ঢাকা মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২ আশ্বিন ১৪২৬
২৮ °সে


নিউইয়র্কে শুক্রবার থেকে বিভক্ত ফোবানা সম্মেলন

নিউইয়র্কে শুক্রবার থেকে বিভক্ত ফোবানা সম্মেলন
৩৩তম ফোবানা সম্মেলন। ছবি-ইত্তেফাক

নিউইয়র্কে শুক্রবার থেকে শুরু হচ্ছে তিন দিনের বিভক্ত ৩৩তম ফোবানা সম্মেলন। নিউইয়র্ক সিটির অদূরে লং আইল্যান্ডের নাসাউ কলোসিয়ামে অত্যন্ত ব্যয়বহুল যে ফোবানার আসর বসছে, এর আয়োজক বাংলাদেশি নাট্য সংগঠন ড্রামা সার্কল। ফোবানা নামে অন্য আসরটি বসছে সিটির লাগোর্ডিয়া ম্যারিয়ট হোটেলে। একই সময়ে দুটি ফোবানা সম্মেলন নিয়ে বিভক্ত হয়ে পড়েছে বাংলাদেশি কমিউনিটি।

নাসাউ কলোসিয়ামে ৩৩তম ফোবানা সম্মেলনের মূল প্রতিপাদ্য ‘আমাদের সন্তান, আমাদের গর্ব।’ আয়োজকরা জানান, ফোবানার ইতিহাসে এই প্রথম বড় একটি ভেন্যুতে ফোবানা সম্মেলন আয়োজন করা হয়েছে। নাসাউ কাউন্টির মেয়র লরা কারেন সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন।

সর্বশেষ এক মতবিনিময় সভায় ৩৩তম ফোবানার সদস্য সচিব ও ড্রামা সার্কলের সভাপতি আবীর আলমগীর আশা প্রকাশ করে বলেন, এবারের ফোবানা সম্মেলনে উত্তর আমেরিকার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ১০ হাজারের বেশী প্রবাসী বাংলাদেশি অংশ নেবেন। আর এমন একটি ঐতিহাসিক ফোবানা সম্মেলন উপহার দেওয়ার লক্ষ্য নিয়েই স্বাগতিক কমিটির বিশাল কর্মী বাহিনী কাজ করছে নিরলসভাবে। এবারের সম্মেলনে মিস ফোবানা ২০১৯ ও ফোবানা মিউজিক আইডল ২০১৯ নির্বাচনের জন্য বিশেষ আয়োজন রাখা হয়েছে। থাকছে উত্তর আমেরিকার হাইস্কুল গ্রাজুয়েটদের জন্য স্কলারশিপ, বিজনেস নেটওয়াকিং লাঞ্চ ইভেন্ট, ‘নারীর ক্ষমতায়ন; প্রেক্ষিত বাংলাদেশ শীর্ষক’ সেমিনার। এছাড়া উত্তর আমেরিকার প্রথিতযশা আবৃত্তিশিল্পীদের নিয়ে অনুষ্ঠান ‘কাব্য জলসা।’

এছাড়া ফোবানা সম্মেলনে থাকছে বিষয়ভিত্তিক বিভিন্ন সেমিনার, কবি সমাবেশ, মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশ, বুয়েট অ্যালামনাই রিইউনিয়ন, ইউনিভার্সিটি অ্যালামনাই রিইউনিয়ন, ইয়ুথ কনফারেন্স, প্রাক্তন লিও রিইউনিয়ন, মিউজিক আইডল এবং মিস ফোবানা প্রতিযোগিতা। এতে বিশিষ্টজনেরা অংশ নেবেন।

এদিকে ৩৩তম ফোবানা কনভেনশন নামে আরেকটি আসর বসছে নিউইয়র্ক সিটির লাগোর্ডিয়া ম্যারিয়ট হোটেলে। এর আয়োজক বাংলাদেশি আমেরিকান ফ্রেন্ডশিপ সোসাইটি ইন্ক। এই সংগঠনের দাবি, তাদের সম্মেলনের প্রস্তুতি শেষ পর্যায়ে।

কনভেনশন কমিটির আহ্বায়ক ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মো. শাহনেওয়াজ জানান, ‘৩৩তম ফোবানা কনভেনশন কমিটির কর্মকর্তারা দাবি করেন, উত্তর আমেরিকায় ফোবানা হচ্ছে বাংলাদেশি শিল্প, সংস্কৃতি, কৃষ্টি অনুশীলনের এক উর্বর ভ‚মি এবং গেটওয়ে। ৩০ আগস্ট তিন দেশের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনার মাধ্যমে ফোবানা কনভেনশনের উদ্বোধন হবে। উত্তর আমেরিকায় ফোবানা মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে। ম্যারিয়ট হোটেলের পুরো ক্যাম্পাসে ভেসে উঠবে লাল-সবুজের একটি ছোট্ট বাংলাদেশ। এত বড় ব্যয়বহুল কনভেনশন করার ক্ষেত্রে গণমাধ্যমের সাহায্য ও সহযোগিতা ঐতিহাসিক ভূমিকা পালন করবে।

মো. শাহনেওয়াজ বলেন, অনেক চড়াই উৎড়াই, বাধা-বিপত্তি, শঙ্কা ও ইতিহাসের সকল চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার মধ্য দিয়ে শেষ পর্যন্ত মেঘমুক্ত সুনীল আকাশের নিচে ৩৩তম ফোবানা সম্মেলন তার যৌক্তিক পরিণতি লাভ করতে যাচ্ছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি ও পাবলিক সার্ভিস কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক এসএমএ ফায়েজ ফোবানা সম্মেলনে প্রধান অতিখি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন।

উত্তর আমেরিকার সকল প্রবাসীকে ফোবানা সম্মেলনে যোগদানের আমন্ত্রণ জানিয়ে শাহনেওয়াজ বলেন, আসুন ফোবানার সীমাহীন উচ্ছ্বাস উত্তর আমেরিকায় ছড়িয়ে দেই। বিশ্ববাসীর কাছে আমরা আমাদের প্রিয় জন্মভূমি বাংলাদেশকে উপস্থাপন করি।

শাহ নেওয়াজ বলেন, শত চেষ্টার পরও শেষ পর্যন্ত আমরা ঐক্যবদ্ধ ফোবানা সম্মেলন করতে পারলাম না। এই বিভাজন ও বিভক্তির ফোবানা সম্মেলনের জন্য আজ আমরা কাউকে দোষারোপ ও দায়ী করছি না। এটা আমাতের দুভার্গ্য। সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তিনি বিভক্তি ও বিভাজনের পথ পরিহারের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, আসুন আর বিভক্তি ও বিভাজন নয়। আমরা আগামীতে ঐক্যবদ্ধ হয়ে পথ চলতে চাই এবং ঐক্যবদ্ধভাবে ফোবানা সম্মেলন করতে চাই। আমরা সবাই এক পতাকার নিচে ঐক্যবদ্ধ হয়ে জনমানুষের প্রত্যাশা পূরণ করতে চাই।

এদিকে একই সময়ে নিউইয়র্কে দুটি ফোবানা সম্মেলনের কারণে বিভক্ত হয়ে পড়েছে বাংলাদেশি কমিউনিটি। দুটি মিলে ঐক্যবদ্ধ ফোবানা হলে প্রবাসী স্বতঃস্ফূর্তভাবে একটি ফোবানায় অংশ নিতে পারতেন। বিভক্ত ফোবানা বাংলাদেশিদের কিছুই উপহার দিতে পারবে না বলে অনেকেই মন্তব্য করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক প্রবাসী বাংলাদেশি এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, একটি ফোবানার মিলনায়তন ভাড়াই তিন দিনে ৩ লাখ ডলার। আরেকটি ফোবানার খরচ প্রায় লক্ষাধিক ডলার। দুই পক্ষের জেদাজেদির কারণে যে বিপুল অংকের অর্থ ব্যয় হচ্ছে তা প্রবাসীদেরই কষ্টার্জিত অর্থ। ভাল কোনো কাজে এই অর্থ ব্যয় করা যেত। অনেক প্রবাসী কাজের অভাবে পরিবার নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। অনেকে ইমিগ্রেশন সংক্রান্ত সমস্যায় রয়েছেন। কিন্তু তাদের পাশে দাঁড়ানোর কেউ নেই। ফোবানা বাংলাদেশি কমিউনিটির কল্যাণে কী করছে? - প্রশ্ন তুলেছেন তাদের অনেকেই।

ই্ত্তেফাক/আরকেজি

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন