জমে উঠেছে ঈদ মার্কেট

মার্কেটে গরমের অজুহাতে মাস্ক নেই অনেকের

মার্কেটে গরমের অজুহাতে মাস্ক নেই অনেকের
ছবি : আব্দুল গণি

ঈদ যতই ঘনিয়ে আসছে ততই মার্কেটে মার্কেটে বাড়ছে ভীড়। করোনার মধ্যেও ঝুঁকি নিয়ে কেনা কাটা করতে যাচ্ছে মানুষ। বাহারি ধরনের পোশাকের বিক্রিও বাড়ছে দোকানদারদের। ব্রান্ডের বিভিন্ন পোষাকের দোকানেও ভীড় বাড়ছে। তবে গরমের অজুহাতে অনেকেই মাস্ক পরছেন না। মাস্ক পরলেও ঠিক জায়গায় রাখেন না।

তাদের দাবি,বেশিক্ষণ মাস্ক পরে থাকলে দম বন্ধের উপক্রম হচ্ছে। আর ক্রেতারা বলছেন, গরমের সমস্যায় নামিয়ে রাখতে বাধ্য হচ্ছেন মাস্ক। এদিকে অনেক মার্কেটে জীবাণুনাশক বুথ করা হলেও কেউ তার মধ্য দিয়ে প্রবেশ করছেন না। আবার কোথাও কোথাও প্রবেশদ্বারে হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখা হলেও সেভাবে ব্যবহার করতে দেখা যাচ্ছে না। তার শরীরের তাপমাত্রা মাপতে দেখা যাচ্ছে না অধিকাংশ মার্কেট, শো-রুমগুলোতে। ফলে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ছে।

সরেজমিনে, রাজধানীর নিউমার্কেট, ইস্টার্ন মলি­কা, বসুন্ধরা সুপার মার্কেট, মৌচাক মার্কেট, সুবাস্তু নজরভ্যালিসহ বেশ কয়েকটি মার্কেট ও শো-রুমে গিয়ে দেখা যায়, ঈদ সামনে রেখে ক্রেতাদের প্রচণ্ড ভিড়। ভিড় সামাল দিতেই হিমশিম দোকান সংশ্লিষ্টদের। যদিও স্বাস্থ্যবিধি মানার বালাই নেই। ক্রেতারা সামাজিক দূরত্ব মোটেই মানছেন না।

ঝুঁকি নিয়ে কেনাকাটা করতে আসা রায়হান আহমেদ নামে এক ক্রেতা বলেন, ‘প্রতিটি দোকানে ভিড়, যে কারণে কারও পক্ষেই স্বাস্থ্যবিধি বা সামাজিক দূরত্ব মানা সম্ভব হচ্ছে না। ঈদে নিজেদের জন্য না হলেও বাচ্চাদের জন্য নতুন জামা-কাপড় কিনতে হবে। তাই ঝুঁকি নিয়েও বাজারে এসেছি।’দোকান মালিকের বলেন, ‘আমরা যতটুকু সম্ভব স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছি। তবে ক্রেতাদের দূরত্ব বজায় রেখে কেনাকাটা করতে অনুরোধ করলেও তারা শুনছেন না। বলতে গেলে বরং বিপরীত ফল হয়। এতে বেচাবিক্রির ওপর প্রভাব পড়ে। তাই এখন কিছু বলতেও পারছি না।’

এদিকে পোশাকের সঙ্গে ম্যাচ করে তরুণীদের কিনতে দেখা গেছে গোল্ডপ্লেটেড অর্নামেন্টস। মাটির ও ইমিটশনের প্রতিও বেশ ঝোঁক রয়েছে বলে জানান বিক্রেতা। এদিকে মার্কেটের পাশাপাশি ভীড় বেড়েছে ফুটপাতের দোকানেও। প্রচণ্ড গরম উপেক্ষা করেই ফুটপাতের দোকান থেকে কেনাকাটা করতে দেখা গেছে ক্রেতাদের। বিশেষ করে স্বল্প আয়ের মানুষের কেনাকাটার প্রধান পছন্দ হয়ে উঠেছে রাজধানীর ফুটপাতের বাজারগুলো। খিলগাঁও তালতলা মার্কেটে দেখা যায়, মার্কেটের ভেতরের চেয়ে মাঝখানের ফুটপাতগুলোতে ক্রেতাদের ভিড় বেশি। সিটি কর্পোরেশনের এ মার্কেটের আশেপাশে খালি ফুটপাতগুলো এখন ক্রেতা-বিক্রেতাদের পাদচারণায় মুখর। শত শত মানুষ ভিড় করছেন তুলনামূলক কম দামে পণ্য কেনার জন্য। তাই সারাক্ষণই হাঁকডাকে সরগরম প্রতিটি দোকান। মালিবাগের ফুটপাতে শার্ট ও প্যান্টের পসরা সাজিয়ে বসেছেন জনক দাস নামে এক ব্যবসায়ী।

তিনি জানান, বিক্রি ভালোই হচ্ছে। পুলিশি কড়াকড়ি নেই তেমন। সকাল থেকেই ক্রেতা আসতে শুরু করেছেন। মাঝে জুমার নামাজের সময় বিক্রি সাময়িক বন্ধ ছিল। তবে নামাজের পর আবার ক্রেতা সমাগম বেড়েছে।

এদিকে দুই সিটি কর্পোরেশন মার্কেটে মার্কেটে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতে মোবাইল কোর্ট অব্যাহত রেখেছে। প্রতিদিনই কোন না কোন এলাকায় জরিমানা করছে তারা। মানুষকে সচেতন করতেও কাজ করছে তারা।

ইত্তেফাক/এমএএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x