পাকিস্তানিদের আত্মসমর্পণের দলিলটির মূল কপি

পাকিস্তানিদের আত্মসমর্পণের দলিলটির মূল কপি
(বাঁ থেকে) জগজিৎ সিং অরোরা ও আব্দুল্লাহ খান নিয়াজি (ছবি: সংগৃহীত)

১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর সই করা ঐতিহাসিক আত্মসমর্পণের দলিলের নাম ছিল ‘ইনস্ট্রুমেন্ট অব সারেন্ডার’। এটি তিন প্রস্থে প্রস্তুত করা হয়। একটি প্রস্থ ভারত সরকার এবং দ্বিতীয় প্রস্থ পাকিস্তান সরকারের কাছে সংরক্ষিত আছে। তৃতীয় প্রস্থটি রয়েছে ঢাকার শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরে।

মুক্তিযোদ্ধাদের বীরত্বের কাছে পরাজয় মেনে ৯৩ হাজার সৈন্যসহ আত্মসমর্পণ করে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী। সেদিন বিকাল ৪টা ৩১ মিনিটের দিকে ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে (সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) আত্মসমর্পণের দলিলে সই করেন পাকিস্তানের পূর্বাঞ্চলীয় কমান্ডের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট জেনারেল আমির আবদুল্লাহ খান নিয়াজি। তিনি ছিলেন পূর্ব পাকিস্তানের সামরিক আইন প্রশাসক। এর মাধ্যমে নয় মাসব্যাপী রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের পর প্রতিষ্ঠিত হয় স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ।

মিত্রবাহিনীর পক্ষে দলিলে সই করেন ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় কমান্ডের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট জেনারেল জগজিৎ সিং অরোরা। তিনি ছিলেন পূর্ব রণাঙ্গনে বাংলাদেশ ও ভারত যৌথবাহিনীর যুগ্ম কমান্ডার।

বাংলাদেশের পক্ষে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর উপ-সেনাপ্রধান এয়ার কমোডর এ কে খন্দকার আত্মসমর্পণের সাক্ষী হিসেবে ছিলেন। মিত্রবাহিনীর পক্ষে ভারতীয় চতুর্থ কোরের কমান্ডার লে. জেনারেল সগত সিং, পূর্বাঞ্চলীয় বিমান বাহিনীর কমান্ডার এয়ার মার্শাল হরিচাঁদ দেওয়ান, ভারতীয় সেনাবাহিনীর পূর্বাঞ্চলীয় কমান্ডের চিফ অব স্টাফ মেজর জেনারেল জে এফ আর জ্যাকব সাক্ষী হিসেবে ছিলেন।

ইংরেজি দলিলে যা লেখা ছিল

পূর্ব রণাঙ্গনে ভারতীয় ও বাংলাদেশ বাহিনীর জেনারেল অফিসার কমান্ডিং ইন চিফ, লেফটেন্যান্ট জেনারেল জগজিৎ সিং অরোরার কাছে পাকিস্তান পূর্বাঞ্চলীয় সামরিক কমান্ড বাংলাদেশে অবস্থানরত পাকিস্তানের সকল সশস্ত্র বাহিনী নিয়ে আত্মসমর্পণে সম্মত হলো। পাকিস্তানের সেনা, নৌ ও বিমানবাহিনীসহ সব আধা-সামরিক ও বেসামরিক সশস্ত্র বাহিনীর ক্ষেত্রে এই আত্মসমর্পণ প্রযোজ্য হবে। এসব বাহিনী যে যেখানে আছে, সেখান থেকে লেফটেন্যান্ট জেনারেল জগজিৎ সিং অরোরার কর্তৃত্বাধীন নিয়মিত সবচেয়ে নিকটস্থ সেনাদের কাছে অস্ত্রসমর্পণ ও আত্মসমর্পণ করবে।

এই দলিল স্বাক্ষরের সঙ্গে সঙ্গে পাকিস্তানের পূর্বাঞ্চলীয় সামরিক কমান্ড লেফটেন্যান্ট জেনারেল অরোরার নির্দেশের অধীন হবে। নির্দেশ না মানলে তা আত্মসমর্পণের শর্তের লঙ্ঘন বলে গণ্য হবে এবং তার পরিপ্রেক্ষিতে যুদ্ধের স্বীকৃত আইন ও রীতি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আত্মসমর্পণের শর্তাবলীর অর্থ অথবা ব্যাখ্যা নিয়ে কোনো সংশয় দেখা দিলে লেফটেন্যান্ট জেনারেল জগজিৎ সিং অরোরার সিদ্ধান্তই হবে চূড়ান্ত।

লেফটেন্যান্ট জেনারেল জগজিৎ সিং অরোরা আত্মসমর্পণকারী সেনাদের জেনেভা কনভেনশনের বিধি অনুযায়ী প্রাপ্য মর্যাদা ও সম্মান দেওয়ার প্রত্যয় ঘোষণা করছেন এবং আত্মসমর্পণকারী পাকিস্তানি সামরিক ও আধা-সামরিক ব্যক্তিদের নিরাপত্তা ও সুবিধার অঙ্গীকার করছেন। লেফটেন্যান্ট জেনারেল জগজিৎ সিং অরোরার অধীন বাহিনীগুলোর মাধ্যমে বিদেশি নাগরিক, সংখ্যালঘু জাতিসত্তা ও জন্মসূত্রে পশ্চিম পাকিস্তানি ব্যক্তিদের সুরক্ষাও দেওয়া হবে।

ইত্তেফাক/জেএইচ

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x