গালে কমলা রঙের রহস্য জানুন 

গালে কমলা রঙের রহস্য জানুন 
ছবি: রফিকুল ইসলাম র‌্যাফ ও শেহতাজ শরীফ

প্রতিটি মানুষ যেমন আলাদা তেমনি তাদের গায়ের রঙও আলাদা। তবে কারো কারো চেহারা নজর কাড়ে তার কোমল মসৃণ ও কমলা রঙের ছোঁয়া লাগা মুখের সৌন্দর্যে। বিষয়টি অনেকের কাছেই বিস্ময়কর ঠেকে। কারণ রূপে রঙে অপরূপা হতে কার না ভালো লাগে!

যদি চেহারায় কমলা রঙের আভায় নিজেকে বদলে ফেলতে চান তাহলে এর পথটা যে খুব কঠিন তা কিন্তু নয়। কৃত্রিম কোনো রঙ দিয়ে নয় বরং এটি গালে আসে একেবারে ভেতর থেকে। নিয়ম মেনে কয়েক সপ্তাহ গাজর খেলেই আপনার ত্বক হয়ে যাবে একেবারে কমলা। সেটাইবা কীভাবে সম্ভব, জেনে নিন।

ত্বকের রঙ কমলা করার উপায়

এর জন্য প্রতিদিন নিয়ম করে গাজর খেতে হবে। গাজরের নানা উপাদান চোখের এবং ত্বকের জন্য ভীষণ উপকারি। গায়ের রঙে উজ্জ্বল আভা নিয়ে আসতে অনেক শিশুকেই ছোটবেলায় প্রচুর গাজর খাওয়ানো হয়। এর ফলে তাদের অনেকেরই ত্বকে তখন কমলার আভা চলে আসে। অনেকে সময় পরিবারের সদস্যরাও এতে ভীত হয়ে পড়েন। যদিও চিকিৎসকেরা বলছেন, এতে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। মূলত গাজরের বিটা-ক্যারোটিনের কারণেই এমনটা হয়।

কতোটা গাজর খাবেন

চিকিৎসকেরা মনে করেন প্রতিদিন ২০ থেকে ৫০ মিলিগ্রাম বিটা-ক্যারোটিন শরীরে প্রয়োজন। তা হলে সপ্তাহ খানেক পর ত্বকের রঙে কমলার আভা চলে আসবে। একটি মাঝারি মাপের গাজরে মোটামুটি ৪ মিলিগ্রাম বিটা-ক্যারোটিন থাকে। সে হিসাবে প্রতিদিন ১০টি করে গাজর খেতে হবে টানা কয়েক সপ্তাহ।

কোনো সমস্য কি হতে পারে

‘হেলথলাইন’ জার্নালের রিপোর্টে চিকিৎসকরা বলেছেন, এমনিতে ভয়ের কিছু নেই। তবে বছরের পর বছর এমন চলতে থাকলে যকৃত বা শরীরের অন্য অঙ্গে চাপ পড়তে পারে। একে বিটা-ক্যারোটিনের বিষক্রিয়া বলে। এছাড়া জন্ডিস বা অন্য কোনো অসুখে ত্বকের একই ধরনের বদল হয়। তাই সেদিকেও লক্ষ্য রাখতে হবে। ত্বকের রঙ বদলের পেছনে গাজর না থেকে অন্য কারণও থাকতে পারে। তেমন কিছু হলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। আর দুইএকদিন গাজর খাওয়ার পর সমস্যা দেখা দিলে সাথে সাথে খাওয়া বন্ধ করে দেবেন।

ইত্তেফাক/আরএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x