করোনা চিকিৎসায় বেসরকারি হাসপাতাল

আনোয়ার খান মডার্নে সেবা দিচ্ছেন ৫০০ ডাক্তার ও নার্স

আনোয়ার খান মডার্নে সেবা দিচ্ছেন ৫০০ ডাক্তার ও নার্স
ছবি: আব্দুল গনি

সরকারের আহ্বানে সাড়া দিয়ে করোনা রোগীদের চিকিৎসাসেবা দিয়ে যাচ্ছে বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালগুলো। এরমধ্যে অন্যতম হলো রাজধানীর আনোয়ার খান মডার্নের ২০০ শয্যার করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতাল।

এটিই করোনা রোগীদের জন্য দেশের প্রথম বেসরকারি হাসপাতাল। করোনা রোগীদের সর্বোচ্চ চিকিৎসাসেবায় নিয়োজিত রয়েছে হাসপাতালটি। পাঁচ শতাধিক ডাক্তার-নার্স দিনরাত ২৪ ঘণ্টা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। তিন শিফটে তারা হাসপাতালে দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া আছেন অন্যান্য স্বাস্থ্য সেবাকর্মী।

দুইটি আলাদা ভবনে কোভিড এবং নন-কোভিড দুই ধরনের রোগীর চিকিৎসা করছে আনোয়ার খান মডার্ন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল। আনোয়ার খান মডার্নের ২০০ শয্যার করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে আইসিইউ, এইচডিওসহ মোট ৪৮টি বেড আছে। পুরো ভবনটিতে কেন্দ্রীয় অক্সিজেন সরবরাহের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে, ফলে ২০০ রোগীর সবাইকেই অক্সিজেন দেওয়া যাচ্ছে।

কোভিড কেবিন আছে ৮০টি। পুরুষ-মহিলাসহ সব ধরনের রোগী এখানে চিকিত্সাসেবা পাচ্ছেন। আইসোলেশনে থাকা রোগীদের একঘেয়েমি দূর করারও ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। করোনা পরীক্ষার জন্য অত্যাধুনিক আরটিপিসিআর মেশিন বসানো হয়েছে। অন্যান্য রোগ নির্ণয়ের জন্য আলাদা প্যাথোলজি ল্যাব এবং এক্সরে মেশিনের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এসব কার্যক্রমের পেছনে সমস্ত ব্যয় হয়েছে প্রতিষ্ঠানটির নিজস্ব অর্থায়নে। করোনার শুরুতে যখন রোগীর সংখ্যা বাড়ছিল, তখন সরকারি হাসপাতালগুলো চিকিৎসাসেবা দিতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছিল। তখন করোনা রোগীদের চিকিত্সাসেবা দিতে সরকারের পক্ষ থেকে বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালগুলোর প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছিল।

ছবি: আব্দুল গনি

মাত্র ১৯ দিনের মধ্যে আলাদা করোনা হাসপাতাল গঠন করে আনোয়ার খান মডার্ন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল। কোভিড রোগীদের ২৪ ঘণ্টা সব ধরনের চিকিৎসাসেবা পরিচালনার লক্ষ্যে টেলিমেডিসিনসহ অবকাঠামোগত এবং প্রযুক্তিগত সহায়তা প্রদান করছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। রোগীদের সেবা প্রদানের লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব অর্থায়নে বিপুল অঙ্কের টাকার অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি কেনা হয়েছে। এগুলোর মধ্যে বেড, কেবিন, আইসিইউ, সিসিইউ, অ্যাম্বুলেন্সসহ বিভিন্ন সরঞ্জামাদি প্রস্তুত করে চিকিৎসাসেবা কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

আনোয়ার খান মডার্ন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের কর্ণধার ও চেয়ারম্যান এবং বাংলাদেশ প্রাইভেট মেডিক্যাল কলেজ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ড. আনোয়ার হোসেন খান এমপি জানান, চিকিৎসার ক্ষেত্রে ব্যবসা নয়, সেবাই মুখ্য। জাতির এই ক্রান্তিকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডাকে করোনা রোগীদের সেবায় আমরা সম্পূর্ণ নতুন বিল্ডিংয়ে মাত্র ১৯ দিনে সুসজ্জিত নতুন একটি ২০০ বেডের করোনা হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করেছি।

করোনা রোগীদের চিকিৎসাসেবা দিতে গিয়ে এই হাসপাতালের তিন জন ডাক্তারসহ ছয় জন স্বাস্থ্যসেবা কর্মী মারা গেছেন। অনেক ডাক্তার-নার্স করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তারপরও আমরা চিকিৎসাসেবা চালিয়ে যাচ্ছি। ডাক্তার-নার্সসহ স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদের মনোবল ভাঙেনি।

ছবি: সংগৃহীত

আনোয়ার হোসেন খান নিজেই ২৪ ঘণ্টা হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা কার্যক্রম মনিটরিং করেন। রোগীদেরও খোঁজ-খবর নেন। আর এসব কাজ করতে গিয়ে ড. আনোয়ার হোসেন খান এমপি নিজেই করোনায় আক্রান্ত হয়ে সুস্থও হয়েছেন।

দেশের জনসাধারণের মধ্যে যাদের আর্থিক সামর্থ্য রয়েছে, তারা সাধারণত বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা গ্রহণ করেন। আনোয়ার খান মডার্নের ২০০ শয্যার করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে সুচিকিৎসা পেয়ে অনেক করোনা রোগী সুস্থ হয়ে যাচ্ছেন। কোনো রোগী যাতে ফিরে না যান সেজন্য শুরু থেকেই হাসপাতালের সক্ষমতা বৃদ্ধি করা হয়েছে। করোনায় আক্রান্তদের চিকিৎসার পাশাপাশি এই রোগ নিয়ে গবেষণাও করছে প্রতিষ্ঠানটি। করোনা রোগী আনা-নেওয়ার জন্য করা হয়েছে আলাদা অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা।

ইত্তেফাক/এএএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x