রামেক হাসপাতাল এলাকায় করোনার সংক্রমণ বেশি

রামেক হাসপাতাল এলাকায় করোনার সংক্রমণ বেশি
করোনার হার নির্ধারণে নগরীতে চলছে ফ্রি অ্যান্টিজেন টেস্ট। মঙ্গলবার দুপুরে নগরীর লক্ষ্মীপুর এলাকার ছবি -ইত্তেফাক

রাজশাহীতে করোনার সংক্রমণ কেমন ছড়িয়েছে তা জানতে নগরীজুড়ে চলছে করোনার র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট। গত রবিবার থেকে নগরীর বিভিন্ন স্থানে ভ্রাম্যমাণ বুথ বসিয়ে সাধারণ মানুষের করোনা টেস্ট করা হচ্ছে বিনামূল্যে। এতে দেখা যাচ্ছে, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতাল সংলগ্ন এলাকায় সংক্রমণের হার অন্যান্য এলাকার চেয়ে বেশি। হাসপাতালের পাশেই লক্ষ্মীপুর এলাকায় টেস্ট হচ্ছে।

গতকাল মঙ্গলবার (৮ জুন) লক্ষ্মীপুর মোড়ে ১৪৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে ২৬ জনের করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে। সংক্রমণের হার ১৭ দশমিক ৮০ শতাংশ। এদিন নগরীর ১৩টি পয়েন্টে ৯৫৮ জনের নমুনা পরীক্ষায় গড় সংক্রমণের হার ১০ দশমিক ২২ শতাংশ। মোট ৯৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে এ দিন।

রামেক করোনা ইউনিটে আরও ৬ জনের মৃত্যু

করোনার র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট পরিচালনার নেতৃত্বে থাকা রাজশাহী সিটি করপোরেশন (রাসিক) সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে। রাসিক সূত্র জানায়, মঙ্গলবার নগরীর আমচত্বর এলাকায় ৮০ জনের মধ্যে ছয়জন, কাশিয়াডাঙ্গা এলাকায় ৮০ জনের মধ্যে একজন, সিঅ্যান্ডবি মোড়ে ৯৯ জনের মধ্যে আটজন, সাহেববাজার জিরোপয়েন্টে ৭৭ জনের মধ্যে ১৪ জন, ভদ্রার মোড়ে ৬৬ জনের মধ্যে আটজন, তালাইমারী মোড়ে ৯৪ জনের মধ্যে ছয়জন, বিন্দুর মোড়ে ৭৭ জনের মধ্যে ছয়জন, টুলটুলিপাড়া হেলথ সেন্টারে ৩৭ জনের মধ্যে তিনজন, কাদিরগঞ্জ হেলথ সেন্টারে ২৬ জনের মধ্যে দুইজন, পঞ্চবটি হেলথ সেন্টারে ৭৭ জনের মধ্যে পাঁচজন এবং বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ের এলাকায় ৫৭ জনের মধ্যে ১৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়। মেহেরচন্ডি হেলথ সেন্টারে ৪২ জনের নমুনা পরীক্ষা হলেও কারও করোনা পজিটিভ রিপোর্ট হয়নি। এখানে সংক্রমণের হার শূন্য।

এর আগে র‌্যাপিড টেস্টের প্রথম দিন গত রবিবার রাজশাহীর পাঁচটি পয়েন্টে বুথ বসানো হয়েছিল। সেদিন সংক্রমণের গড় হার ছিল ৯ শতাংশ। পরদিন সোমবার তা বেড়ে ১২ দশমিক ৬৫ শতাংশে দাঁড়ায়। মঙ্গলবার এ হার আরও কিছুটা কম পাওয়া গেছে। সোমবার নগরীতে ৬৯৭টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে করোনা শনাক্ত হয়েছিল ৮৪ জনের। সেদিন রামেক হাসপাতাল সংলগ্ন লক্ষ্মীপুর এলাকায় সংক্রমণ পাওয়া গিয়েছিল ১৯ দশমিক ৬৭ শতাংশ। মঙ্গলবারের হার অবশ্য কিছুটা কম। তবে শহরের অন্যান্য এলাকার চেয়ে বেশি।

ইত্তেফাক/এমআর

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x