বিভিন্ন প্রকল্পের নামে ধ্বংস হচ্ছে নদী ও পরিবেশ

বিশ্ব ধরিত্রী দিবসের আলোচনাসভায় বক্তারা
বিভিন্ন প্রকল্পের নামে ধ্বংস হচ্ছে নদী ও পরিবেশ
ছবি: সংগৃহীত

বিভিন্ন প্রকল্পের নামে দেশের নদী ও পরিবেশ ধ্বংস করা হচ্ছে। যা কোনোভাবেই কাম্য নয়। এ ধরনের প্রকল্পের মধ্যে সততা নেই বললেই চলে। নদী রক্ষার আইন আছে কিন্তু তার যথাযথ বাস্তবায়ন নেই। কোভিড সময়ে নদী দখল আরো বেড়েছে। সরকার অনেকটা আপস করে চলছে বলেই নদীগুলো উদ্ধার করতে পারছে না বলে মন্তব্য করেন বিশেষজ্ঞরা। তারা সবাইকে নদী ও পরিবেশ নিয়ে জোরদার আন্দোলনের আহ্বান জানান।

বৃহস্পতিবার সকালে বিশ্ব ধরিত্রী দিবস-২০২১ উপলক্ষ্যে ‘বাংলাদেশের নদী ব্যবস্থাপনা : কোন পথে সরকার?’ বিষয়ক ওয়েবিনারে বক্তারা এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) ও বাংলাদেশ পরিবেশ নেটওয়ার্ক (বেন) যৌথভাবে এ আলোচনাসভার আয়োজন করে।

বাপার সভাপতি মানবাধিকারকর্মী অ্যাডভোকেট সুলতানা কামাল বলেন, দেশের সম্পদ বিভিন্ন প্রকল্পের নামে ব্যবহার করা হচ্ছে জনগণের মতামতের কোনো রকম তোয়াক্কা না করেই। সরকার দেশের নদী এবং পরিবেশকে বিভিন্ন প্রকল্পের নামে ধ্বংস করেই চলছে। যা কোনোভাবেই কাম্য নয়। মূল বক্তব্যে যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভেনিয়ার লকহ্যাভেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মো. খালেকুজ্জামান বলেন, দেশের নদ-নদীর সংখ্যার কোনো সঠিক হিসাব সরকারের কাছে নেই। দেশে যে এতোগুলো পোল্ডার করা হলো তাতে কি বন্যা নিয়ন্ত্রণ হয়েছে? দেশে বিভিন্ন ধরনের বাঁধ দিয়ে বন্যা নিয়ন্ত্রণের পুরোনো ধারণা নীতিনির্ধারকদের মাথা থেকে এখনো যায়নি। হাইকোর্ট নদীকে জীবন্ত সত্তা বলে ঘোষণা করেছে, তাহলে কীভাবে জীবন্ত নদীর হাত-পা কেটে পঙ্গু করা হচ্ছে? এতে কি হাইকোর্টের রায় প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে না? তিনি তিস্তা প্রকল্পকে বিজ্ঞানভিত্তিক নয় বলে মন্তব্য করেন। তিনি বিলিয়ন ডলারের চায়না তিস্তা প্রকল্পের সম্ভাব্যতা জরিপের বিস্তারিত জনসম্মুখে প্রকাশেরও দাবি জানান।

বাপার সভাপতি ও বেন-এর প্রতিষ্ঠাতা ড. নজরুল ইসলাম বলেন, দেশে সব প্রকল্পই হচ্ছে কেবল অপরিকল্পিত। দেশের সব ধরনের প্রকল্পে স্বচ্ছতা, জনগণের অংশগ্রহণ এবং প্রকল্পের ব্যয় বরাদ্দ বিষয়ে জনগণকে জানানোর দাবি জানান। বাপার সহসভাপতি অধ্যাপক এম ফিরোজ আহমেদ বলেন, বিজ্ঞানভিত্তিক গবেষণা ছাড়া কোনো প্রকল্প গ্রহণ করা ঠিক হবে না। জাতীয় নদীরক্ষা কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ড. মুজিবুর রহমান হাওলাদার বলেন, বর্তমানে নদী ব্যবস্থাপনার কোনো আইনই কাজে আসছে না, আইনের ব্যত্যয় ঘটিয়ে কোনো উন্নয়নই করা যাবে না। তিনি এ বিষয়ে গৃহীত মাস্টারপ্ল্যান নিয়ে সরকারের সংশ্লিষ্ট নীতিনির্ধারকদের সঙ্গে আলোচনার উদ্যোগ নিতে পরামর্শ দেন।

বাপার সহসভাপতি ডা. মো. আব্দুল মতিন বলেন, সরকার আপস করে চলছে বলেই নদীগুলো উদ্ধার করতে পারছে না।

জাতীয় নদীরক্ষা কমিটির সদস্য শারমীন মুরশিদ বলেন, সরকারি সংস্থাগুলো প্রকল্প বাস্তবায়নে কাজ করতে গিয়ে অনেক বেশি দুর্নীতিপরায়ণ হচ্ছে। রাষ্ট্র নিজেই নদী ধ্বংস করছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন। সরকার নদীরক্ষার আইন করেছে কিন্তু তার যথাযথ বাস্তবায়ন করছে না। কোভিড সময়ে নদী দখল আরো বেড়েছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

তিস্তা রক্ষা সংগ্রাম কমিটির সভাপতি ফরিদুল ইসলাম ফরিদ বলেন, তিস্তা প্রকল্প নিয়ে কোনো সমীক্ষা হয়েছে কি-না, আমরা স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ডের কাছে গিয়ে তার প্রমাণ পাইনি। তিস্তা বাঁধ প্রকল্পের মাধ্যমে দেশের অনেক টাকা অপচয় হয়েছে। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাইফুল পাইকার, বাপার নির্বাহী সদস্য এম এস সিদ্দিকী, জিয়াউর রহমান, রফিকুল আলম প্রমুখ।

ইত্তেফাক/জেডএইচডি

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x