ঢাকা মঙ্গলবার, ২১ মে ২০১৯, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬
৩২ °সে


‘আল্লাহ আমাদের বাঁচাতে জেলেদের পাঠিয়েছিল’, বললেন ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবিতে বেঁচে যাওয়া বাংলাদেশি

ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবি: ‘আল্লাহ আমাদের বাঁচাতে জেলেদের পাঠিয়েছিল’
ভূমধ্যসাগরে অভিবাসীবাহী ডুবন্ত নৌকা। ছবি: সংগৃহীত।

আহমেদ বিলালের চোখের সামনেই একে একে ভূমধ্যসাগরে ডুবে যাচ্ছিল অনেক সহযাত্রী। তার নিজেরও ঠান্ডা পানিতে ডুবে মারার উপক্রম। তারপর একদল জেলে এসে উদ্ধার করলো তাকে।

বিবিসি বাংলা জানায়, তীরে আসার পর একটি বার্তা সংস্থাকে তিনি বলেন, ‘‘আল্লাহ আমাদের বাঁচাতে জেলেদের পাঠিয়েছিলেন’’। এই সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছেন কীভাবে বাংলাদেশের সিলেট থেকে ইউরোপের পথে শুরু হয়েছিল তার এই বিপদজনক যাত্রা।

আহমেদ বিলাল এখন আছেন তিউনিসিয়ার উপকূলীয় শহর জারজিসে রেড ক্রিসেন্টের একটি আশ্রয় কেন্দ্রে। নিজে বেঁচে গেলেও এই ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন তার দুজন আত্মীয়। তাদের জন্য কান্না থামাতে পারছেন না তিনি।

তাদের নৌকা যখন পানিতে ডুবে গেল, তখন মোট ১৬ জনকে সেখান থেকে জীবিত উদ্ধার করে এই জেলেরা। আহমেদ বিলাল সেই সৌভাগ্যবানদের একজন। কিন্তু আরও প্রায় ৬০ জন পানিতে ডুবে মারা যায়। এদের বেশিরভাগই ছিল বাংলাদেশি।

সিলেট থেকে ভূমধ্যসাগর

Image result for boat carrying mostly bangladeshis capsized in mediterranean sea

৩০ বছর বয়সী আহমেদ বিলালের বাড়ি বাংলাদেশের সিলেট জেলায়। সেখান থেকে উন্নত জীবনের আশায় তিনি ইউরোপের পথে পাড়ি জমিয়েছিলেন দালালদের মাধ্যমে।

পারিবারিক জমি বিক্রি করে তিনি দালালের হাতে এজন্যে তুলে দেন সাত হাজার মার্কিন ডলারের সমপরিমান অর্থ। এই দালালকে তিনি চেনেন 'গুডলাক' ছদ্মনামে।

"এই দালাল আমাকে বলেছিল, আমরা বেশ ভালো জীবনযাপন করতে পারবো। আমরা তাকে বিশ্বাস করেছিলাম।আমি নিশ্চিত যত লোককে সে এভাবে পাঠায়, তাদের বেশিরভাগই মারা যায়।"

ছয় মাস আগে তাদের যাত্রা শুরু হয়। প্রথমে তারা যান দুবাই। সঙ্গে ছিল আরও দুজন। সেখান থেকে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে। সেখান থেকে আরেকটি ফ্লাইটে লিবিয়ার রাজধানী ত্রিপলিতে।

বিলাল জানান, ত্রিপলিতে আরও প্রায় ৮০ জন বাংলাদেশি তাদের সঙ্গে যোগ দেন। এরপর পশ্চিম লিবিয়ার কোন একটা জায়গায় একটি রুমে তাদের তিন মাস আটকে রাখা হয়।

আরও পড়ুনঃ সোনাগাজী থানার ওসি রংপুরে যোগদান করায় ডিআইজি অফিস ঘেরাও

‘‘আমার মনে হয়েছিল, আমি লিবিয়াতেই মারা যাব। আমাদের দিনে মাত্র একবার খাবার দেয়া হতো। অনেকসময় তারও কম। আশি জন মানুষের জন্য সেখানে টয়লেট ছিল একটি। আমরা শৌচকর্ম পর্যন্ত করতে পারতাম না। আমরা খাবারের জন্য কান্নাকাটি করতাম।’’ বিবিসি বাংলা।

ইত্তেফাক/টিএস

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
২১ মে, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন