‘পদ্মা সেতুকে ঘিরে সোনারগাঁ হোটেলের এক্সটেনশন করার চিন্তা চলছে’

‘পদ্মা সেতুকে ঘিরে সোনারগাঁ হোটেলের এক্সটেনশন করার চিন্তা চলছে’
পদ্মা সেতু। ছবি: সংগৃহীত

বেসামরিক বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী এ্যাডভোকেট মো. মাহবুব আলী বলেছেন, আমাদের পরিকল্পনা আছে পদ্মা সেতুকে ঘিরে মাওয়ায় সোনারগাঁ হোটেলে এক্সটেনশন করার। কিছুদিন আগেও সোনারগাঁ হোটেলের এমডির সাথে আমার কথা হয়েছে। তাদেরও এ ধরণের একটি পরিকল্পনা আছে। এর বাইরেও পর্যটন শিল্পের জন্য এখানে কিছু একটা করতে হবে। যেহেতু এখানে পদ্মা ব্রিজ, রিভার এন্ড ট্যুরিজমসহ অনেক কিছু করার সুযোগ আছে। আমাদের মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সে চেষ্টা অব্যাহত থাকবে। দেশী বিদেশি পর্যটক বিশেষ করে দক্ষিণবঙ্গের যে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, প্রাচ্যের ভ্যানিস হিসেবে খ্যাত আমাদের বরিশাল। যাতে বিদেশী পর্যটকরা এসে সেই সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারে, সেই দিকে দৃষ্টি রেখে প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুতে হাত দিয়েছেন।

শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ের সাতঘড়িয়ার ডাচ ডেইরি ফার্ম পরিদর্শন শেষে এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, বিশ্বের সবচেয়ে বড় ব্রিজের মধ্যে পদ্মা সেতু অন্যতম। বাংলাদেশেও বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মানুষ আসবে। আমাদের কর্মকাণ্ড প্রসারিত করবো। এবং পর্যটনের রিসোর্টসহ আরও কী কী করা যায় সে ব্যাপারে উদ্যোগ নিবো। ইতোমধ্যে আমরা ৬টি বাস প্রায় চূড়ান্ত করেছি। বিশ্বের সবচেয়ে অত্যাধুনিক বাস, যেগুলো লন্ডন বা ইউরোপে দেখা যায়। আমরা সেরকম ৬টি বাস চালু করতে যাচ্ছি এ রুটে। ঢাকা থেকে যাতে পর্যটকরা এই অত্যাধুনিক বাসে চড়ে পদ্মা সেতুর এ এলাকা পরিদর্শনে আসতে পারে। এতে বহুমাত্রিকতা আসবে। এবং পর্যটকরা এ ধরণের খামারও পরিদর্শন করতে পারবে।

মন্ত্রী বলেন, আমাদের পদ্মা সেতু এলাকা একটি উজ্জ্বল সম্ভাবনার এলাকা। প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার ঐকান্তিক উদ্যোগে পদ্মা সেতু এখন দৃশ্যমান। আগামী কয়েক মাসের মধ্যে পদ্মা ব্রিজ চালু হবে। সুতরাং এখানে এ ধরণের একটি খামার যেকোনো দেশী বিদেশী পর্যটকরা এটি পরিদর্শনে আসবে। পর্যটন শিল্পে বহু মাত্রিকতা আনবে এ খামার। আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর বিশ্ব পর্যটক দিবস। আমার বিশ্বাস সে দিন বহু পর্যটক আসবে এ খামারসহ পদ্মা পাড়ের নান্দনিক দৃশ্য দেখতে। এটার দেখা দেখি অনেকেই এ ধরণের খামার করার উদ্যোগী হবে। সরকারের পক্ষ থেকে সকল ধরনের সহযোগিতা করা হচ্ছে। এসব ব্যাপারে সরকার সব ধরণের আর্থিক প্রণোদনা দিচ্ছে। এবং আর্থিকভাবেও সাহায্য করছেন। করোনার মধ্যেও আমরা আবার গার্মেন্টস রপ্তানিতে দ্বিতীয় অবস্থানে এসেছি। অন্যান্য ক্ষেত্রে রপ্তানির জন্য প্রধানমন্ত্রী ইতোমধ্যে দুটি কার্গো বিমান আনার কথা বলেছেন। আমরা সেই দিকে এগুচ্ছি। এটি হলেও রপ্তানি বৃদ্ধি পাবে।

এ সময় মন্ত্রীর সাথে ছিলেন, কিশোরগঞ্জের এমপি নূর মোহাম্মদ, মুন্সীগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আব্দুল কাদের মিয়া, লৌহজং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল আউয়াল, ডাচ ডেইরি ফার্মের এমডি মো. জিল্লুর রহমান মৃধা রিপন প্রমুখ।

ইত্তেফাক/এমএএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x