ে রাখতে বিএনপি পদ্মা সেতুর কাজ বন্ধ করে দিয়েছিল। এছাড়া নানামুখী ষড়যন্ত্র করে পদ্মা সেতু বন্ধ করতে চেষ্টা করেছিল। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর অসীম সাহসিকতার জন্য তা পারেনি। পদ্মা সেতু হলো দক্ষিণাঞ্চলের অর্থনৈতিক মুক্তির সেতু।’

শনিবার (২ জুলাই) দুপুরে মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরী অডিটোরিয়াম ভবনে মাদারীপুর জেলা পরিষদের আয়োজনে অসহায়দের মধ্যে সেলাই মেশিন বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব বলেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান বলেন, ‘এখানে বঙ্গবন্ধু নভোথিয়েটার করার জন্য আমরা চেষ্টা করছি। তার সঙ্গে ইঞ্জিনিয়ারিং রিসার্চ ইনস্টিটিউট নির্মাণের জন্য আমরা জায়গা খুজছিলাম। আমরা এখানে যে জায়গাটা দেখলাম, এরজন্য এটা যথেষ্ট ভালো। এখানে এ দুটো প্রজেক্টের ব্যাপারে আশবাদী হতে পারেন। চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিবেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী। আশাকরি উনি নিরাশ করবেন না।’

চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটনের সঙ্গে অন্যান্যরা। ছবি: ইত্তেফাক

এ সময় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ও নভোথিয়েটারের মহাপরিচালক আ. রাজ্জাক, জেলা পরিষদ প্রশাসক মুনির চৌধুরী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম অ্যান্ড অপ্স) চাইলাউ মারমা, উপজেলা চেয়ারম্যান আ. লতিফ মোল্লা, পৌর মেয়র আওলাদ হোসেন খান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. তোফাজ্জল হোসেন খান তোতা ও ওসি মো. মিরাজ হোসেনসহ আরও অনেকেই উপস্থিত ছিলেন। 

এর আগে সকালে চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী ও বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান পদ্মা সেতুর পাড়ে শিবচরে বঙ্গবন্ধু নভোথিয়েটার ও ইঞ্জিনিয়ারিং রিসার্চ ইনস্টিটিউট নির্মাণের জন্য জায়গা পরিদর্শন করেন। শিবচরের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ ঘুরে ঘুরে দেখেন।

এছাড়া চিফ হুইপ ও বিজ্ঞান প্রযুক্তি মন্ত্রী শেখ ফজিলাতুন্নেছা সরকারি পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ রেজাউল করিম তালুকদার টেকনিকাল স্কুল অ্যান্ড কলেজে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় যোগ দেন।

ইত্তেফাক/এএএম