এই বর্ষায় সঙ্গী হোক ছাতা  

এই বর্ষায় সঙ্গী হোক ছাতা  
ছবি: লাইফ ক্লিক  

বর্ষার রোদকে বলা হয় ছলনাময়ী। এই আছে আবার এই নেই। রৌদ্রোজ্জ্বল আবহাওয়ায় মেঘলা হয়ে বৃষ্টি ঝরতে বেশিক্ষণ লাগে না। তাই যখন তখন বৃষ্টির থেকে রক্ষা পেতে প্রয়োজন ছাতার। এমন বাদলা দিনে ছাতাকে সঙ্গী করে নিতে হবে। আজকাল নানা রঙবেরঙের ছাতা পাওয়া যায়। এতে বৃষ্টির থেকে যেমন রক্ষা পাওয়া যায়, তেমনি সাজসজ্জায় আসে ফ্যাশনের ছোঁয়া।

শুধু বৃষ্টিতেই নয়, রোদ থেকে নিজেকে রক্ষা করাও জরুরি। সূর্যের আলোয় থাকা অতি বেগুনি রশ্মি, যা কিনা ত্বকের জন্য অনেক ক্ষতিকর। নানা রকম ক্যান্সারের নেপথ্যে আছে এ অতিবেগুনি রশ্মি। এছাড়া রোদের কারণে আমাদের চুল আর ত্বকের দৃশ্যমান ক্ষতি প্রতিনিয়ত হচ্ছে। সুন্দর একটি ছাতা নিয়ে বাইরে বেরুতে পারাটাও স্বস্তির।

বর্ষার মৌসুমে পোশোকের সাথে মিলিয়ে ছাতা কেনা যায়। এটা রুচির বড় পরিচায়ক। এখন বাজারে বাহারি সব রকমের ছাতা পাওয়া যায়। যা দেখতে বেশ সুন্দর এবং অনায়াসে বহনযোগ্য। এ ছাড়াও মানসম্পন্ন ফ্যাশনেবল ফোল্ডিং ছাতা বাজারে পাওয়া যায়। একটু খোঁজ নিলে পাশের বাজোরেই পেয়ে যাবেন। বিগত বছরগুলোর মতো এবারও ব্যবসায়িরা বাহারি রঙ ও ডিজাইনের ছাতার পসরা সাজিয়েছেন।

ছোটদের জন্য যেমন ছাতা আছে তেমনই বড়দের জন্য রয়েছে ভিন্ন ভিন্ন নকশায় তৈরি করা ছাতা। নীল, বেগুনি, গোলাপি বা হলুদ রঙের ছাতা বেশ প্রচলিত। তবে এ ধরনের ছাতা ছেলেদের হাতে একটু বেমানান। ছেলেরা কালো, সিলভার, আকাশি বা নেভি ব্লু রঙের ছাতা ব্যবহার করতে পারেন। তবে রঙটা নিজেদের পছন্দমতো কিনে নেওয়া ভালো। ছোটদের কাছে কার্টুন প্রিন্টের ছাতার কদরটা বেড়েছে। অনেক ছাতার মধ্যে একাধিক ভাঁজ থাকে যা একদম ছোট্ট করে হাতের মুঠোয় রাখা যায়। বর্তমানে বিভিন্ন ধরনের ছাতা পাওয়া যাচ্ছে বাজারে। টিপ ছাতা, টু ফোল্ড, থ্রি ফোল্ড ও লম্বা শিকের বড় ছাতা।

আকারে ছোট হওয়ার কারণে থ্রি ফোল্ডয়ের ছাতার চাহিদা তুলনামূলক বেশি। বিশেষ করে তরুণীদের কাছে চেরি ছাতার জনপ্রিয়তা বেশি। এখন ডোভ ছাতার চাহিদাও কম নয়। মূলত স্টাইলিশ ছাতার প্রভাব লক্ষ্য করার মতো। আমাদের দেশে ছাতার বাজারটা ভারত, চীন, কোরিয়া, জাপানসহ বিভিন্ন দেশ প্রায় পুরোটাই দখলে নিয়েছে। শরীফ, শংকর ও এটলাসের ছাতা ছাড়াও মদিনা, বঙ্গ, ভাই-ভাই, বায়েজিদ, রহমান, দত্ত, মুন, ইউনিক, অলিম্পিক, ফুজি, স্ট্যামফোর্ড, ফিলিপস, ব্রাদার্স, মার্টিন, অ্যাপেক্স, নওয়ার, গোল্ডফিশ ইত্যাদি ব্র্যান্ডের ছাতা পাওয়া যায়।

বাজারভেদে ছাতার দাম ওঠানামা করে থাকে। নিউমার্কেট-গাউছিয়া এলাকায় প্রিন্টেড কিংবা রঙিন ছাতা পাওয়া যায় সুলভ মূল্যে। তাই বৃষ্টির মৌসুমে বৃষ্টি তো হবেই সেজন্য তো আর দৈনন্দিন কাজকর্ম বন্ধ রাখা যায়না। একটি ছাতাকে সঙ্গী করে নিন পুরো বর্ষাকালটাতে আর নির্বিঘ্নে চলাচল করুন।

ইত্তেফাক/আরএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x