ইবির ট্রেজারার পদ পেতে তদবিরে জ্যেষ্ঠ প্রফেসরবৃন্দ!

ইবির ট্রেজারার পদ পেতে তদবিরে জ্যেষ্ঠ প্রফেসরবৃন্দ!
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়।ছবি: সংগৃহীত

টানা প্রায় তিন মাস ধরে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) ট্রেজারার শুন্যপদে নিয়োগ পেতে জোর তদবির চালিয়ে যাচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্যেষ্ঠ প্রফেসরবৃন্দ। কে হচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ট্রেজারার তা নিয়ে নানা গুঞ্জন, জল্পনা-কল্পনা তুঙ্গে।

ইতিমধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের সফলভাবে প্রথম মেয়াদপূর্ণকারী ভিসি ড. রাশিদ আসকারীর মেয়াদ শেষে ৪০ দিনের মাথায় নতুন ভিসি নিয়োগ পেয়েছেন প্রফেসর ড. শেখ আব্দুস সালাম। একই সাথে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর ড. সেলিম তোহার মেয়াদও শেষ হয়। প্রায় তিন মাস হলেও শুন্য রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ পদটি। বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনৈতিক কাজ পরিচালনার ক্ষেত্রে পদটি শুন্য থাকায় নানা জটিলতা মুখোমুখি হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ইবির ট্রেজারার পদ নিয়োগ পেতে বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশ কিছু জ্যেষ্ঠ প্রফেসরবৃন্দ জোর তদবির চালিয়ে যাচ্ছেন। শিক্ষামন্ত্রণালয় ও গোয়েন্দাসূত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশ কিছু প্রফেসরবৃন্দের নাম শোনা যাচ্ছে। আলোচিত প্রফেসরবৃন্দ হচ্ছেন প্রফেসর ড. মুঈদ রহমান, প্রফেসর ড. আলমঙ্গীর হোসেন ভুঁইয়া, প্রফেসর ড. কাজী আখাতার হোসেন, প্রফেসর ড. সাইদুর রহমান, প্রফেসর ড. মাহবুবুর রহমান, প্রফেসর ড. তপন কুমার জোদ্দার, প্রফেসর ড. মাবুবুল আরেফিনসহ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ডজন খানেক জ্যেষ্ঠ প্রফেসরবৃন্দ।

একাডেমিক, প্রশাসনিক ও সাংগঠনিক ক্লিন ইমেজের দিক থেকে প্রফেসর ড. কাজী আখতার হোসেন সবার থেকে এগিয়ে আছেন বলে জানা গেছে। তিনি বর্তমান শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও প্রগতিশীল শিক্ষক সংগঠন শাপলা ফোরামের কার্যকরী কমিটির সদস্য। বঙ্গবন্ধু পরিষদে দুই কমিটিতে সহ-সভাপতি ও বর্তমানে নির্বাচিত কমিটির সিনিয়র সদস্য। এছাড়াও এই প্রফেসর বিভাগীয় সভাপতি ও ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ডিন এবং বর্তমান হিউম্যান রির্সোস ম্যানেজমেন্টের বিভাগীয় প্রধান হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করছেন। তবে সব শেষে কে হচ্ছেন নতুন ট্রেজারার তা নিয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দের মধ্যে গুঞ্জন জল্পনা-কল্পনা তুঙ্গে।

আরো পড়ুন: সিলেট এমসি কলেজে ধর্ষণ: ৮ জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দাখিল

এছাড়াও বাসদ সমর্থিত প্রফেসর ড. মুঈদ রহমান বঙ্গবন্ধু পরিষদে যোগদান না করলেও বিশ্ববিদ্যালয়ের শাপলা ফোরামের প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য ও অর্থনীতি বিভাগের সভাপতি ও ছাত্র উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করেন। প্রফেসর ড. তপন কুমার জোদ্দার বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হলের প্রভোস্ট ও সিন্ডিকেট সদস্য। প্রফেসর ড. আলমগীর হোসেন ভুঁইয়া ছাত্র জীবনের রাজনৈতিক মতাদর্শ এবং চলতি সালের আগে বঙ্গবন্ধু পরিষদে যোগদান না করার ব্যাপারে বিতর্ক থাকলেও তিনি শাপলা ফোরাম এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সেক্রেটারির মত গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর শেখ আব্দুস সালাম বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার পদ অতীব গুরুত্বপূর্ণ পদ। নির্বাহী ক্ষমতাবলে একজন ভিসি অর্থসংক্রান্ত কাজ পরিচালনা দায়িত্বভার থাকলেও প্রশাসনকে নানামুখী কাজে বেগ পেতে হয়। গুরুত্বপূর্ণ এই পদে পদায়ন জরুরি।

ইত্তেফাক/এএএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x