বেটা ভার্সন
আজকের পত্রিকাই-পেপার ঢাকা বৃহস্পতিবার, ০৬ আগস্ট ২০২০, ২২ শ্রাবণ ১৪২৭
২৯ °সে

অভিষেকই ছিল করোনার বাহক!

অভিষেকই ছিল করোনার বাহক!
অভিষেক বচ্চন [ছবি: সংগৃহীত]

গত দু’দিন ধরে একটিই আলাপ, আশঙ্কা ও প্রশ্ন যে ভীষণরকম সুরক্ষায় থাকার পরও অমিতাভের বাড়িতে কীভাবে করোনা ভাইরাস ঢুকলো। অমিতাভ নিজেই টুইট করে বিশ্ববাসীকে তার করোনা পজিটিভ হওয়ার খবরটি জানান। পরপরই ছেলে অভিষেক জানালেন, করোনা ভাইরাস তাকেও ধরেছে।

রবিবার সকালে পরিবারের সবার করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা নেওয়া হয়। বাড়িতে থাকেন ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন, মেয়ে আরাধ্য, জয়া বচ্চন, শ্বেতা নন্দা ও তার ছেলে। ঐশ্বরিয়া ও আরাধ্যর করোনা পজিটিভ এসেছে। অভিষেক বচ্চন নিজেই টুইটে নিশ্চিত করেছেন ঐশ্বরিয়া ও আরাধ্য করোনায় আক্রান্ত। একদিনের ব্যবধানে আক্রান্ত হয়েছেন তারা। শনিবার রাত থেকে ইনস্টাগ্রাম, ফেসবুক ও টুইটারে জায়গা করে নিয়েছে বচ্চন পরিবারের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি। অনেকের মনেই প্রশ্ন, বচ্চন-পরিবার কীভাবে করোনায় আক্রান্ত হলো!

ভারতে লকডাউনের পুরো সময়টা বাড়িতেই ছিলেন অমিতাভ বচ্চন। তাই বলে অলস সময় কাটেনি তার। বাড়িতে বসেই করেছেন অনেকগুলো কাজ। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট করেছেন পুরনো ও নতুন ছবি। করোনাবিধি মেনে শুটিংয়েও যাননি তিনি। মার্চে করোনা সচেতনতা বাড়ানোর জন্য একটি ভিডিও শেয়ার করেছিলেন তিনি। সেটার শুটিংও বাড়িতেই হয়েছিল। এপ্রিলে তাকে দেখা গেছে বলিউড তারকাদের নিয়ে নির্মিত স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ফ্যামিলিতে। এই কাজের জন্য বাড়িতেই ভিডিও চিত্রধারণ করা হয়েছিল। মে মাসে ‘কৌন বনেগা ক্রোরপতি’ গেম শোর বেশকিছু প্রোমো তৈরি করেছেন তিনি। সেগুলোর শুটিং বাড়িতেই করা হয়েছে। দূরে বসে পরিচালনা করেছেন দঙ্গল ও ছিচোড়ে ছবির নির্মাতা নিতেশ তিওয়ারি।

ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির এক সূত্রে জানা গেছে, প্রায় ১০ দিন আগে একটি বিজ্ঞাপনের ডাবিংয়ের জন্য নিজের ডাবিং স্টুডিওতে গিয়েছিলেন ছেলে অভিনেতা অভিষেক বচ্চন। সেটা মুম্বাইয়ের জুহুতে, অমিতাভের বাড়ি জলসার পাশেই। ধারণা করা হচ্ছে সেখান থেকেই ভাইরাস নিয়ে এসেছেন অভিষেক! ভারতে প্রাথমিকভাবে লকডাউন তুলে নিলেও ধীরে ধীরে ছন্দে ফিরতে শুরু করে বলিউড। সেই তালে কাজে ফেরেন অভিষেকও। কয়েকদিন আগে নিজের ওয়েব সিরিজ ‘ব্রিদ: ইনটু দ্য শ্যাডোজ’-এর ডাবিং করতে যান তিনি। অভিষেক করোনা পজিটিভ জানার পর সেই স্টুডিও বন্ধ রাখা হয়েছে।

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত