বিশ্ব আবহাওয়া দিবস আজ, নানা কর্মসূচি গ্রহণ

প্রকাশ : ২৩ মার্চ ২০১৯, ০৮:২২ | অনলাইন সংস্করণ

  বিশেষ প্রতিনিধি

বিশ্ব আবহাওয়া দিবসের প্রতীকি ছবি

বিশ্ব আবহাওয়া দিবস আজ। প্রতিবছর বাংলাদেশসহ বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থার ১৯৩টি সদস্য দেশ ও স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চলসমূহ ২৩ মার্চ বিশ্ব আবহাওয়া দিবস পালন করে আসছে। বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থা প্রতিবছর দিবসটি পালনের জন্য বাস্তব ও সময়োপযোগী একটি প্রতিপাদ্য বিষয় নির্বাচন করে থাকে।

 

এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় হচ্ছে ‘সূর্য, পৃথিবী ও আবহাওয়া’। বৃহস্পতিবার আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পৃথিবীর প্রাকৃতিক শক্তির ভারসাম্য রক্ষা, আবহাওয়া, জলবায়ু এবং একই সঙ্গে পৃথিবীর পানিচক্র ও জলবায়ু ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণে সূর্য ও পৃথিবীর মিথস্ক্রিয়া গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।

 

এ পরিপ্রেক্ষিতে আবহাওয়া দিবসের এবারের প্রতিপাদ্য-‘সূর্য, পৃথিবী ও আবহাওয়া’ বিশ্বের আবহাওয়া ও জলবায়ুর ওপর সূর্য ও পৃথিবীর যৌথ প্রভাব সম্পর্কে মানুষের জ্ঞানের পরিধি বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে। বাংলাদেশ বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থার (ডব্লিউএমও) সদস্য রাষ্ট্র হিসেবে আন্তঃদেশীয় আবহাওয়ার পূর্বাভাস এবং স্থান ও সময়োপযোগী আবহাওয়া ও জলবায়ু সংক্রান্ত তথ্যের আদান-প্রদান আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে।

 

 

বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর অন্যান্য বছরের ন্যায় এবারও যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালন করবে। বিশ্ব আবহাওয়া দিবস ২০১৯ উদযাপনের এক অনাড়ম্বর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মেজর জেনারেল (অবঃ) মো. সুবিদ আলী ভূঁইয়া এমপি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি থাকবেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব আখতার হোসেন ভূঁইয়া।

আরো পড়ুন : আজ অনন্যা শীর্ষদশ ২০১৮ সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠান

এ অধিদপ্তরের সদর দপ্তর, বিভাগীয় শহরসমূহ ও গুরুত্ব অনুযায়ী দেশের বিভিন্ন শাখা অফিসসমূহে দিবসটি সীমিত আকারে পালনের জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। এ অধিদপ্তরের সদর দপ্তরে আবহাওয়া সংক্রান্ত বিভিন্ন যন্ত্রপাতি ও প্রামাণ্য চিত্র জনসাধারণের জন্য প্রদর্শনীর ব্যবস্থাসহ ঢাকা শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়কদ্বীপ সজ্জিতকরণ ও র্যালির আয়োজন করা হবে।

 

অধিদপ্তরীয় কর্মকর্তা পরিষদ কর্তৃক একটি টেকনিক্যাল সেশনের আয়োজন করা হবে। বেশকিছু দৈনিক পত্রিকায় এ উপলক্ষে ক্রোড়পত্র প্রকাশিত হবে। বাংলাদেশ বেতার ও বাংলাদেশ টেলিভিশন এ বিষয়ে বিশেষ আলোচনা অনুষ্ঠান সম্প্রচার করবে। এছাড়া ঢাকা, কক্সবাজার, খেপুপাড়া, রংপুর ও মৌলভীবাজারের অপারেশনাল ইউনিট ও রাডার স্টেশনসমূহ জনসাধারণের প্রদর্শনের জন্য উন্মুক্ত রাখা হবে।

 

ইত্তেফাক/ইউবি