‘ধর্ষক আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী হলেও ছাড় দেয়া হবে না’

‘ধর্ষক আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী হলেও ছাড় দেয়া হবে না’
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ছবি: ফাইল, সংগৃহীত

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ধর্ষক আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী হলেও তাকে ছাড় দেয়া হবে না। ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনকারীদেরকে কেবল দল থেকে বহিস্কারই করা হবে না, তাদের জন্য আওয়ামী লীগের দরজা চিরদিনের জন্য বন্ধ হয়ে যাবে। এ জাতীয় ঘৃন্য অপরাধীদের রাজনৈতিক আশ্রয়-প্রশ্রয়ের পথ বন্ধ করে দিতে হবে।

রবিবার সকাল ১১ টায় নিজ নির্বাচনী এলাকা কোম্পানীগঞ্জ ও কবির হাটে শারদীয় দুর্গোৎসব উপলক্ষে উপলক্ষে সনাতন ধর্মাবলম্বী সাথে তার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে শুভেচ্ছা বিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন।

সাম্প্রতিক সময়ে নারী নির্যাতনের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, আজকে নোয়াখালীতেও নারী ধর্ষণ-নির্যাতনের মতো কতগুলো অশুভ ঘটনা ঘটে গেছে। নোয়াখালীর মানুষ হিসেবে এজন্য আমি নিজেও লজ্জিত। এ ধরনের ঘটনা যারা করে তাদের দলীয় কিছু নেই। তারা হলো দুর্বৃত্ত। এই দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে দলমত নির্বিশেষে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অদম্য গতিতে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এই এগিয়ে যাওয়া যাদের গাত্রদাহ সৃষ্টি করেছে তারা নানান অপকৌশলে দেশকে পিছিয়ে দিতে চায়। তাদের অপকৌশলের একটি হচ্ছে হিন্দু-মুসলমান বৈরিতা সৃষ্টি করা।

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক অনন্য উদাহরণ। এদেশে হিন্দু, মুসলমান ও অন্যান্য ধর্মালম্বী সকল লোকজনের সমান অধিকার। আমাদেরকে মিলেমিশে চলতে হবে। কোন ধর্মের লোক যেন তাদেরকে মাইনোরিটি না ভাবেন। আমরা কারো প্রতিপক্ষ নই। আমরা প্রতিবেশী, আমরা একে অপরের সহমর্মি। তিনি সনাতন ধর্মালম্বীদের সর্বাত্মক সহযোগিতা করার জন্য দলীয় নেতাকর্মিদের প্রতি আহ্বান জানান।

এ সময় কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বসুরহাট শ্রী শ্রী জগন্নাথ মন্দির কমপ্লেক্সে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জিয়াউল হক মীর, হিন্দু বৌদ্ধ ঐক্য পরিষদের চট্টগ্রামের বিভাগের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক বাবু অরবিন্দু ভৌমিক, উপজেলা পূর্জা উদযাপন কমিটির সেক্রেটারী রনজিত কর্মকার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা খিজির হায়াত খান, সাধারণ সম্পাদক নুর নবী চৌধুরী ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আজম পাশা চৌধুরী রুমেল এবং কবিরহাট উপজেলার দরাফ নগর শ্রী শ্রী রক্ষা কালী মন্দিরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মীর রাশেদুজ্জামান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নুরুল আমিন রুমি এবং সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র জহিরুল হক রায়হানসহ বিভিন্ন পূজা উদ্যাপন কমিটির নেতা ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

ইত্তেফাক/জেডএইচ

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত