বেটা ভার্সন
আজকের পত্রিকাই-পেপার ঢাকা মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই ২০২০, ৩০ আষাঢ় ১৪২৭
২৮ °সে

জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক সংশ্লিষ্ট বরাদ্দ ২৪ হাজার ২২৫ কোটি টাকা

বাজেটে জিডিপির শূন্য দশমিক ৮ শতাংশ যাচ্ছে জলবায়ু খাতে

বাজেটে জিডিপির শূন্য দশমিক ৮ শতাংশ যাচ্ছে জলবায়ু খাতে
ফাইল ছবি

প্রস্তাবিত ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটে জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক সংশ্লিষ্ট বরাদ্দের পরিমাণ ২৪ হাজার ২২৫ কোটি ৬৮ লাখ টাকা। বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দের মধ্যে কতটুকু বরাদ্দ জলবায়ু সংশ্লিষ্ট খাতে যাচ্ছে, তার একটি আলাদা প্রকাশনা তৈরি করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ। টেকসই উন্নয়নে জলবায়ু অর্থায়ন শীর্ষক প্রতিবেদনটি এবার বাজেট ডকুমেন্ট আকারে প্রকাশ করা হয়েছে। এটি জলবায়ু অর্থায়নবিষয়ক চতুর্থ প্রতিবেদন। ২০১৬-১৭ অর্থবছর থেকে তিনটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে। ২০২০-২১ অর্থবছর পর্যন্ত ২৫টি মন্ত্রণালয়/বিভাগের বাজেট বরাদ্দে জলবায়ু পরিবর্তনের সঙ্গে সম্পর্কিত বরাদ্দসহ ২০১৬-২০১৭ থেকে ২০১৮-১৯ অর্থবছর পর্যন্ত প্রকৃত ব্যয়ের তথ্য-উপাত্ত ও বিশ্লেষণ এ প্রতিবেদনে উপস্থাপন করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, বাজেটের মোট বরাদ্দের প্রায় ৫৭ শতাংশ যাচ্ছে এই ২৫টি মন্ত্রণালয়/বিভাগে। এর ৭ দশমিক ৫৫ শতাংশ হচ্ছে জলবায়ু অর্থায়ন সংশ্লিষ্ট। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, এসব মন্ত্রণালয়/বিভাগের ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটে জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক বরাদ্দ ২০১৯-২০ অর্থবছরের সংশোধিত বরাদ্দ হতে মাত্র শূন্য দশমিক শূন্য ৩ শতাংশীয় পয়েন্ট এবং মূল বরাদ্দ হতে মাত্র শূন্য দশমিক ২৯ শতাংশীয় পয়েন্ট হ্রাস পেয়েছে। ২০১৬-১৭ অর্থবছরের পরিচালন বাজেটের ৭ দশমিক ৫৮ শতাংশ ছিল জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক বরাদ্দ, যা ২০২০-২১ অর্থবছরে হ্রাস পেয়ে দাঁড়িয়েছে ৬ দশমিক ৪৫ শতাংশে। তবে একই সময়ে উন্নয়ন বাজেটে জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক বরাদ্দ ৭ দশমিক ১২ শতাংশ হতে বৃদ্ধি পেয়ে ৮ দশমিক ৫৪ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। এই পাঁচ বছরে জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক বরাদ্দের অঙ্ক ১৪ হাজার ৩২৩ কোটি ৬ লাখ টাকা থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ২৪ হাজার ২২৫ কোটি ৬৮ লাখ টাকায় দাঁড়িয়েছে, যা ২০২০-২০২১ অর্থবছরের জিডিপির শূন্য দশমিক ৮ শতাংশ।

প্রতিবেদনটিতে মন্ত্রণালয়/বিভাগগুলোর বরাদ্দের বিভাজন দেখানো হয়েছে। এতে আরো দেখানো হয়েছে, ছয়টি থিমেটিক এরিয়ার মধ্যে ‘খাদ্য নিরাপত্তা, সামাজিক সুরক্ষা ও স্বাস্থ্য’ বাবদ সর্বোচ্চ বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে। বরাদ্দের অঙ্কের দিক থেকে দ্বিতীয় ও তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে যথাক্রমে ‘অবকাঠামো’ এবং ‘প্রশমন ও লো-কার্বন ডেভেলপমেন্ট’ খাত।

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত