খুলনার চার হাসপাতালে আরও ২৪ জনের মৃত্যু

খুলনার চার হাসপাতালে আরও ২৪ জনের মৃত্যু
ছবি: সংগৃহীত।

খুলনার চার হাসপাতালে করোনা ও উপসর্গে আরও ২৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল ৮টা থেকে রবিবার (১৮ জুলাই) সকাল ৮টা পর্যন্ত চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়।

এরমধ্যে খুলনা ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালে ৮ জন করোনায় ও ৭ জন উপসর্গে, খুলনা জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে দু’জন, শহীদ শেখ আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতালের করোনা ইউনিটে তিনজন ও বেসরকারি গাজী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে চারজনের মৃত্যু হয়েছে। এর আগের ২৪ ঘণ্টায় খুলনার চারটি হাসপাতালে ১১ জনের মৃত্যু হয়েছিল।

খুলনা ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালের ফোকালপার্সন ডা. সুহাস রঞ্জন হালদার জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে করোনায় ৮ জন ও উপসর্গ নিয়ে ৭ জনসহ ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। বর্তমানে হাসপাতালটিতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ২০৬ জন। এরমধ্যে রেড জোনে ১৪১ জন, ইয়ালো জোনে ২৬ জন ও আইসিইউতে ২০ জন। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ২৭ জন ও সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৩৫ জন।

শহীদ আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতালের মুখপাত্র ডা. প্রকাশ দেবনাথ জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালের করোনা ইউনিটে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতরা হলেন, খুলনার দিঘলিয়া উপজেলার সোলাইমান (৮০), পাইকগাছা উপজেলার সামিরুদ্দিন (৭৫) ও যশোরের শার্শা উপজেলার জামতলার কুতুবুদ্দিন (৬৬)। বর্তমানে হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ভর্তি রয়েছেন ৪২ জন। এরমধ্যে আইসিইউতে রয়েছে ১০ জন। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ৩ জন ও সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২ জন।

খুমেক করোনা ইউনিটে আরও ৭ জনের মৃত্যু

খুলনা জেনারেল হাসপাতালের ৮০ শয্যার করোনা ইউনিটের মুখপাত্র ডা. কাজী আবু রাশেদ জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতরা হলেন, খুলনার বটিয়াঘাটা উপজেলার সুচিত্রা (৬০) ও নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার শামসুন্নাহার (৫৫)। বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৬৬ জন। এরমধ্যে ২৯ জন পুরুষ ও ৩৭ জন নারী। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ১৪ জন ও সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২ জন।

গাজী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ডা. গাজী মিজানুর রহমান জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালের করোনা ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় চারজনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতরা হলেন, খুলনার কয়রা উপজেলার হাতিয়ারডাঙ্গার নীতিশ কুমার বাছাড় (৬৫), তেরখাদার জুনারীর দাউদ আলী তালুকদার (৮০), খুলনা মহানগরীর খানজাহান আলী থানার শিরোমনির মিয়া মাহমুদুর রহমান (৯১) ও যশোর সদরের রোজি (৬৫)। বর্তমানে বেসরকারি এ হাসপাতালের চিকিৎসাধীন রয়েছেন আরও ৯৪ জন।

এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ১২ জন ও সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৭ জন। শনিবার এ হাসপাতালে ৬৪ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৩৩ জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়।

ইত্তেফাক/এএএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x