ঘরে বসে মঙ্গল শোভাযাত্রা উপভোগের অনুরোধ ঢাবির

ঘরে বসে মঙ্গল শোভাযাত্রা উপভোগের অনুরোধ ঢাবির
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। ফাইল ছবি

মহামারি করোনার প্রকোপ ফের বৃদ্ধি পাওয়ায় এবারের বাংলা নববর্ষও পালন করা হবে সীমিত পরিসরে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদ চত্বরে একশ জন নিয়ে সীমিত আকারের এ উদযাপন করবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। একইসাথে জনসাধারণকে ঘরে বসে মঙ্গল শোভাযাত্রা উপভোগের অনুরোধ জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে অধ্যাপক আব্দুল মতিন চৌধুরী ভার্চুয়াল ক্লাসরুমে অনুষ্ঠিত এক ভার্চুয়াল সভায় এসব সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দফতর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব নির্দেশনা দেয়া হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, কোভিড-১৯ উদ্ভূত পরিস্থিতিতে এবছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে অত্যন্ত সীমিত পরিসরে বাংলা নববর্ষ ১৪২৮ উদযাপন করা হবে। এ উপলক্ষে চারুকলা অনুষদ চত্বরে ১০০ জনের একটি বর্ণাঢ্য মঙ্গল শোভাযাত্রা আয়োজন করা হবে। শোভাযাত্রাটি চারুকলা অনুষদ চত্বরেই সীমাবদ্ধ থাকবে। এক্ষেত্রে যথাযথভাবে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, মঙ্গল শোভাযাত্রা ঘরে বসে উপভোগের লক্ষ্যে এ বছর টেলিভিশন চ্যানেলে অনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচারের উদ্যোগ নেয়া হবে। কোভিড-১৯ উদ্ভুত পরিস্থিতিতে বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে জনসমাগম এড়ানোর উপর গুরুত্বারোপ করা হয় এবং সশরীরে অনুষ্ঠানে উপস্থিত না হওয়ার জন্য সর্ব সাধারণের প্রতি অনুরোধ জানানো হয়।

সভায় বর্তমান পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে নববর্ষ উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে কোন ধরনের মেলা বা ভ্রাম্যমাণ দোকান না বসানোর জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহবান জানানো হয়।

সভায় উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন আহমেদ, চারুকলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক নিসার হোসেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. রহমত উল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মো. নিজামুল হক ভূইয়াসহ বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভিন্ন হলের প্রভোস্ট, সিনেট-সিন্ডিকেট সদস্য এবং প্রক্টরিয়াল টিমের সদস্যগন সংযুক্ত ছিলেন।

এদিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. বাহালুল হক চৌধুরীসহ পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অফিসের ৫ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। একই সাথে বিশ্ববিদ্যালয়টির এই অফিসের আরো অন্তত ১০ জনের মধ্যে করোনার লক্ষণ রয়েছে। শনিবার করোনা টেস্ট করানোর পর ফলাফল পজিটিভ আসে অফিস প্রধানের। পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বাহালুল হক চৌধুরী নিজেই বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

অফিস সূত্রে জানা যায়, অফিসের দুই জন তত্ত্বাবধায়ক পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ও তিনজন সহকারী পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের করোনা টেস্ট করার পর ফলাফল পজিটিভ আসে। এছাড়াও ১০ থেকে ১৫ জনের করোনার লক্ষণ রয়েছে। এদের সবাই বাসায় অবস্থান করে চিকিৎসা নিচ্ছেন। করোনার প্রথম স্টেজের শেষের দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের দফতরগুলো রোস্টার করে দায়িত্ব পালন করলেও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অফিসে রোস্টার হয়নি। অফিসটির কাজে একেকজন একেক বিষয়ে দক্ষ হওয়ায় রোস্টার করা সম্ভব হয়নি। ফলে এ অফিসের অধিকাংশ কর্মকর্তা করোনার ঝুঁকির মধ্যে আছে বলে জানায় সূত্রটি।

এ বিষয়ে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বাহালুল হক চৌধুরী বলেন, করোনার লক্ষণ দেখা দিলে শনিবার টেস্ট করান তিনি। রবিবার ফলাফল পজিটিভ আসে। এখন পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। স্বাভাবিক খাওয়া-দাওয়াও করতে পারছেন না কিছুই।

ইত্তেফাক/এমএএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x