ঢাকা মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯, ১ শ্রাবণ ১৪২৬
২৯ °সে


ইংল্যান্ডকে হারিয়ে ফুরফুরে অস্ট্রেলিয়া

ইংল্যান্ডকে হারিয়ে ফুরফুরে অস্ট্রেলিয়া
একের পর এক ইংল্যান্ডের উইকেট তুলে নিয়ে অসি শিবিরে উল্লাস। ছবি-সংগৃহীত

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৬৪ রানের সহজ জয় পেল অস্ট্রেলিয়া। মঙ্গলবার লর্ডসে টস হেরে ব্যাট হাতে নামতে হয় অসিদের। অ্যারন ফিঞ্চের সেঞ্চুরিতে নির্ধারিত ওভার শেষে ৭ উইকেটে ২৮৫ রান করে তারা। জবাব দিতে নেমে ৩২ বল বাকি থাকতেই মাত্র ২২১ রানে অলআউট হয় স্বাগতিকরা।

সাত ম্যাচে ১২ পয়েন্ট নিয়ে চলতি বিশ্বকাপে প্রথম দল হিসেবে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করল অস্ট্রেলিয়া। আর সমান ম্যাচে ৮ পয়েন্ট নিয়ে শেষ চারে যাওয়া নিয়ে শঙ্কা বাড়ল ইংল্যান্ডের। যদিও এখনো তালিকার চারেই আছে দলটি।

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলে ব্যক্তিগত ও দলীয় রানের খাতা খোলার আগেই জেসন বেহরনডর্ফের বলে বোল্ড হয়ে যান জেমস ভিন্স। আর চতুর্থ ওভারে মিচেল স্টার্কের বলে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়েন জো রুট।

আরও পড়ুন : রেলমন্ত্রী আগামীকাল ট্রেনে করে সিলেটে যাচ্ছেন

দলীয় ২৬ রানে স্টার্কের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হন ইয়ন মরগান। রুট-মরগানের কেউ দুই অঙ্ক ছুঁতে পারেননি। এরপর কিছুটা সতর্কতার সঙ্গে খেলা জনি বেয়ারস্ট ৩৯ বল থেকে ২৭ রান করে ফিরেন। দলীয় ৫৩ রানে চতুর্থ ব্যাটসম্যান হিসেবে সাজঘরে ফেরেন তিনি।

মাত্র ৫৩ রানে চার উইকেট হারানোর পর বেন স্টোকসের সঙ্গে জুটি বেঁধেছিলেন জোস বাটলার। দুজন ৭১ রানের জুটি গড়ে ইংল্যান্ডকে খেলায় ফেরানোর চেষ্টা করেন। এরপর ফিরে যান বাটলার। তবে স্টোকস বড় ইনিংস খেলার পথে হাঁটেন। ক্রিস ওয়েকসকে সঙ্গে নিয়ে চলতে থাকেন তিনি। এই ইংলিশ ব্যাটসম্যান যেন অসিদের জন্য দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়ান। দলীয় ১৭৭ রানে স্টোকসকে বোল্ড করে অসি শিবিরে স্বস্তি ফেরান স্টার্ক। ষষ্ঠ ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হওয়ার আগে ১১৫ বল থেকে ৮৯ রান করেন স্টোকস।

স্টোকস ফিরে যাওয়ার পর ইংল্যান্ডের হারটা যেন সময়ের ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়। বাকি চার উইকেট তুলে নিতে অস্ট্রেলিয়াকে খরচা করতে হয় আর ৪৪ রান। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে আদিল রশিদ যখন আউট হন তখন ইংল্যান্ডের স্কোর ২২১ রান। অসি বোলারদের মধ্যে বেহরেনডর্ফ পাঁচটি এবং মিচেল স্টার্ক চারটি উইকেট নেন।

এর আগে আজ মঙ্গলবার ইংল্যান্ডের লডসে টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন ইংল্যান্ডের অধিনায়ক ইয়ন মরগান। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে সতর্ক শুরু করেন দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান ফিঞ্চ ও ডেভিড ওয়ার্নার। এই জুটিতে আসে ১২৩ রান। ব্যক্তিগত ৫৩ রানে মঈন আলীর বলে রুটের হাতে ক্যাচ দেন ওয়ার্নার।

এরপর উসমান খাজার সঙ্গে ফিঞ্চের ৫০ রানের জুটি আরো একধাপ এগিয়ে দেয় অস্ট্রেলিয়াকে। দলীয় ১৭৩ রানের মাথায় খাজাকে ফেরান বেন স্টোক। খাজা ২৩ রান করেন। দলীয় স্কোরে ১২ রান যোগ হতেই ফিরেন সেঞ্চুরিয়ান ফিঞ্চ। ১১৬ বল থেকে ১১টি চার ও দুটি ছক্কার মারে এ রান করেন তিনি।

পরবর্তী ব্যাটসম্যানদের মধ্যে স্টিভ স্মিথ ও অ্যালেক্স ক্যারি করেন ৩৮ রান করে। এর মধ্যে ক্যারি শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থাকেন।

ইত্তেফাক/কেআই

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৬ জুলাই, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন