জাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা

বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪টি হল সিলগালা
জাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা
ছবি: ইত্তেফাক

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্ত ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের নির্দেশনাকে উপেক্ষা করে হলের সব সুবিধা নিশ্চিতের পাশাপাশি চারদফা দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের চারটি হলের শিক্ষার্থীদের বের করে সিলগালা করে দিয়েছে সংশ্লিষ্ট হল কতৃপক্ষ। এদিকে, রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্ত মেনে হল ছাড়ছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

মঙ্গলবার বিকেল পাঁচটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন চত্বরে সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন শিক্ষার্থীরা। তাদের অন্য দাবিগুলো হলো- শিক্ষার্থীদের ওপর হামলাকারীদের চিহ্নিত করে গ্রেফতার করা, হামলায় আহতদের চিকিৎসা ব্যয় ও ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া।

সংবাদ সম্মেলনে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী সিরাজুল হক বলেন, নিরাপত্তার স্বার্থে আমরা এখন হল ছাড়তে রাজি না। আজকে আমাদের আন্দোলন স্থগিত থাকলেও হল ছাড়তে বললে আবারও আন্দোলন করবো।

এর আগে দুপুর দুইটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন প্রশাসনিক ভবনের কাউন্সিল কক্ষে প্রাধ্যক্ষ কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে শিক্ষার্থীরা হল না ছাড়া পর্যন্ত প্রাধ্যক্ষরা হলে অবস্থান করবেন বলে সিদ্ধান্ত হয়। এরপরই প্রাধ্যক্ষরা হলে হলে গিয়ে শিক্ষার্থীদের হল ছাড়তে অনুরোধ করেন। পরে শহীদ রফিক-জব্বার হল, শহীদ সালাম-বরকত হল ও ছাত্রীদের বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলে অবস্থানরত শিক্ষার্থীদের বের করে সিলগালা করে দেয় প্রশাসন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীরা বলেন, আমরা ছেলেদের হলের অবস্থা পর্যবেক্ষণ করবো। ছেলেরা যদি হলে থাকে তবে আমরাও আবার হলে উঠবো।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাধ্যক্ষ কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মোতাহার হোসেন বলেন, ইতোমধ্যে পাঁচটি হলের শিক্ষার্থীরা হল ছেড়েছে। বাকি হলগুলোতে শিক্ষার্থীরা অবস্থান করছে। ওই হলগুলোতেও আমাদের পক্ষ থেকে অনুরোধ জানানো হয়েছে। আমাদের পক্ষ থেকে আর অনুরোধ জানানো হবে না। বাকিটা রাষ্ট্রীয় প্রশাসন দেখবে।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের বৈঠকের ব্যাপারে প্রক্টর আ স ম ফিরোজ-উল-হাসান বলেন, বৈঠকে শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগ করার অনুরোধ জানানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। যদি শিক্ষার্থীরা অন্যত্রে নিরাপত্তা চায় তবে আমরা সেটিও নিশ্চিত করবো বলে বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এর আগে গতকাল বেলা ১২ টায় প্রশাসনের আশ্বাসে পূর্ব ঘোষিত বিক্ষোভ কর্মসূচি প্রত্যাহার করে আন্দোলনকারীরা। অপরদিকে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক নিলাদ্রী শেখর মজুমদার গণমাধ্যমকে বলেন, শিক্ষামন্ত্রী বলার পরে গতকাল রাতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ থেকে নির্দেশনা আসছে যে, হলে থাকা যাবে না। সেই জায়গা থেকে ছাত্রলীগের রাষ্ট্রীয় ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সিদ্ধান্ত অমাণ্য করার সুযোগ নেই।

এদিকে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ধরণের পরীক্ষা স্থগিত করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। তবে ক্লাসের বিষয়ে কোন নির্দেশনা দেওয়া হয়নি। বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ কার্যালয় থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ বিষয়টি জানানো হয়।

এদিকে, গেরুয়ার স্থানীয়দের হামলায় আহত শিক্ষার্থীদের স্মরণে সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনারের পাদদেশে মোমবাতি প্রজ্জলন করা হয়।

শুক্রবার জাবি শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা করে স্থানীয় গেরুয়া গ্রামবাসী। শনিবার থেকে এর হামলার বিচার ও হল খোলার দাবিতে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন শুরু করে। একই দিন বিকালে প্রশাসনের নির্দেশনা উপেক্ষা করে হলের তালা ভেঙে শিক্ষার্থীরা অবস্থান শুরু করে।

ইত্তেফাক/কেকে

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x