হাসপাতালে স্থান সংকুলান হচ্ছে না রোগীদের

হাসপাতালে স্থান সংকুলান হচ্ছে না রোগীদের
বামনা (বরগুনা): উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বারান্দায় চিকিত্সা নিচ্ছেন রোগীরা—ইত্তেফাক

বরিশাল অঞ্চলে ডায়রিয়ার প্রকোপ দেখা দিয়েছে। হাসপাতালে বেড়ে গেছে রোগীর সংখ্যা। পটুয়াখালীর দুমকি, বাউফল ও মির্জাগঞ্জে ডায়রিয়ায় তিন জন মারা গেছে। বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জে মারা গেছে একজন। আমাদের প্রতিনিধি ও সংবাদদাতাদের পাঠানো খবর।

পটুয়াখালী: জেলার দুমকি, বাউফল ও মির্জাগঞ্জ উপজেলায় ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে তিন জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। সোমবার পটুয়াখালী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে গিয়ে দেখা গেছে, ডায়রিয়া ওয়ার্ডে জায়গা নেই। এমনকি বিভিন্ন ওয়ার্ডে যাতায়াতের করিডোরেও ডায়রিয়া রোগী সামাল দেওয়া যাচ্ছে না। এ ব্যাপারে পটুয়াখালী মেডিক্যাল কলেজের সহযোগী অধ্যাপক শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. ওয়াহিদুজ্জামান শামিম জানান, ডায়রিয়ায় আক্রান্ত প্রচুর রোগী হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে। পটুয়াখালীর সিভিল সার্জন মো. জাহাঙ্গীর আলম শিপন ডায়রিয়ায় তিন জনের মৃত্যু নিশ্চিত করে বলেন, বাউফল হাসপাতালে চিকিত্সাধীন খাদিজা বেগম (২৭) ও দুমকিতে আ হক মুন্সির (৮৩) ডায়রিয়ায় মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া মির্জাগঞ্জে শাহারা নামে এক স্কুল ছাত্রী বাড়িতে ডায়রিয়ায় মারা গেছে।

মেহেন্দিগঞ্জ (বরিশাল): মেহেন্দিগঞ্জে ডায়রিয়া রোগীর সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাওয়ায় চিকিত্সাসেবা দিতে হিমশিম খাচ্ছে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্তৃপক্ষ। গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে হাসপাতালে ভর্তি প্রায় শতাধিক রোগী। ওয়ার্ডে জায়গা সংকুলান হচ্ছে না। হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালের ডায়রিয়া ওয়ার্ডে ভর্তি হয়েছেন ৩৯ জন (সোমবার দুপুর ২টা পর্যন্ত)। গত শুক্রবার ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে চিকিত্সা নিতে আসা পৌরসভার চরহোগলা ১ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা মো. কবির হোসেনের স্ত্রী মিনারা বেগম (৩৮) নামের এক একজন মারা যান। মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের দায়িত্বরত উপকমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার ডা. সাইফুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, হাসপাতালে আইভি স্যালাইনের পর্যাপ্ত সরবরাহ না থাকায় আনুপাতিক হারে রোগীদের স্যালাইন সরবরাহ করা হচ্ছে। রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় বারান্দায় চিকিত্সা দেওয়া হচ্ছে।

মীর্জাগঞ্জ (পটুয়াখালী): ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে উপজেলা হাসপাতালে প্রতিদিনই বিভিন্ন গ্রাম থেকে নারী-পুরুষ ও শিশুসহ অনেক রোগী ভর্তি হচ্ছে। হাসপাতালে পর্যাপ্ত আইভি স্যালাইনের সরবরাহ নেই। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. দিলরুবা ইয়াসমিন লিজা বলেন, ‘এখানে ডায়রিয়া মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। প্রয়োজনীয় ওষুধের পর্যাপ্ত সরবরাহ না থাকায় রোগী এলে তাৎক্ষণিকভাবে হাসপাতালের স্যালাইন দিয়ে পরিস্থিতি দ্রুত নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করছি।’ তিনি আরো জানান, ডায়রিয়া নিয়ন্ত্রণে উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নে আটটি মেডিক্যাল টিম গঠন করা হয়েছে।

বামনা (বরগুনা): বামনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডায়েরিয়া রোগীর চাপ বৃদ্ধি পেয়েছে। শয্যা সংকটের কারণে রোগীরা এখন চিকিত্সা নিচ্ছেন মেঝেতে। সোমবার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, ৬৪ জন রোগী ভর্তি আছে। উপজেলা স্বাস্থ্য ও প প কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামান বলেন, আকস্মিকভাবে রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় আমরা কিছুটা স্যালাইন সংকটে পড়েছি। অল্প সময়ের মধ্যে সেলাইন পৌঁছে যাবে।

দৌলতখান (ভোলা): উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দৈনিক গড়ে ভর্তি হচ্ছে ২৫ থেকে ৩০ জন ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগী। শয্যা সংকট থাকায় হাসপাতালের মেঝেতেই চিকিত্সা নিতে হচ্ছে এসব রোগীদের। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আনিছুর রহমান জানান, ‘নির্ধারিত শয্যার চেয়ে অতিরিক্ত রোগী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।’ তবে সব রোগীদের সর্বোচ্চ চিকিৎসা নিশ্চিত করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

ইত্তেফাক/কেকে

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x