রাবির প্রশাসন ও ভিসির বাসভবনে তালা ঝুলিয়েছে এডহক নিয়োগপ্রাপ্তরা

রাবির প্রশাসন ও ভিসির বাসভবনে তালা ঝুলিয়েছে এডহক নিয়োগপ্রাপ্তরা
ফাইল ছবি

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ফিন্যান্স কমিটির সভা ও সিন্ডিকেট সভা বন্ধের দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবন ও ভিসির বাসভবনে তালা লাগিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ে এডহক নিয়োগপ্রাপ্তরা। আজ শনিবার (১৯ জুন) সকাল সাড়ে ৮টায় তারা এই ভবনগুলোতে তালা লাগায়।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, আজ শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বাসভবনে ফাইন্যান্স কমিটির সভা আহ্বান করেন সভার সভাপতি ও কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান আল আরিফ। এছাড়া আগামী ২২ জুন বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেটের জরুরি সভা আহ্বান করেছেন রুটিন উপাচার্য অধ্যাপক ড.আনন্দ কুমার সাহা। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ও বর্তমান ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের নিয়োগ আটকে দিয়ে সভা দুটি না করার দাবি জানানো হয়। কিন্তু তাদের অগ্রাহ্য করে সভা করার চেষ্টা করার কারণেই ভবনগুলোত তালা লাগিয়েছে তারা।

৬৭ পেরিয়ে ৬৮তে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় - banglanews24.com

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক আবদুস সোবাহান তার বিদায় বেলায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দেওয়া নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ১৩৮ জনকে নিয়োগ দিয়ে যান। মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে সেই ১৩৮ জনের যোগদান স্থগিত রেখেছেন বর্তমানে দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. আনন্দ কুমার সাহা।

এ বিষয়ে নিয়োগপ্রাপ্ত আতিকুর রহমান সুমন নামের একজন জানান, আজ ফাইন্যান্স কমিটি ও আগামী ২২ তারিখে সিন্ডিকেট সভা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। আজ যদি ফাইন্যান্স কমিটির মিটিং হয়, তাহলে আগামী ২২ তারিখে সিন্ডিকেট হবে। আমরা শুনেছি, ওই সিন্ডিকেট সভায় আমাদের নিয়োগ সম্পূর্ণভাবে বাতিলের জন্য সুপারিশ করা হবে। সে কারণে আমরা সিন্ডিকেট ও ফাইন্যান্স কমিটির মিটিং যাতে না হয়, সে জন্য আমরা অনুরোধ জানাতে এসেছি। আমাদের পদায়ন করার পর এসব সভা করার জন্য আমরা দাবি জানিয়েছি।

এদিকে সকাল সাড়ে ৯টায় নিয়োগপ্রাপ্তরা জানতে পারেন, রুটিন দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্যে বাসভবনে ফাইন্যান্স কমিটির সভা অনুষ্ঠানের চেষ্টা চলছে। এ সময় তারা দ্রুত রুটিন উপাচার্যের বাসভবনের আঙ্গুনায় ঢুকে পড়ে। খবর পেয়ে রুটিন উপাচার্য বাইরে বেরিয়ে এসে নিয়োগপ্রাপ্তদের সঙ্গে কথা বলেন। তিনি নিয়োগপ্রাপ্তদের উদ্দেশ্যে বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয় অনুমতি দিলে আমি সকলের যোগদান নিশ্চিত করবো।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা বলেন, আজকে তালা লাগানোর ঘটনাটি আমি শুনেছি। এ ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে তা কয়েক দিন থেকেই আমি শুনছিলাম। সে কারণে প্রক্টর এর মাধ্যমে নগরীর মতিহার থানায় মৌখিক ও লিখিতভাবে আমরা বিষয়টি জানিয়েছি। এছাড়াও রাজশাহীর স্থানীয় রাজনৈতিক নেতারা বিষয়টি অবগত রয়েছেন। আমি প্রশাসনের সবার সঙ্গে আবার কথা বলব, তারপর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ইত্তেফাক/জেডএইচডি

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x