কান থেকে কানে ইয়ারফোন, হতে পারে বিপদ! 

কান থেকে কানে ইয়ারফোন, হতে পারে বিপদ! 
ছবি: লাইফ ক্লিক  

বন্ধুর সাথে আড্ডায় আমরা কতো কথাই না শেয়ার করি। গালগপ্পের আনন্দের মাঝে প্রিয় কোনো গান গাইতে ও শুনতে পছন্দ করি সবাই মিলে। এমনকি মোবাইলে থাকা কোনো গান বা ইউটিউব থেকে গান শুনতে কখনো কখনো নিজের কান থেকে ইয়ারফোন খুলে পাশে বসা বন্ধুকে দিয়ে দেই।

কিন্তু এমন ভালোলাগার মুহূর্তই ডেকে আনতে পারে ভয়ঙ্কর বিপদ। এমনটাই জানা গেছে একটি গবেষণা থেকে। নিজের ব্যবহার করা ইয়ারফোন অন্যকে দিলে দু’জনেরই ভয়ানক বিপদ ঘটতে পারে। তাই একটা গান শুনে হঠাৎ খুব ভালো লেগে গেলেই পাশের বন্ধুর কানে নিজের ইয়ারফোন খুলে দেবেন না।

সাধারণত, প্রত্যেকেরই কানে খোল তৈরি হয়। কানের ত্বকের মৃত কোষ, তেল, সারা শরীরের ময়লা মিশে তৈরি হয় এই খোল। এ সবের বাইরেও এই খোলের মধ্যে জমা হয় প্রচুর ব্যাকটিরিয়া। অবশ্য এই ব্যাকটিরিয়াগুলো ক্ষতিকারক নয় বরং কানের উপকারই করে। বাইরে থেকে অন্য ক্ষতিকারক ব্যাকটিরিয়ার সংক্রমণও আটকাতে দেয় এগুলো।

কিন্তু মুশকিলটা হলো, সকলের শরীরে এই উপকারি ব্যাকটিরিয়ার ধরণ এক রকম হয় না। প্রত্যেকের শরীরিক গঠন, জীবনযাপন, খাদ্যাভ্যাসের উপর নির্ভর করে কেমন ধরণের উপকারি ব্যাকটিরিয়া তার শরীরে থাকবে। ফলে একজনের শরীরে যে ব্যাকটিরিয়া উপকারি তা অন্যজনের শরীরে কাজে নাও লাগতে পারে। সবচেয়ে বিপদজনক তথ্য হলো, তা অন্যজনের কানে সংক্রমণের কারণও হতে পারে।

কিছুদিন আগে ‘মেডলাইন প্লাস’ নামক এক চিকিৎসাবিজ্ঞান বিষয়ক জার্নালে প্রকাশিত হওয়া গবেষণাপত্রে বলা হয়েছে, এই ইয়ারফোন থেকে ছড়িয়ে পরতে পারে মারাত্মক সংক্রমণ। করোনাকালে তো বটেই, অন্য সময়েও একজনের ইয়ারফোন অন্যের ব্যবহার করা উচিত নয়। কারণ ইয়ারফোনে সব সময়েই অল্প পরিমাণে হলেও আটকে থাকে ব্যবহারকারীর শরীরের জীবাণু। যেহেতু কান থেকে সংক্রমণ অতি দ্রুত মস্তিষ্কে ছড়িয়ে পরতে পারে, তাই এ থেকে বড় বিপদ ঘটে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। এমনই বলা হয়েছে মেডলাইন প্লাসের ওই গবেষণাপত্রে।

তাই গান বা ভিডিও ক্লিপ যতই পছন্দ হোক না কেন, নিজের ইয়ারফোন বন্ধুর কানে দেবেন না। বরং তার ইয়ারফোন আপনার ফোনে সংযোগ করে গানটি শোনার ব্যবস্থা করে দিন। তাতে ঝুঁকি তো কমবেই, সুস্থও থাকবেন কোভিডের ছোঁয়াছে সংক্রমণ থেকে।

ইত্তেফাক/আরএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x