নূর-রাশেদকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের একাংশের

নতুন কেন্দ্রীয় আংশিক কমিটি ঘোষণা
নূর-রাশেদকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের একাংশের
বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের একাংশের সংবাদ সম্মেলন। ছবি: ফেসবুক লাইভ থেকে

সংগঠন পরিচালনায় স্বেচ্ছাচারিতা, অগণতান্ত্রিকভাবে সংগঠন পরিচালনা ও ত্যাগী সদস্যদের বহিষ্কারের অভিযোগ এনে সাংগঠনিক সংস্কারের লক্ষ্যে সংবাদ সম্মেলন করেছে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের একাংশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত এই সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটির বর্তমান কমিটি ও তাদের কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদ জানানো হয়।

সম্মেলনে বক্তারা জানান, গত ১৭ ফেব্রুয়ারি সংগঠনের তৃতীয় বর্ষে পদার্পণ অনুষ্ঠানে সংগঠনের নাম সংক্ষিপ্ত করে রাখা হয় বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ। এমন সিদ্ধান্তের প্রতিবাদও করে সংগঠনের একাংশ। পাশাপাশি ডাকসু ভিপির একক সিদ্ধান্ত, অভ্যন্তরীণ কোন্দল, ঢাবি শিক্ষার্থী ধর্ষণের ঘটনাকে রাজনীতিকরণ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিকটিমকে আক্রমণ ইত্যাদি অভিযোগ করেন তারা।

এতোদিন সংগঠনের স্বার্থে চুপ থাকলেও সাম্প্রতিক সময়ে আর্থিক অস্বচ্ছতা, নারী কেলেঙ্কারি, সংগঠনের অভ্যন্তরীণ স্বৈরাচারী সিদ্ধান্ত, নীতি-নৈতিকতাহীন আচরণ, তৃণমূলকে অবমূল্যায়ন, ত্যাগী নেতাদের সাময়িক বহিষ্কার নিয়ে কথা বলতেই এই সম্মেলন বলে জানান বক্তারা। একই সঙ্গে সংগঠন নিয়ে মতামত প্রকাশে বাধা, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হুমকি ও আক্রমণ, রাজনীতির নামে নিজ স্বার্থ চরিতার্থ করার মতো অভিযোগও আনা হয় সংগঠনের বর্তমান কমিটির উপর।

সম্মেলনে ডাকসু ভিপি নূর ও জিএস রাশেদকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়। এ সময় এবিএম সোহেলকে আহ্বায়ক ঘোষণা করে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের কেন্দ্রীয় আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। একই সঙ্গে সংগঠনের আগের নাম বাংলাদেশ বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ-এ ফিরে যাওয়ার সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়।

ইত্তেফাক/জেডএইচডি

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত