‘গাঁদা’ নাকি ‘গেন্দা’ ফুল

‘গাঁদা’ নাকি ‘গেন্দা’ ফুল
ছবি : সংগৃহীত

শীতের অন্যতম জনপ্রিয় ফুলগুলোর মধ্যে একটি। মূলত বিদেশি ফুল। শীতকালেই গাঁদা বেশি ফোটে। অনেকে ফুলটিকে ‘গেন্দা’ বলেও ডাকে। ইংরেজি নাম ‘মেরিগোল্ড’।

হলুদ গাঁদা আফ্রিকা থেকে এসেছে। আর কালচে লাল রঙে ছিটে দেওয়া গাঁদা, যাকে আমরা রক্তগাঁদা বলে জানি, সেটা মূলত দক্ষিণ আমেরিকার ফুল। গাঁদা ফুলের বিভিন্ন প্রজাতি যুক্তরাষ্ট্রের অ্যারিজোনা রাজ্য এবং আমেরিকার মেক্সিকো, আর্জেন্টিনায় উত্পত্তি। আমাদের দেশে শহর-বন্দর ও গ্রামাঞ্চলে আবহমান কাল থেকেই এ ফুল ছড়িয়ে আছে। গাঁদা ফুলের প্রজাতি রয়েছে ২০টিরও বেশি। কিন্তু সব প্রজাতি পাওয়া যায় না বা গুরুত্বপূর্ণ নয়। বিশেষত আমাদের দেশে দু প্রজাতির গাঁদা পাওয়া যায়—একটি আফ্রিকান গাঁদা এবং অপরটি ফরাসি গাঁদা।

আরও পড়ুন: ৩ দিবসকে সামনে রেখে ফুল পরিচর্যায় ব্যস্ত কালীগঞ্জের চাষীরা

হলুদ গাঁদা ও রক্তগাঁদা। ছবি: সংগৃহীত

আফ্রিকান তিউনিশিয়ার গাঁদা ইউরোপে ছড়িয়ে পড়েছে বলে একে আফ্রিকান গাঁদা বলা হয়। এ প্রজাতির ফুলগুলো বেশ বড় হয় এবং গাছ অত্যন্ত আকর্ষণীয়। এ প্রজাতির গাঁদা হলুদ, কমলা, সোনালি, সাদা বর্ণের এক রঙা হয়ে থাকে। আমাদের দেশে এসব গাঁদা বাগানে এবং টবে রোপণ করা হয়। আফ্রিকান প্রজাতির গাঁদার অনেক নাম—বিউটি অরেঞ্জ, ফাস্ট হোয়াইট, বিউটি গোল্ড, অ্যাপোলো, ভাইকিং, গোল্ডেন এইজ, স্পান গোল্ড ইত্যাদি ইত্যাদি।

দুই প্রজাতির আরেকটি হলো ফরাসি। এ গাঁদার পাতা হয় গাঢ় সবুজ রঙের এবং ফুল আফ্রিকান গাঁদার চেয়ে আকারে কিছুটা ছোট। কিন্তু এ ফুলের সংখ্যা অনেক বেশি হয়। হালকা লাল থেকে গাঢ় লাল পর্যন্ত নানা রঙের হয়ে থাকে। হলুদ বা দু রঙা ফুলও দেখা যায়। ফরাসি জাতের গাঁদারও বেশকিছু নাম রয়েছে—বোনাজা ফ্লেইম, হারমুনি, অরেঞ্জ বয়, স্প্রে বয়, গোল্ডেন জেম, গোন্ডি ইত্যাদি।

ইত্তেফাক/এমএএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x