ন্যাশনাল জিওগ্রাফিকের প্রথম নারী ফটোগ্রাফার অ্যানি গ্রিফিথস

নারী হওয়ার কারণে আমার কাজ করতে সুবিধা হয়েছে

নারী হওয়ার কারণে আমার কাজ করতে সুবিধা হয়েছে
ন্যাশনাল জিওগ্রাফিকের প্রথম নারী ফটোগ্রাফার অ্যানি গ্রিফিথস। ছবি: সংগৃহীত

ন্যাশনাল জিওগ্রাফিকের প্রথম নারী ফটোগ্রাফার অ্যানি গ্রিফিথস মনে করেন, নারী হওয়ার কারণে কাজ করতে সুবিধা হয়েছে। বিশ্ব জুড়ে তার তোলা হাজার হাজার ছবি আছে। ৪৫ বছরের কর্মজীবনে ১৫০টির ও বেশি দেশ ঘুরেছেন ছবি তোলার জন্য।

ফটোসাংবাদিকতা করে তিনি উপলব্ধি করেন, অর্ধেক পৃথিবী তার কাছেই আছে। অ্যানি পাঁচ বছর মধ্যপ্রাচ্যে কাটিয়েছেন বিভিন্ন প্রকল্পে কাজ করে। মধ্যপ্রাচ্যের অনেক অংশ এবং তাদের সংস্কৃতির অনেক দিকে আছে লিঙ্গবৈষম্য। পশ্চিমা বিশ্বে এ নিয়ে প্রায়ই সমালোচনা হয়। নারীদের দৃষ্টিকোণ থেকে এটা দেখার সুযোগ আছে! গ্রিফিথের ক্যামেরায় ধরা পড়ে নারীরা প্রাকৃতিক বিপর্যয়, অভিবাসন, বৈষম্য, যুদ্ধ, মহামারি ও দুর্ভিক্ষ থেকে বেঁচে যাওয়া যোদ্ধা।

তিনি বলেন, এত বিপর্যয়ের পরও তারা ঐতিহ্যকে বাঁচিয়ে রাখে, শিশুদের লালনপালন করে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যায়। অ্যানি গ্রিফিথস জানান, ‘আমি সব সময় নারীদের সমস্যার সমাধান খুঁজে পাওয়ার ওপর গুরুত্ব দিয়েছি। নারীর এক অশ্চর্য ক্ষমতা আছে। পুরুষেরা সংসারত্যাগী হলেও নারীরা শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত সংসারের হাল ধরে রাখছেন। তাদের সন্তানদের এবং কখনো কখনো তাদের শ্বশুর-শাশুড়িকেও দেখাশোনা করছেন। ব্যক্তিগত জীবনে অ্যানি গ্রিফিথস দুই সন্তানের মা। সন্তানদের কাছেও তার মমতা আর দায়িত্বশীলতার প্রমাণ রেখেছেন। সন্তানদের প্রতিশ্রুতি দেন—তিনি দুই সপ্তাহের বেশি তাদের কাছ থেকে দূরে থাকবেন না।

ন্যাশনাল জিওগ্রাফিকের সঙ্গে তার বেশির ভাগ কাজ অন্তত তিন মাস স্থায়ী হয়। এই সুযোগে গ্রিফিথের সন্তানেরা ডজনখানেক দেশ দেখেছে এবং হাজার হাজার মানুষ দেখেছে। ২০০৮ সালে গ্রিফিথস ছবির স্মৃতিকথার একটি বই প্রকাশ করেন, যার নাম দিয়েছেন ‘একটি ক্যামেরা, দুই সন্তান এবং একটি উট’। যেখানে লেখা রয়েছে কাজ, পরিবার এবং পুরো বিশ্ব—এই তিনকে এক সুরে গাঁথা সম্ভব।

ইত্তেফাক/জেডএইচ

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x