চাকরিজীবী পরিচয়ে বাসা ভাড়া নিয়ে জাল টাকার ব্যবসা

চাকরিজীবী পরিচয়ে বাসা ভাড়া নিয়ে জাল টাকার ব্যবসা
প্রতীকী ছবি ( সংগৃহীত)

বেসরকারি চাকরিজীবী পরিচয়ে দুই মাস আগে বাসা ভাড়া নেন মলয় মণ্ডল। বাসা ভাড়া নেওয়ার সময় বাড়িওয়ালাকে বলেন, পরিবারসহ থাকবেন। সে মোতাবেক এক নারী ও দুই শিশুসহ বাসায় উঠেছিলেন। নিয়ম অনুযায়ী ভাড়াটিয়া তথ্য ফরমও পূরণ করেছিলেন। কিন্তু ওই নারী ও দুই শিশু ছিল সাজানো স্ত্রী ও সন্তান। বাড়িওয়ালা ভাড়াটিয়া তথ্য ফরম যাচাই না করায় বুঝতে পারেননি কিছুই।

বাসায় ওঠার একদিন পরে ওই নারী ও দুই শিশু চলে গেলে জাল টাকার কারখানা গড়ে তোলেন মলয়। চক্রের অন্যান্য সদস্যদের মাধ্যমে প্রতিদিনই তৈরি করতেন লাখ লাখ টাকার জাল নোট। পরে সেগুলো ছড়িয়ে দেওয়া হতো রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায়।

গত মঙ্গলবার রাজধানীর হাতিরঝিল থানার পশ্চিম উলন রোডের ১১২/এ নম্বর বাড়িতে অভিযান চালিয়ে মলয়সহ চক্রের অন্যতম সদস্য জনি ডি কস্তাকে গ্রেফতারের পর এসব তথ্য জানিয়েছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

গ্রেফতারকৃতদের কাছ থেকে ২২ লাখ ২৫ হাজার জাল টাকা, টাকা তৈরির স্ক্রিন ফ্রেম ১০টি, কাঠের বোর্ড ২টি, রংয়ের বোতল ৬টি, রংয়ের কৌটা ৫টি, টাকা তৈরির কাগজ ২ বান্ডিল, ফেবিকল গাম ১ কৌটা, লেমিনেটিং মেশিন ১টি, প্রিন্টিং ব্রাশ ২টি ও ১টি এন্টি কাটার উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে হাতিরঝিল থানায় মামলা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডিবির ওয়ারী বিভাগের ডিসি মো. আব্দুল আহাদ।

তিনি বলেন, ‘বাসা ভাড়া নেওয়ার সময় যে নারীকে স্ত্রী পরিচয়ে নেওয়া হয়েছিল সে এই চক্রের সদস্য। চক্রটির এক এক সদস্য এক এক কাজ করতো। তবে কখনো তারা একসঙ্গে ওই বাসায় অবস্থান করতো না। একজন তার কাজ শেষ করে বেরিয়ে আসার পর আরেকজন বাসায় প্রবেশ করে তার কাজ শেষ করে বেরিয়ে আসতো। অতি সূক্ষ্মভাবে তারা কাজটি করায় কেউ কখনো সন্দেহ করেনি।

ইত্তেফাক/এএএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x