সবজির গাড়ি নিয়ে আবারও মানুষের দ্বারে কাউন্সিলর

সবজির গাড়ি নিয়ে আবারও মানুষের দ্বারে কাউন্সিলর
সবজির গাড়ি নিয়ে মানুষের দ্বারে কাউন্সিলর। ছবি: ইত্তেফাক

করোনাভাইরাসের শুরুতে সারাদেশের মানুষ যখন ঘর থেকে বের হচ্ছিলো না, তখন সবজির গাড়ি নিয়ে মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়ে সাড়া ফেলেছিলেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ২১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আসাদুজ্জামান আসাদ। গতবারের মতো এবারও সর্বাত্মক লকডাউন কার্যকর করতে মানুষের দ্বারে দ্বারে সবজির গাড়ি নিয়ে চলা শুরু করেছেন। এবার লকডাউনের প্রথম দিন থেকেই বিনামূল্যের সবজির গাড়ি নিয়ে মানুষের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছেন তিনি।

নিম্নবিত্ত, নিম্ন-মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্তসহ লকডাউনে আটকে পড়া সব শ্রেণি-পেশার মানুষের জন্যই তার এই উদ্যোগ। সরেজমিনে দেখা যায়, ঢাকার ২১ নং ওয়ার্ডের আওতাধীন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা, পরীবাগ, নীলক্ষেত আবাসিক এলাকা, ময়মনসিংহ লেন এলাকায় অবস্থান করার আবাসিক মানুষজনের জন্য ভেনে করে সবজি নিয়ে হাজির তিনি। মানুষজনকে যাতে ঘর থেকে বের হতে না হয় সেজন্য জীবন ধারণের এ প্রয়োজনীয় উপকরণ নিয়ে ঘুরছেন তিনি। যে কেউ প্রয়োজনমত সেখান থেকে বিনামূল্যে সবজি নিতে পারছেন।

করোনার প্রকোপ শুরুর পর থেকে নিজ এলাকা জীবাণুমুক্ত রাখতে কাজ করেছেন আসাদ। কিন্তু যখন থেকে প্রয়োজন ছাড়া বাইরে বের হওয়া নাগরিকদের এক রকম বন্ধ হয়ে গেছে- তখন ভিন্ন চিন্তা নিয়ে এগিয়ে এলেন এই জনপ্রতিনিধি। অসহায় মানুষের মাঝে একদিকে যেমন ত্রাণ বিতরণ করছেন অন্যদিকে যারা বাড়ি থেকে বের হতে পারছেন না তাদের জন্য পিকআপ ভরে সবজি নিয়ে ঘুরছেন। যাতে করে লোকজনের বের হতে না হয় সেজন্য নিজে সবজি ভর্তি পিকআপ নিয়ে সবার দ্বারে দ্বারে ছুটছেন তিনি।

হ্যান্ডমাইকে সবাইকে একান্ত প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে বের হতে অনুরোধ করছেন। অন্যদিকে কারো কোনো প্রয়োজন থাকলে গাড়ি থেকে সবজি নিয়ে যাওয়ার জন্য বলছেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, বুধবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক এলাকা, শাহবাগ, পরীবাগ ও বাংলামোটরে বিনামূল্যে সবজি বিতরণ করেছেন আসাদুজ্জামান। হ্যান্ড মাইক ও সবজি পিকআপ নিয়ে হাঁটছেন আসাদ। আশপাশের সবাইকে সবজি নিয়ে যেতে অনুরোধ করছেন তিনি। নিজের প্রয়োজনের বাইরে যেন কেউ সবজি না নেই সে বিষয়েও কথা বলছেন তিনি।

এমন অভিনব চিন্তার কারণ হিসেবে তিনি বলছেন, করোনায় ঢাকা শহরে অচলাবস্থা। মানুষ ঘর থেকে বের হতে পারছে না। সবজির বাজারগুলো আগে বন্ধ হয়ে যাওয়ায় প্রয়োজন হলেও কিনতে পারছে না অনেকে। আর আমরা চাইছি, খুব প্রয়োজন ছাড়া মানুষ ঘর থেকে বের না হোক। তাতে জীবন বাঁচবে, জনগণ বাঁচবে, দেশ বাঁচবে। আর এমন আয়োজনে খুশি সাধারণ মানুষ।

আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, করোনার কারণে বিপদে পড়েছে নিম্নবিত্ত ও শ্রমজীবী মানুষ। তাদের পাশে দাঁড়াতেই এই ক্ষুদ্র চেষ্টা। মানুষ ঘরে ঘরে থাকায় নিত্য প্রয়োজনীয় খাবারের পাশাপাশি সবজি সংকটে পড়েছে। ঘর হতে বের হতে না পারায় বাজার যেতে পারছে না। বাজারগুলো আগেভাগে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। পরিস্থিতি পুনরায় স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত।

ইত্তেফাক/জেডএইচডি

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x