করোনাকালের দিনপঞ্জি ১৮

আবার স্বাভাবিক সময় ফিরে পাব আমরা : নুর নামান খান

চলছে এক অদৃশ্য শত্রুর বিরুদ্ধে টিকে থাকার লড়াই। এই লড়াইয়ে বড়োদের পাশাপাশি ছোটরাও নানাভাবে যুক্ত। স্কুল বন্ধ থাকলেও অনলাইনে চলছে ক্লাস, পরীক্ষা আর বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা। সেইসঙ্গে সুস্থ থাকার জন্য সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ছোটদের কেউ কেউ ভিডিও বার্তার মাধ্যমে সবাইকে জানাচ্ছে কীভাবে সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। ঘরে থাকার এই সময়ে কেউ ছবি আঁকছে, কেউ গান করছে, কেউ নাচ করছে, আবার কেউ গল্পের বই পড়ে বা খেলাধুলা করে সময় কাটাচ্ছে। এ পর্বে দিনযাপনের কথা লিখে পাঠিয়েছে ছোট্ট বন্ধু নুর নামান খান। শুনে নিই তার করোনার দিনগুলোর গল্প—
আবার স্বাভাবিক সময় ফিরে পাব আমরা : নুর নামান খান
নুর নামান খান

প্রিয় বন্ধুরা, আমি নুর নামান খান| পড়াশোনা করছি বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল টিউটোরিয়ালে। আমি তোমাদের সাথে আজ শেয়ার করব করোনাকালীন এ সময়ে আমার দিনযাপনের কথা।

বর্তমান পরিস্থিতি আসলে কারো জন্যই স্বাভাবিক নয়। তবুও ভালো থাকার চেষ্টা করছি। এ সময় আমি সবচাইতে বেশি মিস করছি আমার স্কুল আর বন্ধুদের। অনলাইনে নিয়মিত ক্লাস করছি। কিন্তু সরাসরি দেখা হওয়ার আনন্দ তো আর অনলাইনে পাওয়া যায় না। এ সময়ে আমি কেক বানানো শিখেছি। মা আমাকে কেক বানানো শিখিয়েছেন। আর বাবা শিখিয়েছেন মুক্ত আকাশে ঘুড়ি ওড়ানো।

করোনার এ সময়ে আমি কোরআন খতম দিয়ে সবার জন্য দোয়া করেছি। আমার আগে থেকেই একটা গেমিং ইউটিউব চ্যানেল ছিল। ওটাতে নতুন নতুন গেম আপলোড করছি। যেহেতু বন্ধুদের সাথে সচরাচর দেখা হয় না, তাই আমরা একটা অনলাইন গ্রুপ ওপেন করেছি-যেখানে বন্ধুরা গল্প করি, একসাথে পড়াশোনাও করি। বিকেলে ছাদে গিয়ে ঘুড়ি উড়াই। এভাবেই আমার দিন কাটে।

এবার আমি ঈদের টাকা পাঠিয়েছি আমাদের গ্রামের বাড়িতে, কিছু অসহায় পরিবারের জন্য। কারণ করোনার কারণে কিছু মানুষের জন্য জীবনধারণ খুব কঠিন হয়ে পড়েছে।

করোনার দিন নিশ্চয়ই একদিন শেষ হবে। মহান আল্লাহপাক অবশ্যই এই ভয়াবহ পরিস্থিতি থেকে আমাদের রক্ষা করবেন। আবার সুন্দর ও স্বাভাবিক সময় ফিরে পাব আমরা। ততদিন আমাদের সবাইকে সচেতন থাকতে হবে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। কচি-কাঁচার আসরকে আন্তরিক ধন্যবাদ আমাকে আমার কথাগুলো সবার মাঝে বলার সুযোগ করে দেওয়ার জন্য।

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত