বাজেট ২০২১-২২

বড় ব্যয় পরিকল্পনায়ও জীবিকায় জোর কম

বড় ব্যয় পরিকল্পনায়ও জীবিকায় জোর কম
ছবি: সংগৃহীত

অতিমারির ধাক্কায় দুই অঙ্কের প্রবৃদ্ধির আশা এখন সুদূর পরাহত। বরং করোনার অভিঘাতে বিপর্যস্ত অর্থনীতিকে টিকিয়ে রাখাই এখন বড় চ্যালেঞ্জ। মানুষকে বাঁচাতে হবে, কর্মসংস্থান নিশ্চিত করতে হবে—এমন পরিস্থিতিতে গত ৩ জুন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল আগামী ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাব জাতীয় সংসদে উত্থাপন করেছেন। তিনি বলেছেন, জীবন ও জীবিকা রক্ষার বাজেট। সময়টি এখন এমনি, কিন্তু জীবন-জীবিকার বিষয়টি অনুধাবন করলেও সঠিক কর্মপরিকল্পনা না থাকায় জোর কমে গেছে মূল উপজীব্যে। বরং এক ধরনের বৈপরীত্য লক্ষ করা গেছে তার বাজেট প্রস্তাবে। আপাতদৃষ্টিতে কিছু শিল্পে ছাড় কিংবা রেয়াত সুবিধা বাড়ালেও অপরাপর করারোপে পণ্যমূল্য বাড়বে। কিন্তু ক্রয়সক্ষমতা বাড়ানোর স্পষ্ট পদক্ষেপের অনুপস্থিতি ভোগব্যয় কমিয়ে দেবে। কেননা, করোনায় সৃষ্ট হতদরিদ্রদের আয় বাড়াতে কার্যকর পদক্ষেপ প্রস্তাবিত বাজেটে নেই। শতভাগ টিকাকরণেও জোর নেই। শুধু থোক বরাদ্দ দিয়েই ক্ষান্ত হয়েছেন তিনি। চলতি বছরেও থোক বরাদ্দ ছিল ১০ হাজার কোটি টাকা। সেটিরও ব্যয় সক্ষমতা ছিল না।

বাজেট ঘোষণায় মহামারি পরিস্থিতিকে সঠিকভাবে নিরূপণ করা হয়নি

এটা স্বাভাবিক যে, করোনা ভাইরাস যতদিন থাকবে, ততদিন দেশে বিনিয়োগ হবে না। বিনিয়োগ না হলে প্রবৃদ্ধি হবে না। কর্মসংস্থান হবে না। তাহলে জীবিকার উপায় কী? তখনি জীবিকার সন্ধানে কর্মে ছুটে যাবে মানুষ, যখন টিকাকরণ নিশ্চিত হবে। গত এক বছর সময় পেলেও শতভাগ টিকাকরণের প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নেওয়া যায়নি। বরং স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ বাড়ানো হয়েছে। এবারেও ১০ হাজার কোটি টাকার থোক বরাদ্দ রাখা হয়েছে। থোক বরাদ্দ আর্থিক শৃঙ্খলা পরিপন্থি। যা অপব্যবহার হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

আপাতদৃষ্টিতে মনে হচ্ছে—প্রস্তাবিত বাজেটটি তৈরির আগে করোনা ভাইরাসের বিষয়টি বিবেচনায় রেখে চারটি নীতিকৌশলকে সামনে রাখা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে :সরকারি ব্যয় বৃদ্ধি, প্রণোদনা দিয়ে অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের গতি বাড়ানো, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির সম্প্রসারণ ও বাজারে মুদ্রা সরবরাহ বৃদ্ধি করা। কিন্তু ব্যয় বৃদ্ধির জন্য সঠিক পরিকাঠামো অনুপস্থিত। অথচ এটি সত্য যে, এই মুহূর্তে ব্যয় বাড়ানোর বিকল্প নেই। ঋণ নিয়ে হলেও ব্যয় বাড়িয়ে জীবন-জীবিকা নিশ্চিত করতে হবে। কিন্তু আয় তো করতে হবে। সেটি কীভাবে হবে—এখানে ‘মিসম্যাচ’ রয়ে গেছে। ব্যবসাবাণিজ্যে স্থবিরতার মধ্যে আয়ের প্রাক্কলন অর্জনে বড় ধাক্কা আসবে এটিই স্বাভাবিক। প্রণোদনার বিষয়ে গুরুত্ব দিলেও সেখানে শুভংকরের ফাঁকি আগে থেকেই। নিরাপত্তা কর্মসূচি বাড়ানো মানেই সবাইকে অন্তর্ভুক্ত করা নয়। বরং করোনার অভিঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত বিশাল ভোক্তাশ্রেণি রয়ে গেছে ব্যয় পরিকল্পনার বাইরে। মুদ্রা সরবরাহ বৃদ্ধির কথা বলা হয়েছে। আবার মূল্যস্ফীতির হার ৫ দশমিক ৩ শতাংশে নিয়ন্ত্রণ করবেন, কিন্ত কীভাবে? ব্যয় বাড়লে, সে যদি ঋণ করেও হয়—মূল্যস্ফীতি বাড়বেই। বড় ব্যয়ের যে লক্ষ্য, তা যদি বাস্তবায়ন করা যেত অর্থাত্ ব্যয় বাড়াতে গিয়ে প্রত্যাশাজনিত মূল্যস্ফীতি যদি বাড়ত, তথাপিও সমস্যা হতো না যদি সামগ্রিকভাবে নগদ অর্থ সরবরাহ বাড়িয়ে ধনী-গরিব সব শ্রেণিকে ভোগব্যয়ে সক্ষম করে তোলা যেত।

ভোগব্যয় বাড়ানোর স্পষ্ট নির্দেশনা থাকছে না

শিল্পখাতে প্রস্তাবিত বাজেটে কিছু সুবিধা দেওয়া হলেও কার্যত আগামী দিনের শিল্পের হালহকিকতের বিষয়টি বিবেচনায় না নিয়েই বাজেট প্রণয়ন করা হয়েছে। খেলাপিঋণের ভারে জর্জরিত শিল্প খাতে প্রণোদনার অর্থও গেছে বড়দের পেটে। বড়দের সাবসিডিয়ারি কোম্পানি নিয়ে গেছে প্রণোদনার টাকা। বরং ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প বঞ্চিত হয়েছে। যদিও কর্মসংস্থানের জন্য ক্ষুদ্র-মাঝারি খাতই অধিকতর গুরুত্ব বহন করে।

ঢালাও ভ্যাট আরোপের ফলে পরোক্ষ করের চাপ তো বাড়ছেই, বরং আয়করের নিম্নসীমাও বাড়ানো হয়নি। ঢাকায় মূল্যস্ফীতি ও জীবনযাত্রার ব্যয় বিবেচনায় নিলে আড়াই লাখ টাকা খুব বেশি নয়। করোনার এই সময়ে নিম্নশ্রেণির এ ধরনের আয়করদাতাদের অনেকেই চাকরি হারিয়েছেন। করোনা বিবেচনায় ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত করমুক্ত আয়সীমা নির্ধারণ করলে নিম্ন-মধ্যবিত্তের সুবিধা হতো। উন্নয়ন প্রকল্পে গত পাঁচ বছরের মধ্যে এবারেই সর্বনিম্ন বাস্তবায়ন। রাজস্ব আদায়ও ঢিমেতালে। ফলে, ঋণ গ্রহণের প্রবণতা বাড়বে। অভ্যন্তরীণ ঋণের কিছু নেতিবাচক দিকও থাকে। অর্থমন্ত্রী নিজেই স্বীকার করেছেন তথ্য-উপাত্তের ঘাটতি রয়েছে। তার মানে যে, তথ্যের ওপর ভিত্তি করে বাজেট প্রণয়ন করা হয়েছে, তা সঠিক নয়। যদি তেমনটি হয়, তো বাজেট বাস্তবায়ন হবে কীভাবে? আকার ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা, তা যত বড় ব্যয়ের পরিকল্পনাই হোক, বছর শেষে অতীতের ধারাবাহিকতায় সংশোধন হবে। সবমিলিয়ে অন্যবারের মতোই সংশোধিত বাজেটও বাস্তবায়নের রেকর্ড অর্জিত হবে না—একথা আগাম বললে অত্যুক্তি হবে না।

ইত্তেফাক/কেকে

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x