বৈশাখ উদযাপনের স্থানগুলোতে নিস্তব্ধ নীরবতা

বৈশাখ উদযাপনের স্থানগুলোতে নিস্তব্ধ নীরবতা
রবীন্দ্র সরোবরে নিস্তব্ধ নীরবতা।

আজ পহেলা বৈশাখ। বাংলা নতুন বছরের প্রথম দিন। অন্যান্য বছর দিনটিতে আনন্দ উৎযাপন করার জন্য বাঙালি মুখিয়ে থাকলেও এবার সরকারের কঠোর বিধি-নিষেধে মানুষ ঘর থেকে বের হতে পারছেন না।

সাধারণত পহেলা বৈশাখের সকালে রমনার বটমূল থেকে ভেসে আসে সুরে মূর্ছনা। কিন্তু মহামারি করোনার কারণে রমনার বটমূলে ছায়ানটের গান নেই, চারুকলায় মঙ্গল শোভাযাত্রা নেই। লোক সমাগম নেই রবীন্দ্রসরোবর, টিএসসি চত্বর আর মানিক মিয়া এভিনিউতে। নেই ঢাকঢোল আর ভ্যাপুর আওয়াজ। পথে পথে দেখা যায়নি বর্ষবরণের গান আর নৃত্য।

রবীন্দ্র সরোবরে গিয়ে দেখা যায়, দুই-একটি কাক ছাড়া মঞ্চে আর কিছু নেই। সেখানে ছোট বড় সবাই মনের আনন্দে নাচতেন, গাইতেন। এবার সেই দৃশ্য আজ দেখা যায়নি। লেকের পানিতে বর্ষবরণ সাজে সজ্জিত হয়ে পানিতে নৌকা ছড়ার কথা সেখানে আজ শেউলা পড়ে আছে। পানিতে ঢেউ তুলে খেলা করছে না।

একইরকম দেখা গেছে মানিক মিয়া এভিনিউতে নেই কোনো রংতুলির ছোঁয়া। সড়কের চারপাশে নেই কোনো আয়োজন।

পহেলা বৈশাখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চারুকলা অনুষদে থাকে নববর্ষের বিশাল আয়োজন। টিএসসি চত্বর পরিণত হয় জনসমুদ্র। তবে আজ তা একেবারে উল্টোচিত্র। একই রকম রমনার বটমূল, চদ্রিমা উদ্যান, পুরান ঢাকার অলি-গলিতে কোথাও নেই কোনো আনন্দের ছোঁয়া।

ইত্তেফাক/ইউবি

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x