ঢাকা বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
১৮ °সে


আজ শেষ হচ্ছে আয়কর মেলা

১ ডিসেম্বরের মধ্যে আয়কর রিটার্ন জমা না দিলে জরিমানা
আজ শেষ হচ্ছে আয়কর মেলা
মঙ্গলবার রাজধানীতে আয়কর মেলায় রিটার্ন ফরম পূরণে ব্যস্ত করদাতারা। —ইত্তেফাক

সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলা আজ বুধবার শেষ হচ্ছে। রাজধানী ঢাকাসহ দেশের আটটি বিভাগীয় শহরে সপ্তাহব্যাপী মেলা আয়োজন করা হয়। আর জেলা শহরে চার দিন ও কিছু উপজেলায় দুই দিন করে এ মেলা অনুষ্ঠিত হয়। গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর বেইলি রোডের অফিসার্স ক্লাবে মেলার ষষ্ঠ দিনে করদাতাদের ভিড় লক্ষ করা গেছে।

মেলা আয়োজনকারী প্রতিষ্ঠান জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) সূত্রে জানা গেছে, আজ বুধবার মেলা শেষ হলেও আগামী ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত কোনো ধরনের জরিমানা ছাড়াই করদাতারা আয়কর অফিসে গিয়ে রিটার্ন জমা দেওয়া কিংবা করদাতা শনাক্তকরণ নম্বরসহ (ই-টিআইএন) অন্যান্য সেবা নিতে পারার কথা। তবে ঐদিন সরকারি ছুটির দিন হওয়ায় (শনিবার) পরবর্তী খোলার দিন, অর্থাৎ ১ ডিসেম্বর জরিমানা ছাড়াই আয়কর রিটার্ন জমা দেওয়া যাবে।

কিন্তু নির্ধারিত সময়ের মধ্যে আয়কর রিটার্ন জমা দেওয়া না হলে জরিমানার মুখে পড়বেন করদাতারা। এক্ষেত্রে প্রতিদিনের জন্য ৫০ টাকা হারে জরিমানা গুনতে হবে। সময়মতো রিটার্ন জমা দিতে ব্যর্থ হলে এবং কোনো যথাযথ কারণ না দেখাতে পারলে পূর্ববর্তী বছরের প্রদেয় আয়করের ১০ শতাংশ জরিমানা (যেটি ১ হাজার টাকার কম হতে পারবে না) গুনতে হবে। অবশ্য নতুন করদাতার ক্ষেত্রে জরিমানা ৫ হাজার টাকা বেশি হবে না। কিন্তু পুরনো করদাতার ক্ষেত্রে এ জরিমানার পরিমাণ হবে পূর্ববর্তী বছরে প্রদেয় করের অর্ধেক। তবে তা ১ হাজার টাকার কম হবে না। সেক্ষেত্রে যাদের আয়করের পরিমাণ বেশি, তাদের জরিমানাও বেশি। বিদ্যমান আয়কর অধ্যাদেশ অনুযায়ী, প্রত্যেক টিআইএন ধারীকে আয়কর রিটার্ন দাখিল করতে হবে। বর্তমানে দেশে টিআইএন ধারীর সংখ্যা ৪০ লাখের ওপরে। যদিও গত বছর রিটার্ন দাখিল করে প্রায় ২১ লাখ করদাতা।

২০১০ সাল থেকে আয়কর মেলা চালু হওয়ার পর থেকে প্রতি বছরই মেলায় করদাতার সংখ্যা বাড়ছে। মূলত হয়রানিমুক্ত পরিবেশে আয়কর রিটার্ন দেওয়ার সুযোগ থাকায় সাধারণ করদাতার বড়ো অংশই মেলায় এসে রিটার্ন দাখিল করছেন। কিন্তু করদাতাদের অভিযোগ, কর অফিসে হয়রানি এবং নানা ছুতোয় এক শ্রেণির অসাধু কর কর্মকর্তা কিংবা কর্মচারী বাড়তি টাকা দাবি করেন। এসব কারণে অনেকেই কর অফিসে গিয়ে কর প্রদানে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন না।

যদিও এনবিআর চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া সম্প্রতি আয়কর মেলার উদ্বোধনকালে বলেছেন, আয়কর অফিসেও আয়কর মেলার মতো পরিবেশে রিটার্ন প্রদান কিংবা অন্যান্য কর সংক্রান্ত সেবা পাওয়া যাবে। এক্ষেত্রে সার্বিক সহযোগিতা করতে কর কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। তিনি বলেন, এক্ষেত্রে কারো বিরুদ্ধে কোনো ধরনের অভিযোগ প্রমাণ হলে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। গত ১৪ নভেম্বর করদাতাদের সম্মাননা জানানোর লক্ষ্যে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালও এক্ষেত্রে নিজের কঠোর অবস্থানের ইঙ্গিত দিয়েছেন। তিনি করদাতাদের উদ্দেশে বলেন, কোথাও কোনো অসুবিধা কিংবা হয়রানির শিকার হলে মেহেরবানি করে আমাকে জানানোর ব্যবস্থা করবেন। এক্ষেত্রে ইমেইল, ফোন কিংবা সরাসরি তাকে জানানোর কথা বলেন।

ছয় দিনে আয়কর মেলায় এলো ৫ লাখ ৪০ হাজার রিটার্ন: এদিকে গতকাল আয়কর মেলা শেষে এনবিআর হিসাব করে দেখেছে, এ পর্যন্ত আয়কর মেলায় ৫ লাখ ৩৯ হাজার ৯১০ করদাতার রিটার্ন জমা হয়েছে। এতে আয়কর আদায় হয়েছে ২ হাজার ১৬ কোটি টাকা। নতুন ই-টিআইএন নিয়েছেন ২৬ হাজার ৮৩১ জন। সব মিলিয়ে এ পর্যন্ত আয়কর মেলা থেকে সেবা নিয়েছেন ১৫ লাখ ১২ হাজার ৫৯২ জন।

গতকাল মেলা প্রাঙ্গণে এসে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, আজ শেষ দিনে যতক্ষণ পর্যন্ত করদাতারা মেলা প্রাঙ্গণে উপস্থিত থাকবেন, ততক্ষণ তাদের আয়কর রিটার্ন জমা নেওয়া হবে।

ইত্তেফাক/এমআর

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১১ ডিসেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন