জার্মানিতে জেলহত্যা দিবস পালন

জার্মানিতে জেলহত্যা দিবস পালন
জার্মানিতে জেলহত্যা দিবস পালন

জেলহত্যা দিবস ও জাতীয় ৪ নেতা স্মরণে জার্মান আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটির আয়োজনে ভার্চুয়াল আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার (৮ নভেম্বর) বিকাল ৫টায় এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় বাংলাদেশ ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা অংশগ্রহণ করেন ।

সভায় সভাপতিত্ব করেন জার্মান আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুম মিয়া। সভা পরিচালনা করেন যুগ্ম আহ্বায়ক নজরুল ইসলাম খালেদ ও কারিগরি সহায়তা করেন অমিত মজুমদার ও সেলিম ভূঁইয়া।

প্রধান অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য অ্যাড.আব্দুল মান্নান খান। প্রধান বক্তা ছিলেন-আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল।

বিশেষ অতিথি ছিলেন-স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নির্মল রন্জন গুহ,বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশনের সাবেক সদস্য কামাল উদ্দিন আহাম্মেদ, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রফেসর আবুল হাসেম, জার্মান আওয়ামী লীগের সাবেক উপদেষ্টা আনোয়ারুল কবির, ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি মমতাজ উদ্দিন আহাম্মেদ, ইতালি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাসান ইকবাল। এছাড়াও জার্মান আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতাদের মধ্যে শাহাবুদ্দিন,হাফিজুর রহমান আলম, মিজানুর হক খান , মাবু জাফর স্বপন, মাহফুজ ফারুক, নুরজাহান খান নুরি, হাকিম টিটু বক্তব্য রাখেন।

সভায় জার্মান আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মোবারক আলী ভূঁইয়া বকুল, নূরে আলম সিদ্দিকী রুবেল, রোমান মিয়া ,নোমান হামিদ ও কাজী মওদুদ রংকু বক্তব্য রাখেন।

আরো পড়ুন: ই-কমার্স মুভার্স অ্যাওয়ার্ড অর্জন করেছে ‘ওভাই’

আরো বক্তব্য রাখেন-বার্লিন আওয়ামী লীগের সভাপতি মাসুদুর রহমান মাসুদ হেসেন, কমিটির সাধারণ সম্পাদক সাইফুদ্দিন রিচার্ড, নর্দ রাইন-ভেস্টফালেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর আলম, বায়ার্ন মিউনিখ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম, রানা ভূঁইয়া, বাপ্পি তালুকদার, সূর্য কান্ত ঘোষ, মো. কুদ্দুস আলী, সাইয়েদুর রহমান, ইকবাল আহমেদ লিটন, মোহাম্মদ ফরহাদুজ্জামান মিয়া, প্রফেসর নূরে আলম সিদ্দিকী, আবু সায়িদ, আলী মোহাম্মদ ওয়াহেদ, আনোয়ার হোসেন চৌধুরী, মোহাম্মদ ভূঁইয়া, হাসান , বিদ্যূত কাল, জাহাঙ্গীর আলম, নিতিশ কুন্ডু, মো. নাসির উদ্দিন, মহিন খান, মকসুদ রাহমান, মমতাজুল ফেরদৌস জোয়ারদার, মুন্না, সানি মোহাম্মদ, সেলিম আহমেদ, ওমর ফারুক শাওন, সুরুজ আলম, রনি হোসাইন, খালেকুজ্জামান, হুমায়ুন কবির, বেলাল হোসেন, সাখাওয়াত হোসেন, এমানুর রহমান মুসা, এম.এন. এস রাসেল, কাওসার আমিন হাওলাদার জার্মান স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক আওয়াল খান, জার্মান স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি সাবরা খানসহ আরো অনেকেই ।

বক্তারা বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শক্তি পরিকল্পিতভাবে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যা করে। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর বাংলাদেশকে পাকিস্তানি রাষ্ট্রে পরিণত করতে,বাঙালি জাতিকে নেতৃত্বশূন্য করতে ১৯৭৫ সালের ৩ নবেম্বর মধ্যরাতে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে অন্তরীণ জাতির চার মহান সন্তান, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম পরিচালক, মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর একনিষ্ঠ ঘনিষ্ঠ সহচর, জাতীয় চার নেতা বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ, মন্ত্রিসভার সদস্য ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী এবং এ এইচ এম কামরুজ্জামানকে নির্মম ও নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়। কারাগারের নিরাপদ আশ্রয়ে থাকা অবস্থায় এমন জঘন্য, নৃশংস ও বর্বরোচিত হত্যাকাণ্ড পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল ।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সকল সদস্য,স্বাধীনতা যুদ্ধের সকল শহীদ ও কেন্দ্রীয় কারাগারে নির্মমভাবে হত্যা করা শহীদ জাতীয় চার নেতার বিদেহী আত্মার রুহের মাগফিরাত কামনা করে মহান আল্লাহ পাকের দরবারে দোয়া প্রার্থনা করা হয়।

ইত্তেফাক/এএএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত