ঢাকা বৃহস্পতিবার, ০৯ এপ্রিল ২০২০, ২৬ চৈত্র ১৪২৬
২৯ °সে

প্যারিসে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন

প্যারিসে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন
ছবি- ইত্তেফাক

বাংলাদেশ দূতাবাস, প্যারিস যথাযথ মর্যাদায় ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করেছে। এ উপলক্ষে সকালে দূতাবাসে প্রবাসী বাংলাদেশি ও দূতাবাসের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের উপস্থিতিতে মান্যবর রাষ্ট্রদূত কর্তৃক জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের শুরু হয়।

অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত এবং শ্রীমদ্ভগবতগীতা, ত্রিপিটকসহ বিভিন্ন পবিত্র ধর্মগ্রন্থ থেকে পাঠ শেষে ভাষা শহিদদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে মোনাজাত এবং তাঁদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্র মন্ত্রী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এবং সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কর্তৃক প্রদত্ত বাণী পাঠ করা হয়।

ফ্রান্সে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত কাজী ইমতিয়াজ হোসেন তার বক্তব্যের শুরুতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও ভাষা আন্দোলনের শহিদদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। তিনি ইউনেস্কো কর্তৃক এই দিবসটিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণাকে ২১ শে ফেব্রুয়ারির আন্তর্জাতিকীকরণ বলে অভিহিত করেন এবং এর সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানান।

এরপর রাষ্ট্রদূত ইউনেস্কো আয়োজিত আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের আনুষ্ঠানিক আয়োজনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। উক্ত অনুষ্ঠানে মান্যবর রাষ্ট্রদূত ছাড়াও ইউনেস্কোর উপ-মহাপরিচালক (শিক্ষা) মিজ স্টেফেনিয়া গিয়ান্নিনি, প্যারিসে নিযুক্ত তানজানিয়ার রাষ্টদূত স্যাময়েল শেলুকিন্দো, অর্গানাইজেশন ইন্টারন্যাশনাল ডা লে ফ্রাঙ্কোফনি’র ফরাসি ভাষা, সংস্কৃতি ও বৈচিত্র্য বিষয়ক পরিচালক আলেক্সান্ডার উলফ বক্তব্য রাখেন।

রাষ্ট্রদূত তার বক্তব্যে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস আয়োজনে ইউনেস্কো ঘোষিত প্রতিপাদ্য ‘ল্যাংগুয়েজ উইথাউট বর্ডার’র ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং এ সময়োপযোগী প্রতিপাদ্য নিয়ে এ আয়োজন করায় ইউনেস্কোকে ধন্যবাদ জানান।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ থেকে আগত সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় কর্তৃক প্রেরিত একটি মনিপুরি সাংস্কৃতিক দল নৃত্য পরিবেশন করে এবং প্রশংসিত হয়। এরপর ইউনেস্কো দিনব্যাপি বিভিন্ন দেশের ভাষা বিশেষজ্ঞদের ও অংশগ্রহণে বিতর্ক এবং গোলটেবিল বৈঠকের আয়োজন করে।

বাংলাদেশ দূতাবাস, প্যারিস ও ইউনেস্কোতে বাংলাদেশের স্থায়ী মিশন ইউনেস্কো সদর দফতরে ২৭ টি সদস্য রাষ্ট্রের সরাসরি অংশগ্রহণে দিনব্যাপি বিভিন্ন অনুষ্ঠান আয়োজন করে। শুরুতে ছিল ভাষা প্রদর্শনী। এ প্রদর্শনীতে বিভিন্ন দেশের ইউনেস্কোতে স্থায়ী মিশন সুদৃশ্য ব্যানার, পোস্টার, ডিজিটাল ব্যানার ইত্যাদির মাধ্যমে স্ব স্ব দেশের মাতৃভাষাকে তুলে ধরে। ইউনেস্কোর উপ-মহাপরিচালক (শিক্ষা) স্টেফেনি এ প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন।

সন্ধ্যায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক আয়োজনে প্রায় চারশতাধিক দর্শকের উপস্থিতিতে নৃত্য-গীত-বাদ্যের মাধ্যমে বিভিন্ন দেশ নিজ নিজ ভাষা ও সংস্কৃতির বৈচিত্র্য উপস্থাপন করে। অনুষ্ঠানের শুরুতে ফ্রান্সে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ও ইউনেস্কোতে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি কাজী ইমতিয়াজ হোসেন শুভেচ্ছা বক্তব্য প্রদান করেন। ইউনেস্কোর মহাপরিচালক এর পক্ষে উপ-মহাপরিচালক (শিক্ষা) স্টেফেনি এবং উপ-মহাপরিচালক (তথ্য ও যোগাযোগ) মোয়েজ চাকচুক বক্তব্য প্রদান করেন। বাংলাদেশ থেকে আগত মনিপুরি সাংস্কৃতিক প্রতিনিধি দলের রাসনৃত্য, মনিপুরি ছন্দে রবীন্দ্র নৃত্য ও মৃদঙ্গ বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐশ্বর্যকে তুলে ধরে। সাংস্কৃতিক আয়োজন শেষে ষোলটি সদস্য রাষ্ট্রের নিজস্ব রসনায় অতিথিদের আপ্যায়িত করা হয়।

ইউনেস্কোতে এ ধরণের ভিন্নধর্মী আয়োজনের জন্য উপস্থিত রাষ্ট্রদূত ও ইউনেস্কোতে স্থায়ী প্রতিনিধিগণ, ইউনেস্কোর কর্মকর্তাবৃন্দ ও আগত অতিথিবৃন্দ আয়োজক হিসেবে ইউনেস্কোতে বাংলাদেশের স্থায়ী মিশনের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

ইত্তেফাক/আরকেজি

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
icmab
facebook-recent-activity
prayer-time
০৯ এপ্রিল, ২০২০
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন