ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯, ১৩ আষাঢ় ১৪২৬
৩০ °সে


বর্ণাঢ্য আয়োজনে সিঙ্গাপুরে স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত

বর্ণাঢ্য আয়োজনে সিঙ্গাপুরে স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত
বর্ণাঢ্য আয়োজনে সিঙ্গাপুরে স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত।

সিঙ্গাপুরে অবস্থিত বাংলাদেশ হাই কমিশনের উদ্যোগে যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের ৪৮তম স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত হয়েছে। মঙ্গলবার (২৬ মার্চ) সকালে দূতাবাস প্রাঙ্গণে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন এর মধ্য দিয়ে দিনব্যাপী কর্মসূচীর সূচনা করেন সিঙ্গাপুরে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাই কমিশনার মো. মোস্তাফিজুর রহমান।

অনুষ্ঠানের শুরুতে মহান স্বাধীনতা সংগ্রামে নিহত শহীদদের আত্মার মাগফেরাত ও জাতির সুখ, শান্তি, কল্যাণ কামনায় বিশেষ মোনাজাত করা হয়। পরে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে দিবসটি উপলক্ষ্যে মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্র মন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কর্তৃক প্রেরিত বাণী পড়ে শোনোনো হয়। হাই কমিশনার তার সংক্ষিপ্ত বক্তৃতায় মহান মুক্তিযুদ্ধে জীবন উৎসর্গকারী বীর শহীদদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা এবং হানাদার বাহিনীর হাতে নির্যাতিত মা-বোনদের আত্মত্যাগ এবং অবদান কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করেন। তিনি স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর অসামান্য অবদান সশ্রদ্ধচিত্তে স্মরণ করেন। প্রবাসী বাংলাদেশীদেরকে দেশপ্রেম ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে দেশগড়া ও দেশের উন্নয়নে নিজ নিজ অবস্থান থেকে অবদান রাখার আহ্বান জানান তিনি। বাংলাদেশ সময়ের সঙ্গে স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় সমবেত কন্ঠে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন অনুষ্ঠানকে একটি ভিন্ন মাত্রা প্রদান করে।

সন্ধ্যায় হাই কমিশনের উদ্যোগে বাংলাদেশের ৪৮তম স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে একটি সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়। সিঙ্গাপুরের অন্যতম অভিজাত হোটেল মেরিনা মান্দারিনের বলরুমে আয়োজিত এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সিঙ্গাপুর ও বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রী পরিষদের সদস্যগণ, সিঙ্গাপুরস্থ বিভিন্ন মিশনের রাষ্ট্রদূত ও কুটনীতিক, উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা, ব্যবসায়ী, সাংবাদিক ও সিঙ্গাপুর প্রবাসী বাংলাদেশীরা আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে সিঙ্গাপুর সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এবং পরিবেশ ও পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী ড. এমি খোর ছাড়াও স্বাগতিক সরকারের প্রতিনিধি হিসেবে দুইজন সংসদ সদস্য উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিঙ্গাপুর সফররত সংসদ সদস্য আবদুল মতিন খসরু, সংসদ সদস্য ডা. আ ফ ম রুহুল হক, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান সহ উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাগণ।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্যে সিঙ্গাপুরে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাই কমিশনার মো. মোস্তাফিজুর রহমান বাংলাদেশ-সিঙ্গাপুর সম্পর্কের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে আগামী দিনে দুইদেশের সম্পর্ক আরও শক্তিশালী করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। তিনি সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন, নারীর ক্ষমতায়ন, দারিদ্র্য বিমোচন, বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশের অবদান ও অর্জন তুলে ধরেন। বর্তমান উন্নয়নশীল দেশের অবস্থান হতে ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশে উন্নীত হওয়ার লক্ষ্যে তিনি সরকারের পরিকল্পনা তুলে ধরেন। পাশাপাশি বাংলাদেশের বিনিয়োগ বান্ধব পরিবেশ এবং সরকারী বিনিয়োগ সহায়ক নীতি বর্ণনাপূর্বক সিঙ্গাপুরের ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগ ও বিনিয়োগকারী কয়েকটি বৃহৎ শিল্প-বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানের নাম উল্লেখ করে অন্যান্য প্রতিষ্ঠানকেও বাংলাদেশ সরকার প্রদত্ত বিশেষ সুযোগ গ্রহণের আহ্বান জানান।

আরও পড়ুন: তারেক দণ্ডিত আসামি তাই ফেরত আনা হবে: আইনমন্ত্রী

প্রধান অতিথি সিঙ্গাপুরের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী তার বক্তব্যে বলেন, 'বাংলাদেশ ও সিঙ্গাপুরের মধ্যে অত্যন্ত উষ্ণ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক বিরাজমান। আগামী দিনে এ সম্পর্ককে আরও সুদৃঢ় ভিত্তির উপর প্রতিষ্ঠা করতে দু’দেশের সরকারই আন্তরিকভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে'। বাংলাদেশ হাই কমিশন, সিঙ্গাপুর বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে একটি ম্যাগাজিন প্রকাশ করে যা সর্বমহলে প্রশংসিত হয়।

ইত্তেফাক/জেডএইচডি

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
২৭ জুন, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন