শত ফানুস উড়িয়ে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন

শত ফানুস উড়িয়ে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন
শত ফানুস উড়িয়ে জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন করা হয়। ছবি: ইত্তেফাক

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে একশত ফানুস উড়িয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী পালন করেছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। এসময় ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের স্লোগানে মুখরিত হয় টিএসসি প্রাঙ্গণ। মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১২টা ১ মিনিটে এ জন্মদিনের এ প্রোগ্রাম আয়োজন করে সংগঠনটি।

জন্মবার্ষিকীতে ফানুস ওড়ানোর পর ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশ ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠা করেন। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নের জন্য বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কাজ করে যাচ্ছে। মুজিববর্ষ এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর আনন্দঘন মুহূর্তে স্বল্পউন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উপনীত হওয়া আরেকটি আনন্দঘন মুহূর্ত।’

তিনি বলেন, ‘তরুণ প্রজন্মের আলোকবর্তিকা হাতে ছাত্রলীগ যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছি, সে এগিয়ে যাওয়ার পথে যেন অস্থিতিশীল পরিস্থিতি কেউ যেন সৃষ্টি করতে না পারে, অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ তরুণ প্রজন্মকে সাথে নিয়ে এগিয়ে যাবে।’

সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য বলেন, ২০২১ সাল জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর বছর। বর্তমান প্রজন্মে যারা মুজিব আদর্শের সৈনিক তাদের জন্য বছরটি অত্যন্ত পবিত্র একটি বছর। আমরা সকলে মিলে জাতির পিতার এ বাংলাদেশকে ঘিরে উন্নত সমৃদ্ধ যে বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছিলো দেশরত্ম শেখ হাসিনার হাত ধরে সেই স্বপ্ন যাতে বাস্তবায়ন করতে পারি সে প্রতিজ্ঞা নিয়ে আমাদের পথ চলা শুরু হোক।

এসময় ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বঙ্গবন্ধুর এ ‘জন্মবার্ষিকী’ বাঙালি জাতির ইতিহাসে এক অনন্য মাইলফলক স্পর্শকারী ও অভাবনীয় ঘটনা উল্লেখ করে ছাত্রলীগ থেকে প্রেরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে।

জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে নানা কর্মসূচিও হাতে নিয়েছে ছাত্রলীগ। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে দেওয়া কর্মসূচি অনুযায়ী, ১৭ মার্চ ভোর সাড়ে ছয়টায় কেন্দ্রীয় কার্যালয় ও সারাদেশের সংগঠনের সকল কার্যালয়ে জাতীয় পতাকা ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, বেলা ১১টায় ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে ঐতিহাসিক বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ, সকাল ১০টায় ছাত্রলীগের প্রতিনিধি দল টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ এবং দোয়া ও মিলাদ মাহফিল, বাদ যোহর সারাদেশের সকল ইউনিটে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল, সন্ধ্যা ৭টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হল উপাসনালয়ে প্রার্থনা সভা, বেলা ২টায় আজিমপুর এতিমখানা প্রাঙ্গণে পথশিশু, ছিন্নমূল এতিমদের মাঝে খাবার বিতরণ ও সাড়ে তিনটায় জাতীয় প্যারেড স্কয়ারের অনুষ্ঠানে যোগদান।

পরে ২১ মার্চ সকাল ১১টায় দলীয় কার্যালয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আয়োজিত অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ।

এছাড়াও ১৮ থেকে ২৫ মার্চ এ ৮ দিন দেশের ৮ বিভাগে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে আনন্দ র‌্যালি করার নির্দেশনা দেওয়া হয়। এর মধ্যে ১৮ মার্চ রংপুর বিভাগ, ১৯ মার্চ রাজশাহী বিভাগ, ২০ মার্চ সিলেট বিভাগ, ২১ মার্চ বরিশাল বিভাগ, ২২ মার্চ চট্টগ্রাম, ২৩ মার্চ খুলনা বিভাগ, ২৪ মার্চ ঢাকা বিভাগ ও ২৫ মার্চ ময়মনসিংহ বিভাগ এ আনন্দ র‌্যালি করবে।

ইত্তেফাক/এএএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x